13.1 C
Drøbak
শনিবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১
প্রথম পাতাসাম্প্রতিককুয়ো খুঁড়তে গিয়ে মিলল ৫০০ কিলোর নীলা, দাম প্রায় ৭৫ কোটি টাকা

কুয়ো খুঁড়তে গিয়ে মিলল ৫০০ কিলোর নীলা, দাম প্রায় ৭৫ কোটি টাকা

বাড়িতে জলের তেমন জোগান চাই। তাই লোকলস্কর নিয়ে চলছিল কুয়ো খোঁড়ার কাজ। কিছুটা খুঁড়তেই পাথরের মতো শক্ত বিশাল একটা চাঁইতে শাবলের বাড়ি পড়তেই আটকে গেল খোদাইয়ের কাজ।

খুব সন্তর্পনে চারপাশ থেকে আস্তে আস্তে মাটি সরিয়ে সেটা তুলতেই দেখা গেল একটা বিশালাকার পাথর। তার পর অতি কষ্টে সেটা উপরে তুলে জল দিয়ে ধুতেই বোঝা গেল, ওটা যে সে পাথর নয়।

বুঝতে পারলেন ওই বাড়ির মালিকই। কারণ তিনি নিজেই একজন রত্ন ব্যবসায়ী। তাই ওটা দেখেই তাঁর বুঝতে বাকি রইল না ওটা কত মূল্যবান। তিনি বুঝতে পারলেন, কুয়ো খুঁড়তে গিয়ে তিনি এমন একটা নীলা পেয়েছেন যা চমকে দেওয়ার পক্ষে যথেষ্ট।

শ্রীলঙ্কার রতনপুরের নামই রত্ন। কারণ খুঁড়লেই ওখানকার মাটির নীচে প্রায়ই রত্ন পাওয়া যায়। এই ঘটনাটি সেই রতনপুরেরই।

পরে মাপজোঁক করে দেখা যায়, ওই বিশালাকার নীলার ওজন প্রায় ৫১০ কিলো। আন্তর্জাতিক বাজারে যার দাম আনুমানিক প্রায় ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। মানে ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৭৫ কোটি টাকা।

এই নীলাটি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই প্রশাসনের কাছে খবর দেন বাড়ির মালিক। তিনি বলেন, এখনই এই পাথর ব্যবহারের উপযোগী না। ফলে বাজারে বিক্রিও করা যাবে না।

তার আগে এটা সঠিক পদ্ধতিতে পরিষ্কার করে দক্ষ কারিগরকে দিয়ে কাটিং করাতে হবে। তার পর সেটা যাচাই করে সার্টিফিকেট দেওয়া হবে। তবেই তা বাজারে বিক্রি করার জন্য উপযোগী হয়ে উঠবে।

আপাতত রত্ন বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এটিই বিশ্বের বৃহত্তম নীলা। এর নাম রাখা হয়েছে— Serendipity শাপ্পহিরে, ইতিমধ্যেই পৃথিবীর বিভিন্ন রত্ন সংক্রান্ত পত্র পত্রিকায় ফলাও করে এই খবর প্রকাশিত হয়েছে।

সিদ্ধার্থ সিংহ
সিদ্ধার্থ সিংহ
২০২০ সালে 'সাহিত্য সম্রাট' উপাধিতে সম্মানিত এবং ২০১২ সালে 'বঙ্গ শিরোমণি' সম্মানে ভূষিত সিদ্ধার্থ সিংহের জন্ম কলকাতায়। আনন্দবাজার পত্রিকার পশ্চিমবঙ্গ শিশু সাহিত্য সংসদ পুরস্কার, স্বর্ণকলম পুরস্কার, সময়ের শব্দ আন্তরিক কলম, শান্তিরত্ন পুরস্কার, কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত পুরস্কার, কাঞ্চন সাহিত্য পুরস্কার, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা লোক সাহিত্য পুরস্কার, প্রসাদ পুরস্কার, সামসুল হক পুরস্কার, সুচিত্রা ভট্টাচার্য স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার, অণু সাহিত্য পুরস্কার, কাস্তেকবি দিনেশ দাস স্মৃতি পুরস্কার, শিলালিপি সাহিত্য পুরস্কার, চেখ সাহিত্য পুরস্কার, মায়া সেন স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার ছাড়াও ছোট-বড় অজস্র পুরস্কার ও সম্মাননা। পেয়েছেন ১৪০৬ সালের 'শ্রেষ্ঠ কবি' এবং ১৪১৮ সালের 'শ্রেষ্ঠ গল্পকার'-এর শিরোপা সহ অসংখ্য পুরস্কার। এছাড়াও আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত তাঁর 'পঞ্চাশটি গল্প' গ্রন্থটির জন্য তাঁর নাম সম্প্রতি 'সৃজনী ভারত সাহিত্য পুরস্কার' প্রাপক হিসেবে ঘোষিত হয়েছে।
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।