14 C
Drøbak
বুধবার, আগস্ট ৪, ২০২১
প্রথম পাতাবিচিত্রাহিটলারের চিকিৎসা

হিটলারের চিকিৎসা

অ্যাডলফ হিটলার জন্মেছিলেন ১৮৮৯ সালের ২০ এপ্রিল। হাঙ্গেরির অস্ট্রিয়াতে। ছোটবেলা থেকেই তাঁর‌ ছিল গুরুতর অনিদ্রা রোগ। রাতে তাঁর একদম ঘুম হত না। তাই রাত আটটা নাগাদ নৈশভোজ সেরে তিনি কাজে বসতেন। গুরুতর রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করতেন দলের শীর্ষস্থানীয় কর্তাদের সঙ্গে। দেখতে দেখতে ভোর হয়ে আসত। সর্বময় কর্তা সারা রাত জেগে কাজ করবেন আর অন্যরা ঘুমোবেন? তা কি কখনও হয়? তাই মাঝে মাঝেই রাতদুপুরে তাঁদের ডাক পড়ত। আর দিনের পর দিন মাঝরাতে সর্বময় কর্তার আচমকা ডাকের ভয়ে তাঁরা সব সময় তটস্থ থাকতেন। মুখে কিছু বলতে না পারলেও মনে মনে তাঁরা খুব অসন্তুষ্ট ছিলেন। বিরক্ত হতেন। কেবল রাতটুকু নিজের মতো করে পাবার জন্য তাঁরা হিটলারের নিদ্রা কামনা করতেন। হিটলারও চাইতেন ঘুমোতে। দেশ-বিদেশ থেকে আনা হত নানা রকমের ওষুধ। কিন্তু কিছুতেই তাঁর চোখে ঘুম আসত না। ফলে তাঁর এই অনিদ্রা রোগ সারানোর জন্য নেওয়া হয়েছিল অন্য পথ। সেগুলো যেমন বিচিত্র, তেমনই মজার।

Screenshot 20210622 085157 2 হিটলারের চিকিৎসা
হিটলারের চিকিৎসা 3

হিটলারের পায়ের দিকে টাঙানো হত সিনেমা দেখার একটা বড় পর্দা। তিনি বিছানায় শোয়ার সঙ্গে সঙ্গেই পর্দায় ফুটে উঠত ঝরনার রঙিন দৃশ্য। পাহাড়ের হাজার হাজার ফুট উপর থেকে নাচতে নাচতে নেমে আসা ঝরনা। মনটা একেবারে চিন্তা-মুক্ত করে সেই অপরূপ দৃশ্যের দিকে তন্ময় হয়ে তাকিয়ে থাকতেন হিটলার। তাকিয়ে থাকতে থাকতে তিনি হয়তো এক সময় ঘুমের ঘোরে আচ্ছন্ন হবেন। নিদ্রা যাবেন। এমনটিই ভাবা হত। কিন্তু ঘুম তো দূরের কথা, তন্দ্রাও আসত‌ না তাঁর।

এর থেকেও বিচিত্র পদ্ধতি প্রয়োগ করা হয়েছিল তাঁর উপরে। হিটলার আপত্তি করেননি। মাথাটা মাটিতে রেখে পা দুটো আকাশের দিকে তুলে দিয়ে স্থির হয়ে থাকতেন মিনিটখানেক। তার পর আবার সোজা হয়ে দাঁড়াতেন। শরীরের সমস্ত রক্ত একবার নেমে আসত মাথায়, তার পর আবার তা ফিরে যেত শিরা-উপশিরায়। বলা হয়েছিল, এই ব্যায়ামের ফলে নাকি তাঁর ঘুম আসবেই। কিন্তু আশ্চর্য! অন্যদের ওপরে বারবার পরীক্ষা করে মিলিয়ে নেওয়া এই অভ্রান্ত ব্যায়ামেও তাঁর দু’চোখের পাতা এক হত না।

Screenshot 20210622 085206 2 হিটলারের চিকিৎসা
হিটলারের চিকিৎসা 4

শুধু অনিদ্রাই নয়, আরও অনেক রোগ ছিল হিটলারের। গলায় হয়েছিল মারাত্মক ক্যানসার। দাঁতের যন্ত্রণা লেগেই থাকত। এ ছাড়াও অন্যান্য রোগও তাঁকে ব্যতিব্যস্ত করে রাখত সর্বক্ষণ। তাই দেশ-বিদেশ থেকে ডজনখানেক খ্যাতিমান চিকিৎসককে ধরে এনে বেরস্টেগ্যাডেনে তৈরি করা হয়েছিল হিটলারের জন্য একটি স্বতন্ত্র চিকিৎসক-কমিটি।

হিটলারকে কর্মঠ রাখতে উত্তেজক ইনজেকশন দিতে হত দিনে প্রায় চার-পাঁচ বার। আর প্রতিবারই হিটলারের শরীরে ফোটানোর আগে সেই সুচ গাঁথতে হত চিকিৎসকদের নিজের শরীরে। এটাই ছিল চিকিৎসকদের প্রতি হিটলারের নির্দেশে।‌

১৯৪৫ সালের ৩০ এপ্রিলে তিনি যখন জার্মানির বার্লিনে তুমুল যুদ্ধ চলাকালীন ফিউরার বাংকারে সস্ত্রীক আত্মহত্যা করেন। তার ঠিক আগের দিন ২৯ এপ্রিল তিনি বিয়ে করেছিলেন তৎকালীন বিখ্যাত অভিনেত্রী ইভা ব্রাউনকে।

এই হিটলার শুধু একজন রাজনীতিবিদ বা রাষ্ট্রপ্রধানই ছিলেন না, ছিলেন অত্যন্ত দক্ষ একজন চিত্রশিল্পী এবং অবশ্যই একজন নামকরা লেখক।

সিদ্ধার্থ সিংহ
সিদ্ধার্থ সিংহ
২০২০ সালে 'সাহিত্য সম্রাট' উপাধিতে সম্মানিত এবং ২০১২ সালে 'বঙ্গ শিরোমণি' সম্মানে ভূষিত সিদ্ধার্থ সিংহের জন্ম কলকাতায়। আনন্দবাজার পত্রিকার পশ্চিমবঙ্গ শিশু সাহিত্য সংসদ পুরস্কার, স্বর্ণকলম পুরস্কার, সময়ের শব্দ আন্তরিক কলম, শান্তিরত্ন পুরস্কার, কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত পুরস্কার, কাঞ্চন সাহিত্য পুরস্কার, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা লোক সাহিত্য পুরস্কার, প্রসাদ পুরস্কার, সামসুল হক পুরস্কার, সুচিত্রা ভট্টাচার্য স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার, অণু সাহিত্য পুরস্কার, কাস্তেকবি দিনেশ দাস স্মৃতি পুরস্কার, শিলালিপি সাহিত্য পুরস্কার, চেখ সাহিত্য পুরস্কার, মায়া সেন স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার ছাড়াও ছোট-বড় অজস্র পুরস্কার ও সম্মাননা। পেয়েছেন ১৪০৬ সালের 'শ্রেষ্ঠ কবি' এবং ১৪১৮ সালের 'শ্রেষ্ঠ গল্পকার'-এর শিরোপা সহ অসংখ্য পুরস্কার। এছাড়াও আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত তাঁর 'পঞ্চাশটি গল্প' গ্রন্থটির জন্য তাঁর নাম সম্প্রতি 'সৃজনী ভারত সাহিত্য পুরস্কার' প্রাপক হিসেবে ঘোষিত হয়েছে।
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।