10.4 C
Drøbak
সোমবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১
প্রথম পাতাসাম্প্রতিকবরিশালপ্রেমিকাকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে যুবকের গলায় জুতার মালা

প্রেমিকাকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে যুবকের গলায় জুতার মালা

বরিশাল জেলার মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলায় প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে আটক বেল্লাল রাঢ়ী (১৮) নামে এক তরুণকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ এনে, শিকল দিয়ে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতনের পর সালিশ বিচারে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা এবং জুতার মালা পরিয়ে এলাকায় ঘোরানো হয়েছে।

নির্যাতনের শিকার বেল্লাল মেয়ারচর গ্রামের আলম রাঢ়ীর ছেলে।

মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার দুর্গম শ্রীপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্র্ডের মেয়ারচর গ্রামে বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) রাতে ওই তরুণকে আটক করার পর শুক্রবার সকালে তাকে নিয়ে সালিশ বৈঠকে বসা হয়।

অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে নির্যাতক জসিম আকন ও তার ছেলে স্বপনের মোবাইল ফোনে কল করা হলে তাদের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এ কারণে তাদের বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

তবে শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্র্ডের সদস্য হুমায়ুন গাজী বলেন, ‘শুক্রবার বিকেলে বেল্লালের বড় ভাই ছালাম আমার কাছে এসে ঘটনার কথা বলেছেন। আমি তাকে পুলিশের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছি। তিনি আরও বলেন, দেশে আইন আছে, আদালত আছে। কেউ যদি সত্যিই কোনো অপরাধ করে, তাকে পুলিশে দেয়া উচিৎ। এরপর আদালত তার বিচার করবে। এভাবে সালিশ করে বিচার করা ঠিক নয়।’

মেহেন্দিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল কালাম জানান, ‘সন্ধ্যার পর বিষয়টি আমরা জানতে পেরেছি। তবে ওই এলাকা অনেক দুর্গম। সেখানে পুলিশ পাঠিয়ে ঘটনা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে সত্যতা পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

স্থানীয়রা জানান, বেল্লালদের পরিবার ও একই গ্রামের জসিম আকনের পরিবারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।

এসবের মধ্যেই জসিম আকনের মেয়ের (১৭) সঙ্গে বেল্লালের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিছুদিন আগে জসিম ও তার দুই ছেলে স্বপন এবং রিপন বিষয়টি জানতে পারেন।

এরপর বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে বেল্লাল তার প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে তাদের বাড়ি পাশের বাগানে গেলে প্রেমিকার দুই ভাই তাকে ধরে লাঠিসোটা দিয়ে বেদম মারধর করে বাড়ির উঠানে একটি গাছের সঙ্গে শিকলে তালা দিয়ে আটকে রেখে রাতভর নির্যাতন করে ।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে জসিম আকনের বাড়িতে সালিশ বিচার বসে। সেখানে গ্রামের প্রভাবশালী মামুন চৌকিদার, জসিম খান, কবির খাঁ, আনোয়ার চৌকিদার ও মো. জহিরসহ আরও কয়েকজনকে বিচারের জন্য ডাকা হয়।

এ সময় জসিম আকনের পরিবারের পক্ষ থেকে বেল্লালের বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ এনে সালিশ বিচারে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা এবং জুতার মালা পরিয়ে জসিম আকনের বাড়ির আশেপাশের এলাকায় ঘোরানো হয়।

বেল্লালের বড় ভাই ছালাম রাঢ়ী বলেন, ‘জসিম আকনের পরিবারের সঙ্গে আমাদের পূর্ব বিরোধ ছিল। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে আমার ছোট ভাই বেল্লাল তার বাড়ির পাশের রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় স্বপন, রিপন ও তাদের চাচাতো ভাই নুরুজ্জামান বেল্লালকে ধরে তাদের বাড়ি নিয়ে যায়।

এরপর তাকে সারারাত শিকল দিয়ে গাছের সঙ্গে আটকে মারধর করে। শুক্রবার সকালে খবর পেয়ে সেখানে গেলে তারা বেল্লালের সালিশে বিচার করা হবে বলে জানায়। সালিশ বিচারে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা এবং জুতার মালা পরিয়ে ঘোরানো হয়।’

ছালাম আরও বলেন, ‘বিচারের সময় সালিশদারদের বার বার অনুরোধ করেছি, আমার ভাই কোনো অপরাধ করে থাকলে তাকে পুলিশে দেন। জসিম আকনের টাকা আছে। এলাকায় তার প্রভাব আছে। সালিশদাররা সবাই জসিম আকনের পক্ষে কথা বলেছেন। আমার কথা কেউ শোনেননি। জসিম আকন যে শাস্তির কথা বলেছেন, সালিশদাররা সেই শাস্তি আমার ভাইকে দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘জরিমানার ৭০ হাজার টাকার মধ্যে ৪০ হাজার টাকা সালিশদারদের হাতে তুলে দিয়েছি। এ সময় সালিশদাররা হাসপাতালে না নিয়ে বাড়িতে বেল্লালের চিকিৎসা করানোর জন্য বলেন। তারা এ নিয়ে থানায় অভিযোগ দিতে নিষেধ করেন। তারা বলেছেন, বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে সমস্যা হতে পারে। ক্ষতির আশঙ্কা আছে। এজন্য সালিশে যে সিদ্ধান্ত দেয়া হবে, তা যেন মেনে নেই। আমরা গরিব। গ্রামের প্রভাবশালী ব্যক্তিরা তাদের পক্ষে। সালিশের বিচার মেনে নেয়া ছাড়া আমাদের কোনো উপায় ছিল না। গ্রামে তাদের শত্রু হয়ে থাকা যাবে না। তাই বাধ্য হয়েই সালিশদারদের বিচার মাথা পেতে মেনে নিতে হয়েছে।’

ছালাম আরও বলেন, ‘বাড়িতে আমার ভাই যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে। তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন। চোখে-মুখে আতঙ্কের ছাপ। ভয়ে ক্ষণে ক্ষণে শিউরে উঠছে সে। তবে জসিম আকনের লোকজনের হুমকির কারণে হাসপাতালে নিতে সাহস পাচ্ছি না।’

তবে তাদের এক স্বজন নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানান, সালিশে জরিমানার ৪০ হাজার টাকা বেল্লালের পরিবারের কাছ থেকে আদায় করা হলেও ওই অর্থ তরুণীর পরিবার পায়নি। সালিশ বিচারে অংশ নেয়া মামুন চৌকিদারের দাবি, ‘মেয়ের অভিভাবকদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সালিশ বসিয়ে বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে। মেয়ের বাড়িতে আটক থাকা বেল্লালকে মুক্তির ব্যবস্থা করেছেন সালিশদাররা। এখানে কোনো জরিমানার টাকা আদায় করা হয়নি।’

অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।