10 C
Drøbak
সোমবার, অক্টোবর ২৫, ২০২১
প্রথম পাতাবিচিত্রারহস্যে ঘেরা আজব গ্রাম, যেখানে ১২ পেরোলেই মেয়েরা হয়ে যায় ছেলে!

রহস্যে ঘেরা আজব গ্রাম, যেখানে ১২ পেরোলেই মেয়েরা হয়ে যায় ছেলে!

এ এক আজব রোগ। জন্মাল মেয়ে হয়ে। কিন্তু শৈশবকাল পার হতে না হতেই সেই মেয়েই হয়ে গেল ছেলে।

হ্যাঁ, ডমিনিকান রিপাবলিকের দক্ষিণ-পশ্চিমে বারাভোনা প্রভিন্সের প্রত্যন্ত একটি গ্রামে এমনই ঘটনা ঘটে।

গ্রামের নাম সালিনাস। সেখানে কয়েকশো বছর ধরে মেয়ে শিশুদের ক্ষেত্রে এমন ঘটনা ঘটে আসছে। মেয়ে হয়ে জন্মালেও ঠিক ১২ বছর বয়স পেরোনোর পর পরই সেই মেয়েই শারীরিক ভাবে পালটে যায়। পরিণত হয় ছেলেতে।

কিন্তু কেন এমন হয়? এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এক ধরণের বিশেষ শারীরিক ত্রুটির কারণেই গ্রামের মেয়েদের সঙ্গে এমন ঘটনা ঘটে। গর্ভাবস্থায় থাকাকালীনই শিশুদের উপর এই প্রভাব পড়তে শুরু করে। ধারণা করা হয়, গর্ভাবস্থায় একটি বিশেষ এনজাইমের অভাবেই এই সমস্যার সৃষ্টি হয়।

কিছু দিন আগে এই সমস্যারই মুখোমুখি হয়েছে জামিস গ্রামের একটি মেয়ে। জীবনের প্রথম ১২টা বছর পার করার পরে সে হঠাৎ মেয়ে থেকে ছেলে হয়ে গেছে।

ছোটবেলার কথা বলতে গিয়ে জামিস বলেছে, ছোটবেলায় সে স্কার্ট পড়ে স্কুলে যেত। তার পর ১২ বছর পর থেকেই তার পুরুষাঙ্গ বাড়তে শুরু করে। তখন সে নিশ্চিত হয় যে, তার গ্রামের আরও অনেক মেয়ের ক্ষেত্রে যা ঘটেছে, তার ক্ষেত্রেও সেই একই জিনিস ঘটতে চলেছে। মানে সে ধীরে ধীরে একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষে পরিণত হচ্ছে।

এ সব হওয়ার পিছনে রয়েছে একটি ভয়ঙ্কর রোগ। এই রোগের ইতিহাস জানতে গেলে আমাদের ফিরে যেতে হবে ১৯৭০ সালে। ওই বছরই ডা. মাইকেল মোসলে প্রথম এই বিষয়টি লক্ষ্য করেন।

তাঁর মতে, সালিনাস গ্রামের মায়েদের গর্ভকালীন পুষ্টির অভাবের জন্যই এক বিশেষ ধরনের এনজাইম তাদের শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে ক্ষরণ হতে পারে না। আর তার জেরেই ডিহাইড্রো টেস্টোস্টেরন নামের একটি হরমোন মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। আর তার জেরেই গর্ভস্থ শিশুদের পুং জননাঙ্গ পরিস্ফুট হচ্ছে না।

ফলে যারা পুরুষ শিশু, তাদের পুরুষাঙ্গ জন্মের সময় ঠিক মতো গজায় না‌ দেখে তাদের মেয়েদের মতো লাগে। কিন্তু তারা আসলে পুরুষ শিশুই। এই শিশুগুলোর বয়স যখন ১২ বছর হয়, তখন তাদের শরীরে এনজাইম আবার সক্রিয় হয়ে ওঠে। ফলে সুপ্ত যৌনাঙ্গ পরিস্ফুট হতে শুরু করে।

এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য ওই গ্রামের বিবাহ উপযুক্ত ছেলেমেয়েরা এখন অবশ্য অন্য একটি পন্থা অবলম্বন করেছে।

তারা কেউই আর নিজের গ্রামের কাউকে বিয়ে করছে না। ছেলেরা বিয়ে করছে ওই গ্রামের বাইরের অন্য যে কোনও গ্রামের মেয়েকে। আর মেয়েরা বিয়ে করছে অন্য যে কোনও গ্রামের ছেলেকে।

এটা করার ফলে এই সমস্যার কিছুটা হলেও সুরাহা হয়েছে। মিশ্র রক্তের জন্য স্বাভাবিক যৌনাঙ্গ নিয়ে জন্মাতে শুরু করেছে শিশুরা। আশা করা যাচ্ছে, এই পদ্ধতি বজায় থাকলে আগামী দু-এক প্রজন্মের পর থেকেই এই গ্রামে অন্য আর পাঁচটা গ্রামের মতোই পুরোপুরি সুস্থ-স্বাভাবিক শিশুরই জন্ম হবে।

সিদ্ধার্থ সিংহ
সিদ্ধার্থ সিংহ
২০২০ সালে 'সাহিত্য সম্রাট' উপাধিতে সম্মানিত এবং ২০১২ সালে 'বঙ্গ শিরোমণি' সম্মানে ভূষিত সিদ্ধার্থ সিংহের জন্ম কলকাতায়। আনন্দবাজার পত্রিকার পশ্চিমবঙ্গ শিশু সাহিত্য সংসদ পুরস্কার, স্বর্ণকলম পুরস্কার, সময়ের শব্দ আন্তরিক কলম, শান্তিরত্ন পুরস্কার, কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত পুরস্কার, কাঞ্চন সাহিত্য পুরস্কার, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা লোক সাহিত্য পুরস্কার, প্রসাদ পুরস্কার, সামসুল হক পুরস্কার, সুচিত্রা ভট্টাচার্য স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার, অণু সাহিত্য পুরস্কার, কাস্তেকবি দিনেশ দাস স্মৃতি পুরস্কার, শিলালিপি সাহিত্য পুরস্কার, চেখ সাহিত্য পুরস্কার, মায়া সেন স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার ছাড়াও ছোট-বড় অজস্র পুরস্কার ও সম্মাননা। পেয়েছেন ১৪০৬ সালের 'শ্রেষ্ঠ কবি' এবং ১৪১৮ সালের 'শ্রেষ্ঠ গল্পকার'-এর শিরোপা সহ অসংখ্য পুরস্কার। এছাড়াও আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত তাঁর 'পঞ্চাশটি গল্প' গ্রন্থটির জন্য তাঁর নাম সম্প্রতি 'সৃজনী ভারত সাহিত্য পুরস্কার' প্রাপক হিসেবে ঘোষিত হয়েছে।
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।