মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৯, ২০২২

শিক্ষার আলোকবর্তিকা মহাত্মা অশ্বিনীকুমার দত্ত

প্রকাশিত:

”আমি মহাত্মা নই, মহাত্মা দেখতে হলে তোরা বরিশালে যা, ওখানে অশ্বিনী দত্ত’কে দেখ। সেই মহাত্মা।” -মহাত্মা গান্ধী

মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত ছিলেন ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম বিপ্লবী। পিতা ব্রজমোহন দত্ত ছিলেন একজন সাব-জজ। মা প্রসন্নময়ী ছিলেন বানরীপাড়ার রাধাকিশোর গুহের মেয়ে। বাবার মতো মাও ছিলেন মানবতাবাদী ও দেশপ্রেমিক। ব্রজমোহন দত্ত ও প্রসন্নময়ীর সংসারে ৪ ছেলে ও ২ মেয়ে। অশ্বিনীকুমার দত্ত ছিলেন ভাইদের মধ্যে সবথেকে বড়। জন্ম ১৮৫৬ সালের ২৫ জানুয়ারি। তৎকালীন বরিশাল জেলার পটুয়াখালী মহকুমা শহরে। বরিশাল জেলার গৌরনদী উপজেলার বাটাজোর গ্রামে বাড়ি। দক্ষিণাঞ্চলে শিক্ষার আলোকবর্তিকা অশ্বিনীকুমার দত্ত। তাঁর ছোঁয়ায় ব্রজমোহন বিদ্যালয়, ব্রজমোহন কলেজ প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বরিশাল তথা বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে পরিচিত করেছেন।

আজীবন সংগ্রামী এই মানুষটি ১৮৮৪-১৯২৩ সাল পর্যন্ত শুধু বিএম কলেজের শিক্ষার্থীদেরই মানুষ করেননি বরং সমাজের অনেক অশিক্ষিত, অবহেলিত ও বঞ্চিত মানুষকে সত্যিকারের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলেছেন। বাউণ্ডুলে স্বভাবের বখাটে মুকুন্দদাসকে তিনিই দিনের পর দিন বাড়িতে ডেকে এনে আদর, স্নেহ ও ভালবাসা দিয়ে এক নতুন মানুষ হিসেবে গড়ে তুলেছেন। তাঁরই ছোঁয়ায় মুকুন্দদাস এ চারণ কবি মুকুন্দদাস হতে পেরেছিলেন।

সেসময় বরিশালের সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অবস্থা নানাদিক দিয়ে অনেক পিছিয়ে ছিল। রাজা রামমোহন রায়ের নেতৃত্বে কলকাতাকে কেন্দ্র করে যে রেনেসাঁ বা নবজাগরণ শুরু হয় তা থেকে বরিশাল ছিল সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন। গুটিকয়েক জমিদার ও সরকারি কর্মচারীর পরিবার ছাড়া বরিশালের প্রায় গোটা সমাজ পাশ্চাত্য শিক্ষা থেকে ছিল সম্পূর্ণ মুখ ফিরিয়ে।১৮৮২ সালে অশ্বিনীকুমার ব্রাহ্মসমাজের সভ্য হন।

এ সময় তিনি বরিশালের ছাত্রসমাজের উন্নতির জন্য নিরলসভাবে নানাবিদ কাজ করতে শুরু করেন। বরিশালের যুবসমাজ অশ্বিনী কুমারের জীবনাদর্শ “সত্য প্রেম পবিত্রতা”র মন্ত্র গ্রহণ করে। ব্রাহ্মসমাজ ও অশ্বিনী কুমারের উদ্যোগে সেবক দল গঠন করা হয়। এই সেবক দল ছাত্রসমাজের শিক্ষাবিস্তারে ব্যাপক ভূমিকা রাখে। এতে করে বরিশালের গণমানুষের মধ্যে জাতীয়তাবাদী দেশপ্রেমের এক নবজাগরণ ঘটে। ফলে ধীরে ধীরে মানুষের চেতনা থেকে মধ্যযুগীয় চিন্তা ও বিশ্বাসের পরিবর্তন ঘটে।

১৮৮৪ সালে বরিশালে হাজারে মাত্র ৭ জন শিক্ষিত ছিল। তখন সমগ্র জেলায় ১৫ জনের মতো গ্রাজুয়েট ছিল। সমাজ জীবনে বিশেষত: অভিজাত সম্প্রদায়ের জীবনযাত্রার মধ্যে দুর্নীতি, ব্যাভিচার, অজ্ঞানতা, কুসংস্কার ও অনৈতিকতা জেঁকে বসেছিল। অশ্বিনীকুমার দত্ত বরিশালের এই দুর্দশা দেখে মর্মাহত হন এবং এসব প্রতিরোধে সর্বাত্মক চেষ্টা করেন।

অশ্বিনীকুমার সামগ্রিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছুলেন যে সৎ শিক্ষার প্রসার অত্যন্ত জরুরী এবং সেই উদ্দেশ্য নিয়ে তিনি ১৮৮৪ সালে পিতার নামে ব্রজমোহন বিদ্যালয় এবং তার পাঁচ বছর পরে ১৮৮৯ সালে ব্রজমোহন কলেজ স্থাপন করলেন। এই কলেজও সারা বাংলায় খ্যাতি অর্জন করেছিল। এই সময়েই তিনি উপলব্ধি করলেন মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে ওকালতি করা যায় না এবং ওকালতি ছেড়ে তিনি শিক্ষা প্রসারে আত্মনিয়োগ করলেন। তিনি নিজের গ্রাম বাটাজোড় এও একটি উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয় স্থাপন করলেন।

গণসচেতনতা সৃষ্টির তাগিদে এ সময় অশ্বিনীকুমার দত্ত সংবাদপত্রের অভাব বিশেষভাবে অনুভব করেন। তাঁর চেষ্টার কারণে বিকাশ, স্বদেশী, বরিশাল, বরিশাল হিতৈষী প্রভৃতি পত্রিকা প্রকাশিত হয়। বরিশাল হিতৈষী ও স্বদেশী পত্রিকা অসহযোগ আন্দোলনে এক অনন্য ভূমিকা পালন করে। এই পত্রিকাগুলো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড ও শিক্ষাবিস্তারে ব্যাপক ভূমিকা রাখে।
অশ্বিনীকুমারের আন্তরিকতাপূর্ণ কথাবার্তা, উদ্দীপনাময়ী বক্তৃতা ও সমাজ-সংস্কারমূলক কাজের মাধ্যমে অল্পদিনের মধ্যে তিনি সবার প্রিয় ব্যক্তিত্বে পরিণত হন । ক্রমে ক্রমে তাঁর প্রচেষ্টা সফল হতে থাকে। তিনি নানাবিধ দুর্নীতি, অসামাজিক কার্যকলাপ, গোঁড়ামি ও কুসংস্কারের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য রাস্তায় দাঁড়িয়ে বক্তৃতা ও সংগীতের পাশাপাশি জনসাধারণের প্রতিনিধি সভা সংগঠিত করেন।

অশ্বিনীকুমারের একান্ত চেষ্টায় স্থানীয় স্বায়ত্তশাসনের প্রতিষ্ঠানিক ভিত্তি স্থাপিত হয়। জনপ্রিয়তার কারণে তিনি বরিশাল পৌরসভা ও লোকাল বোর্ডের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এসময় তিনি এ কে ফজলুল হককে পৌরসভা ও জেলা বোর্ডের সদস্য নির্বাচিত করেন। মূলত অশ্বিনীকুমারের হাতেই শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হকের রাজনৈতিক জীবনের হাতেখড়ি হয়।

বরিশালের সমাজজীবনে তিনি প্রথম রাজনৈতিক চেতনা সৃষ্টি করেন। গঠন করেন বরিশাল জনসাধারণ সভা। এই রাজনৈতিক সংগঠনটিকে তিনিই ধীরে ধীরে শক্তিশালী রূপে গড়ে তোলেন। জাতীয় কংগ্রেসের আগে এই রাজনৈতিক সংগঠনের জন্ম হয়। ১৮৮৬ সাল থেকে বরিশাল জনসাধারণ সভা কংগ্রেসের সম্মেলনে প্রতিনিধিত্ব করে।

১৯০৫ সালে বঙ্গ বিভাগের কারণে স্বদেশী ও বয়কট আন্দোলন গড়ে ওঠে। বয়কট আন্দোলন এক সময় স্বরাজলাভের আন্দোলনে রূপ নেয়। এসময় বাংলা বিভক্তির প্রতিবাদে অশ্বিনী কুমারের নেতৃত্বে বরিশালে তীব্র আন্দোলন শুরু হয়। বরিশালে বঙ্গভঙ্গ আন্দোলন যতটা তীব্র আকার ধারণ করেছিল বাংলার আর কোথাও তার নজির নেই। তিনি ছিলেন বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের অগ্রনায়ক।
এ আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়ে তিনি বাঙালি জাতীয়তাবাদের উন্মেষ ঘটান। বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের সময় অশ্বিনীকুমার যখন বরিশাল বা অন্যত্র বক্তৃতা দিতেন, তখন সেই বক্তৃতার আগে জাতীয় সংগীত গাওয়া হত। জাতীয় সংগীতের পরে দেশাত্মবোধক গান গাওয়া হত। কিন্তু সেসময় তেমন দেশাত্মবোধক গান ছিল না। তাই এসময় তিনি বেশকিছু দেশাত্ববোধক গান রচনা করেন।

১৯০৫-০৮ সাল পর্যন্ত বরিশালে অশ্বিনীকুমারের নেতৃত্বে যে বঙ্গভঙ্গ আন্দোলন গড়ে উঠে তা বাংলার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। এমন কি বাংলার বাইরেও অনেক প্রদেশে এই আন্দোলনের প্রভাব পড়ে। অন্যান্য প্রদেশের নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন জনসভায় অশ্বিনীকুমার ও বরিশালের বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের উদাহরণ দিতেন।

অশ্বিনীকুমারের নেতৃত্বে স্বদেশবান্ধব সমিতি শহরে ও গ্রামে স্বেচ্ছাসেবকের কাজ করত। এই সমিতির কার্যক্রম বন্ধ করার জন্য সরকার অশ্বিনীকুমারসহ ৯ জন নেতাকে তিনটি ভিন্ন ভিন্ন আইনে গ্রেফতার করে নির্বাসনে পাঠিয়ে দেয়। এ সময় অশ্বিনীকুমারকে রাখা হয় লক্ষ্ণৌ জেলে।

১৯১০ সালে তিনি মুক্তিলাভ করেন। মুক্তির পর তিনি জেলা স্বদেশবান্ধব সমিতির সভাপতির পদ গ্রহণ করেন। সমিতির পক্ষ থেকে প্রচারক পাঠিয়ে তিনি গ্রামে গ্রামে নিম্ন বিদ্যালয় স্থাপন, সংক্রামক রোগে আক্রান্ত গ্রামে প্রয়োজনীয় ওষুধ ও পথ্য সরবরাহের ব্যবস্থা করেন। ১৯২১ সালে বরিশালে স্টিমার ধর্মঘটের সময় তিনি অসুস্থ ছিলেন এবং এ অবস্থায় তিনি স্বেচ্ছাসেবকদের যাবতীয় কাজ দেখভাল করেন।

পাকিস্তান শাসন আমলে ষাটের দশকে প্রতিক্রিয়াশীল মহল অশ্বিনীকুমারের অবদান অস্বীকার করে বরিশাল শহরের অশ্বিনীকুমার টাউন হলের নাম পরিবর্তন করে আয়ুব খাঁ টাউন হল রাখার চেষ্টা করে। কিন্তু জাতীয়তাবাদী দেশপ্রেমিক তরুণ সমাজ ১৯৬৯ এর গণ আন্দোলনের সময়ে এই প্রচেষ্টাকে প্রত্যাখ্যান করে টাউন হলের নাম অশ্বিনীকুমার টাউন হল হিসেবে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করে।

আজ ৭ নভেম্বর। ১৯২৩ সালের এই দিনে কলকাতায় মৃত্যুবরণ করেন বরিশালের মুকুটহীন সম্রাট আধুনিক বরিশালের রূপকার, বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা ও শিক্ষানুরাগী মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত।

ভুল সময়ে; ভুল মাটিতে জন্ম নিয়েছিলে তুমি। তোমারই দান করা সম্পদের উপর গড়ে ওঠা প্রতিষ্ঠানে আজও তোমার একটা ম্যুরাল স্থাপন করা যায় না- যার জন্য যুদ্ধ করতে হয় আমাদের। সত্য-প্রেম-পবিত্রতার যে অগ্নিমন্ত্রে তুমি জাগ্রত করতে চেয়েছিলে আমাদেরকে- অযোগ্য আমরা তোমাকে ধারণ করতে পারিনি। ক্ষমা করো আমাদের। শ্রদ্ধা ও প্রণাম তোমায়।

প্লাবনী ইয়াসমিন
প্লাবনী ইয়াসমিন
লেখক এবং সমাজসেবক। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, বরিশাল জেলা শাখা কার্য্যকরী কমিটির সদস্য।

সর্বাধিক পঠিত

আরো পড়ুন
সম্পর্কিত

বিশ্ব ছাত্র দিবস পালন ও বিজ্ঞানী আব্দুল কালামের জন্ম দিবস স্মরণ

ভারতবর্ষকে সামরিক শক্তিতে বলিয়ান করতে বিজ্ঞান শিক্ষাকে আরো বেশি...

বিপ্লবী প্রীতিলতার আত্মাহুতি দিবস

ব্রিটিশবিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের মহানায়ক মাস্টারদা সূর্যসেনের অন্যতম সহযোগী প্রথম...

সাহিত্যিক সজনীকান্ত ও তাঁর গুরুমশায়

প্রখ্যাত সাহিত্যিক, কবি, সমালোচক সজনীকান্ত দাসের জন্মদিন আজ (২৫শে...

গৌরীপ্রসন্ন মজুমদারবাংলা গানের প্রবাদপ্রতিম গীতিকার

আমি তখন খুবই ছোট। ক্লাস ইলেভেনে পড়ি। দেশ, আনন্দবাজার...
লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।