যুদ্ধ থামাতে হবে, পুতিনকে বললেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট

সাময়িকী ডেস্ক
সাময়িকী ডেস্ক
4 মিনিটে পড়ুন
রুশ প্রেসিডেন্টের সঙ্গে হাত মেলাচ্ছেন রামাফোসা। ছবি এপি

যুদ্ধ থামাতে হবে, পুতিনকে বললেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট

রাশিয়ায় গিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা বলেছেন, ইউক্রেইনে যুদ্ধ থামাতেই হবে।

আফ্রিকার ৭ দেশের নেতাদের সমন্বয়ে গঠিত এক শান্তি মিশনের অংশ হিসেবে রামাফোসা ও অন্যরা শনিবার সেইন্ট পিটার্সবার্গে পুতিনের সঙ্গে দেখা করেন, সেখানেই দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট তার রুশ কাউন্টারপার্টকে এ কথা বলেন বলে জানিয়েছে বিবিসি

আগের দিনই আফ্রিকার এই নেতারা ইউক্রেইনে গিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে দেখা করেছিলেন।

জেলেনস্কি তাদের বলেছিলেন, ইউক্রেইনের ভূখণ্ডে যতক্ষণ রুশ সেনা থাকবে, ততক্ষণ তিনি রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনায় বসবেন না।

- বিজ্ঞাপন -

শনিবার পুতিন আফ্রিকান মিশনকে বলেছেন, কিইভ বরাবরই আলোচনাকে প্রত্যাখ্যান করেছে।

রুশ প্রেসিডেন্ট এদিন আফ্রিকান নেতাদেরকে গত বছরের মার্চে তুরস্কের মধ্যস্থতায় মস্কো-কিইভ আলোচনায় ইউক্রেইনের উদ্যোগে হওয়া খসড়া চুক্তির কপি এবং সেখানে ইউক্রেইনের মধ্যস্থতাকারী দলের প্রধানের স্বাক্ষরও দেখান বলে জানিয়েছে তাস।

আলোচনায় আগ্রহ জানাতেই রাশিয়া কিইভ ও এর আশপাশ থেকে সৈন্য সরিয়ে নিয়েছিল বলেও জানান তিনি।

যুদ্ধ থামাতে হবে, পুতিনকে বললেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট
আফ্রিকান প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠকে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ছবি এপি

সেইন্ট পিটার্সবার্গের ওই বৈঠকে রামাফোসা উভয় পক্ষের মধ্যে বন্দিবিনিময় চালু রাখার আহ্বান জানান এবং রাশিয়া ইউক্রেইন থেকে যে শিশুদের সরিয়ে নিয়েছে তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর অনুরোধ করেন।

এই সময় পুতিন তাকে থামিয়ে বলেন, রাশিয়া মূলত ওই শিশুদের সুরক্ষিত অবস্থায় রেখেছে।

- বিজ্ঞাপন -

“শিশুরা পবিত্র। আমরা তাদেরকে সংঘাতপূর্ণ অঞ্চল থেকে সরিয়ে নিয়েছে, তাদের জীবন ও স্বাস্থ্যের সুরক্ষা দিয়েছি,” বলেছেন তিনি।

রামাফোসা রুশ প্রেসিডেন্টকে ইউক্রেইনে যুদ্ধের প্রভাবে আফ্রিকার যে ক্ষতি হচ্ছে, সে কথা বিবেচনা করতে বলেন এবং কূটনীতির মাধ্যমে বিরোধ মীমাংসার আহ্বান জানান।

“যুদ্ধ অনন্তকাল চলতে পারে না। সব যুদ্ধের মীমাংসা এবং এক পর্যায়ে এসে শেষ হতে হয়। আমরা এখানে একটা স্পষ্ট বার্তা দিতে চাই, সেটি হল- এই যুদ্ধের অবশ্যই শেষ হতে হবে,” বলেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট।

- বিজ্ঞাপন -

দুই পক্ষের সংঘাতের ফলে ইউক্রেইন থেকে শস্য এবং রাশিয়া থেকে সার রপ্তানি ব্যাহত হচ্ছে; এর ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে আফ্রিকার দেশগুলো, বিশ্বব্যাপী খাদ্য নিরাপত্তাহীনতাও তীব্রতর হচ্ছে।

যুদ্ধ থামাতে হবে, পুতিনকে বললেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট
দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা। ছবি রয়টার্স

পুতিন খাদ্যশস্যের এ সংকটের জন্য ইউক্রেইনে যুদ্ধের চেয়েও পশ্চিমাদের দায়ই বেশি দেখছেন। তিনি বলেছেন, জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় হওয়া চুক্তির ফলে ইউক্রেইন কৃষ্ণসাগর দিয়ে যে পরিমাণ শস্য রপ্তানির সুযোগ পেয়েছে, তার মাত্র ৩ শতাংশ গেছে বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোতে। বেশিরভাগই গেছে ধনী ইউরোপীয় দেশে।

পুতিন ইউক্রেইনে তার ভাষায় ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ নিয়ে আফ্রিকার ‘ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থানের’ প্রশংসা করেছেন।

ইউক্রেইন ও রাশিয়ায় যাওয়া আফ্রিকান এই শান্তি মিশনে দক্ষিণ আফ্রিকা ছাড়াও মিশর, সেনেগাল, কঙ্গো-ব্রাজাভিল, কমোরোস, জাম্বিয়া ও উগান্ডার প্রতিনিধিরা ছিলেন।

আফ্রিকা মহাদেশের বেশিরভাগ দেশ ইউক্রেইনে চলমান সংঘাতকে রাশিয়া আর পশ্চিমাদের যুদ্ধ হিসেবেই দেখলেও কিছু দেশের দৃষ্টিভঙ্গিতে ভিন্নতাও আছে।

যুদ্ধ থামাতে হবে, পুতিনকে বললেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ছবি রয়টার্স

বিবিসি লিখেছে, যুদ্ধ শুরুর পর এখন পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকা ও উগান্ডাকে রাশিয়ার দিকেই হেলে থাকতে দেখা গেছে, অন্যদিকে জাম্বিয়া আর কমোরোসের পক্ষপাতিত্ব পশ্চিমাদের দিকে। মিশর, সেনেগাল আর কঙ্গো-ব্রাজাভিলকে মোটামুটি নিরপেক্ষই বলা চলে।

এমন এক সময়ে আফ্রিকার এই মিশন ইউক্রেইন ও রাশিয়া সফর করল, যখন বাখমুতের কাছে কিইভবাহিনীর পাল্টা আক্রমণ নিয়ে উত্তেজনা তুঙ্গে।

রাশিয়া বলছে, ইউক্রেইনের পাল্টা আক্রমণ ব্যর্থ হয়েছে; অন্যদিকে কিইভ বলছে, তাদের বাহিনী এক সপ্তাহে দক্ষিণে ১০০ বর্গকিলোমিটার জায়গা পুনর্দখলে সক্ষম হয়েছে।

গুগল নিউজে সাময়িকীকে অনুসরণ করুন 👉 গুগল নিউজ গুগল নিউজ

এই নিবন্ধটি শেয়ার করুন
একটি মন্তব্য করুন

প্রবেশ করুন

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?

আপনার অ্যাকাউন্টের ইমেইল বা ইউজারনেম লিখুন, আমরা আপনাকে পাসওয়ার্ড পুনরায় সেট করার জন্য একটি লিঙ্ক পাঠাব।

আপনার পাসওয়ার্ড পুনরায় সেট করার লিঙ্কটি অবৈধ বা মেয়াদোত্তীর্ণ বলে মনে হচ্ছে।

প্রবেশ করুন

Privacy Policy

Add to Collection

No Collections

Here you'll find all collections you've created before.

লেখা কপি করার অনুমতি নাই, লিংক শেয়ার করুন ইচ্ছে মতো!