16.9 C
Drøbak
শনিবার, জুলাই ২, ২০২২
প্রথম পাতাসাম্প্রতিকবাংলাদেশ অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে জানিয়ে: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশ অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে জানিয়ে: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশ অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ নিয়ে আর কোনো খেলা কেউ খেলতে পারবে না। শনিবার (২৬ মার্চ) সন্ধ্যায় রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর সমাপনী অনুষ্ঠানে (ভার্চ্যুয়াল) তিনি এ কথা বলেন।

গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ অনুষ্ঠানে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের অগ্রগতির চিত্র তুলে ধরে টানা তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশকে এখন আর কেউ… বাংলাদেশ নিয়ে আর কোনো খেলা কেউ খেলতে পারবে না। বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে আর কখনো কেউ ছিনিমিনি খেলতে পারবে না। বাংলাদেশ যে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে ইনশাল্লাহ তা এগিয়ে যাবে। ’

বঙ্গবন্ধুর সময় এবং পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালে এবং ২০০৯ সাল থেকে এখন পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সরকারের সময় ছাড়া বাকিটা সময় দেশ পিছিয়ে ছিল মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে উন্নয়নের যাত্রা যদি আপনারা হিসাব করেন, ৫০ বছরের মধ্যে কিন্তু ২৯ বছর উন্নয়ন হয় নাই। (এটা ছিল) পিছু টানা বা পিছনে যাওয়ার সময়। ’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা মাত্র সাড়ে তিন বছরের মধ্যে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তুলে জাতিসংঘ কর্তৃক স্বল্পোন্নত দেশের মর্যাদা অর্জন করে দিয়েছিলেন। তারপর আওয়ামী লীগ সরকার আসায় আজকে আমরা উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি। আমাদের দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু বৃদ্ধি পেয়েছি। স্বাক্ষরতার হার বৃদ্ধি পেয়েছে। ’

‘সব থেকে বড় কথা আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলেছি। আজকে শতভাগ বিদ্যুৎ দিতে আমরা সক্ষমতা অর্জন করেছি। সমগ্র বাংলাদেশের প্রতিটি ঘর আজকে আমরা আলোকিত করেছি। ’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ যে আলোর পথে যাত্রা শুরু করেছে, আমি ঘোষণা দিয়েছিলাম আজকে আমরা ঠিকই সেই আলোর পথে যাত্রা শুরু করে সমগ্র দেশের মানুষের প্রতিটি ঘরকে আলোকিত করার সক্ষমতা অর্জন করেছি। ’

উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘২০০৮ থেকে ২০২১ পর্যন্ত আমরা যে পরিকল্পনা দেই, সেটা বাস্তবায়ন করেছি। আমরা স্যাটেলাইট যুগে প্রবেশ করেছি। নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট আমরা করছি। অবকাঠামো উন্নয়ন আমরা করে যাচ্ছি। মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করছি। ১০০ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছি। ’

তিনি বলেন, ‘এই এগিয়ে যাওয়া, এই গতি আমাদের ধরে রাখতে হবে। তাই আগামী প্রজন্মের জন্য আমরা ২০৪১ সালের বাংলাদেশ কেমন বাংলাদেশ হবে, তার প্রেক্ষিত পরিকল্পনা আমরা প্রণয়ন করে দিয়ে গেছি এবং তা বাস্তবায়নের জন্য পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা করে তা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। ১০০ বছর অর্থাৎ ২১০০ সালে ডেল্টা প্ল্যান তৈরি করে দিয়েছি। তারও কিছু কাজ আমরা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। ’

‘বাংলাদেশকে যেন আর কখনো কেউ অবহেলা করতে না পারে। বাংলাদেশের মানুষ যেন বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে চলতে পারে। শিক্ষায়, দীক্ষায়, জ্ঞানে, প্রযুক্তি জ্ঞানে, বিজ্ঞানে সব দিক থেকে যেন আমরা এগিয়ে থাকতে পারি। ’

বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষের যে মৌলিক চাহিদা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা, শিক্ষা তার ব্যবস্থা আমরা করেছি। জাতির পিতা আমাদের যে সংবিধান দিয়েছিলেন, সেই সংবিধানে যে নির্দেশনা ছিল, সেটা অক্ষরে অক্ষরে মেনে তারই পদাঙ্ক অনুসরণ করে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। ’

অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।