শনিবার, নভেম্বর ২৬, ২০২২

সর্বকালের সেরা ভারতীয় চলচ্চিত্রের স্বীকৃতি পেলো সত্যজিৎ রায়ের ‘পথের পাঁচালী’

প্রকাশিত:

পঞ্চাশের দশকের মাঝামাঝি সময়ে নন্দিত নির্মাতা সত্যজিৎ রায়ের পরিচালিত “পথের পাঁচালী” সিনেমাটি গোটা চলচ্চিত্রশিল্পে নতুন ধারা সৃষ্টি করে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সিনেমাটির আবেদন যেন আরও বেড়েছে।

সেই ধারাবাহিকতায় ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব ফিল্ম ক্রিটিকসের (এফআইপিআরইএসসি) ইন্ডিয়া চ্যাপ্টারের পরিচালিত একটি জরিপে ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে সেরা ১০ সিনেমা নির্বাচন করা হয়েছে। জরিপে সবার ওপরে রয়েছে “পথের পাঁচালী”।

শুক্রবার (২১ অক্টোবর) এক প্রতিবেদনে এ কথা জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

১৯৫৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত “পথের পাঁচালী” সিনেমা দিয়েই পরিচালক হিসেবে অভিষেক হয় সত্যজিৎ রায়ের। কথাশিল্পী বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের “পথের পাঁচালী” উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত এই সিনেমাই ছিল অপু ট্রিলজির প্রথম কিস্তি। ট্রিলজির পরের দুই কিস্তি ছিল “অপরাজিতা” এবং “অপুর সংসার”।

কালজয়ী এই সিনেমাটি ভিত্তোরিও ডি সিকা, মাইকেলেঞ্জেলো আন্তোনিওনি এবং রবার্তো রোসেলিনির মতো চলচ্চিত্র নির্মাতাদের শুরু করা ইতালীয় নিওরিয়ালিজম আন্দোলন থেকে অনুপ্রাণিত ছিল। ক্রিস্টোফার নোলান, মার্টিন স্কোরসেস এবং ওয়েস অ্যান্ডারসনের মতো ব্যক্তিরাও এই ছবির প্রশংসা করেছেন।

এফআইপিআরইএসসির ৩০ জন ভারতীয় সদস্যের মাধ্যমে গোপনে জরিপটি পরিচালিত হয়। জরিপের শীর্ষ ১০ সিনেমার মধ্যে পাঁচটি হিন্দি এবং তিনটি বাংলা চলচ্চিত্র রয়েছে। তাছাড়া, মালায়ালাম এবং কন্নড় ভাষারও একটি করে ছবি রয়েছে। তবে কোনো তামিল সিনেমা এই তালিকায় জায়গা পায়নি।

জরিপে ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে সেরা ১০ সিনেমার দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল ১৯৬০ সালে মুক্তি পাওয়া ঋত্বিক ঘটকের ড্রামা ঘরানার “মেঘে ঢাকা তারা”। তিনে ছিল মৃণাল সেনের ১৯৬৯ সালের আরেক ড্রামা ঘরানার সিনেমা “ভুবন শোম”।

তালিকার পরের তিনটি অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে অদুর গোপালকৃষ্ণানের ১৯৮১ সালের মালায়ালাম চলচ্চিত্র “এলিপ্পাথায়ম”, গিরিশ কাসারভাল্লির ১৯৭৭ সালের চলচ্চিত্র “ঘাতশ্রাদ্ধ” এবং ১৯৭৩ সালে মুক্তি পাওয়া এমএস সাথ্যুর “গরম হাওয়া”।

জরিপের সেরা ১০ সিনেমার তালিকায় সত্যজিৎ রায়ের আরও একটি সিনেমা জায়গা পেয়েছে। তার নির্মিত ১৯৬৪ সালে মুক্তি পাওয়া চলচ্চিত্র “চারুলতা” রয়েছে তালিকার সপ্তম অবস্থানে।

এছাড়া, তালিকার ৮ম, ৯ম এবং ১০ম স্থানে রয়েছে শ্যাম বেনেগালের ১৯৭৪ সালের ছবি “অঙ্কুর”, গুরু দত্তের ১৯৫৪ সালের ছবি “পিয়াসা” এবং ১৯৭৫ সালে মুক্তি পাওয়া রমেশ সিপ্পি পরিচালিত হিন্দি ব্লকবাস্টার “শোলে”।

১৯৩০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব ফিল্ম ক্রিটিকস (এফআইপিআরইএসসি)। ভিয়েনা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব, টরন্টো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব, কান চলচ্চিত্র উৎসব, ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসব, ওয়ারশ চলচ্চিত্র উৎসব এবং কেরালা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের মতো আয়োজনে তারা পুরস্কার দিয়ে থাকে।

সর্বাধিক পঠিত

আরো পড়ুন
সম্পর্কিত

ভারতের ছত্তিশগড়ে ৪ মাওবাদী নিহত

ভারতের ছত্তিশগড় রাজ্যে নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যদের গুলিতে ৪ মাওবাদী আন্দোলনের...

ভারতে জাতীয় সংবিধান দিবস পালনের তাৎপর্য

কোন একটি দেশ তার শাসন ব্যবস্থা রাজনীতি অর্থনৈতিক নীতি...

ভারতের আসাম-মেঘালয় সীমান্তে গোলাগুলি, নিহত ৬

ভারতের আসাম-মেঘালয় সীমান্তে গোলাগুলিতে অন্তত ৬ ব্যক্তি নিহত হয়েছে।...

ভারতে বিহারে ধর্মীয় শোভাযাত্রায় ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ১২

ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য বিহারে দ্রুতগামী ট্রাকের ধাক্কায় কমপক্ষে ১২...
লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।