9.3 C
Drøbak
সোমবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১
প্রথম পাতাসাম্প্রতিকনাটোরে অপরিকল্পিত ও নিয়ম বহির্ভূত বহুতল ভবন নির্মাণ!

নাটোরে অপরিকল্পিত ও নিয়ম বহির্ভূত বহুতল ভবন নির্মাণ!

নাটোরে পৌর নিয়মনীতি না মেনে অপরিকল্পিতভাবে নির্মাণ করা হচ্ছে বহুতল ভবন। উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন বিদুৎ লাইন ঘেসে গড়ে উঠছে বহুতল ভবন। এতে যে কোন সময় বড় ধরণের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। এছাড়া সংকীর্ণ রাস্তার দুধারে এমনভাবে ভবনগুলো নির্মাণ করা হচ্ছে যে প্রয়োজনে ফায়ার ব্রিগেডের গাড়ি সেখানে প্রবেশ করতে পারবে না। ফলে অগ্নিকান্ডসহ যে কোন রকম দূর্ঘটনায় জানমালসহ বড় ধরণের ক্ষতির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

ফায়ার ব্রিগেড কর্তৃপক্ষ বলছেন পৌর কর্তৃপক্ষ তাদের সাথে কোন আলোচনা না করে ভবন নির্মাণ করতে দেওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। অপরদিকে, পৌরকর্তৃপক্ষ বলছেন পরিকল্পনা মাফিক কাজ না করলেও তাদের কোন ম্যাজিষ্ট্রেসি ক্ষমতা না থাকায় তারা কিছু করতে পারছেন না।

জানা যায়, নিয়ম বহির্ভূত ভাবে নাটোর পৌর এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠছে একের পর এক বহুতল ভবন। ভবন নির্মাণের পৌর নিয়মনীতি না মেনে এসব ভবন তৈরী করা হচ্ছে। কোথাও কোথাও উচ্চ ভোল্টের বিদ্যুৎ লাইনের পাশ ঘেঁষে বা পৌরসভার রাস্তার ওপরে ভবনগুলো নির্মাণ করায় সেখানে ফায়ার ব্রিগেডের গাড়ি প্রবেশের কোন সুবিধা থাকছে না।

ফায়ার ব্রিগেড ও পৌর কর্তৃপক্ষের মধ্যে সমন্বয় না থাকায় এ অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। একটি বহুতল ভবন নির্মাণের অনুমতি দেওয়ার আগে পৌর কর্তৃপক্ষ যদি ফায়ার ব্রিগেড কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করতেন তাহলে এ সমস্যা দূর হতো বলে ফায়ার ব্রিগেড কর্তৃপক্ষের ধারণা। অপরদিকে, পৌর কর্তৃপক্ষ ভবন নির্মাণের নিয়মনীতি মেনেই প্ল্যান পাশ করে দিলেও কেউ সে নিয়ম মেনে ভবন নির্মাণ করছেন না।

স্থানীয় বাসিন্দা জাহির হোসেন, ফরহাদ মিয়া, মোস্তাফিজুর রহমান টুটুল, রফিকুল ইসলাম নান্টু জানান, পৌর এলাকার প্রায় সবখানেই একের পর এক বহুতল ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। কোন ভবনের মালিকই নিয়মের ধার ধারছে না। বিদুৎ লাইনের কাছাকাছি অনেক স্থাপনা হয়েছে। ফলে বড় ধরণের দূর্ঘটনা ঘটার সম্ভবনা রয়েছে। এছাড়া ভবন নির্মাণের সময় ফায়ার ব্রিগেডের গাড়ি প্রবেশের কোন সুবিধা না থাকায় অগ্নিকান্ড ঘটলে নিরবে দেখা ছাড়া কিছুই করার থাকবে না। ভবন নির্মাণে যে আইন আছে তার কঠোর ভাবে বাস্তবায়নের দাবি জানান তারা।

এ ব্যাপারে নাটোর ফায়ার স্টেশনের উপ-সহ:পরিচালক আসাদুজ্জামান জানান, কিভাবে এবং কেমন স্থানে বহুতল ভবন বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মণ করা হবে পৌর কর্তৃপক্ষ সে সম্পর্কে তাদের সাথে কোন আলোচনা করেন না। এ ব্যাপারে দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায়ও অনেকবার তারা উপস্থাপন করেছেন তারপরেও অপরিকল্পিতভাবে একের পর এক বহুতল ভবন নির্মাণ হয়ে চলেছে পৌরসভার ভিতরে।

নাটোর পৌরমেয়র উমা চৌধুরী জলি জানান, তারা যখন কোন ভবন নির্মাণের প্ল্যান পাশ করে দেন তখন সবকিছু দেখেই ভবন নির্মাণের অনুমতি দেওয়া হয়। কিন্তু ভবন মালিকরা সে নিয়ম মেনে কাজ করছেন না। তাদের কোন ম্যাজিষ্ট্রেসি ক্ষমতা না থাকায় তারা কোন ব্যবস্থাও নিতে পারছেন না। তবে এব্যাপারে প্রশাসন যদি কঠোর হয় তবে সমস্যা কেটে যাবে বলে জানান তিনি।

বিশ্বস্ত একটি সূত্র বলছেন পৌরসভার কিছু অসৎ কর্মকর্তা ও কর্মচারীর যোগসাজশে অর্থের বিনিময়ে অপরিকল্পিতভাবে ভবন নির্মাণের প্ল্যান পাস করে দেওয়া হচ্ছে। বহুতল ভবন নির্মাণে প্রশাসনিকভাবে দেখভাল করা উচিত বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।