1.1 C
Drøbak
সোমবার, অক্টোবর ১৮, ২০২১
প্রথম পাতাসাম্প্রতিকবরিশাল১৫ আগস্টের নির্মমতার সাক্ষী, আহত সাহান আরা বেগম এর সর্বশেষ সাক্ষাৎকারে নারকীয়...

১৫ আগস্টের নির্মমতার সাক্ষী, আহত সাহান আরা বেগম এর সর্বশেষ সাক্ষাৎকারে নারকীয় ঘটনার বর্ণনা

-সুশান্ত ঘোষ ও ওয়াসিম বিন হাবিব

তখন রাত দশটার দিকে।

বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি ও মন্ত্রী আবদুর রব সেরনিয়াবাতের পরিবার সবেমাত্র ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগস্ট তাদের মিন্টো রোডের বাসায় রাতের খাবার খেয়েছিল।

রাতের খাবার শেষে সেরনিয়াবাত তার কক্ষে পুত্র, পুত্রবধূ এবং ভাগ্নে – আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, সাহান আরা বেগম এবং শহীদ সেরনিয়াবাত – এর সাথে তার দেশ এবং তার সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করছিলেন।

“আমার এখনও মনে আছে আমার শ্বশুর তার ছেলেদের বলছিলেন যে কীভাবে দেশ উন্নতি করতে পারে। তিনি আমাদের মতো দরিদ্র দেশের জন্য সমবায় প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়েছিলেন। তবে কে জানতেন যে আমাদের সাথে তাঁর এটাই শেষ রাত হবে?” সাহান আরা আসন্ন রক্তপাতের কথা তিনি এভাবেই বর্ণনা করছিলেন।

সকাল সাড়ে বারোটার পরে সাহান আরা বিছানায় আসলেন। তিনি এবং তাঁর দুই পুত্র এক ঘরে ছিলেন এবং অন্য মেয়ে তাঁর কক্ষে। তিনি অবশ্য বাবা এবং ছেলেরা কথোপকথন শেষ করে কখন ঘুমাতে গিয়েছিলেন তা ঠিক জানতেন না।

হঠাৎ করেই তিনি জেগে ওঠেন বৃষ্টিরমতো বন্দুকের গুলীর শব্দে, তারা সবাই অবাক হয়ে যায়। গুলির প্রচণ্ড শব্দে রাতের নীরবতা ভেঙে যায়। সমস্ত দিক থেকে গুলি শিলাবৃষ্টির আসতে শুরু করে।

তিনি এবং তার ছেলেরা তার শ্বশুরের ঘরে ছুটে গেলেন, যেখানে ইতিমধ্যে পরিবারের অন্য সদস্যরা জড়ো হয়েছিল; সমস্ত ঘটনায় তারা বিস্মিত।

তার শাশুড়ি তার স্বামীকে বলেন,তার ভাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ফোন করতে এবং তাকে বলতে যে ডাকাতরা তাদের বাড়িতে হামলা করেছে। তবে টেলিফোনের ওপাশ থেকে কী কথা এসছে তা পরিষ্কার ছিল না।

সাহান আরা তখন আরেকটি টেলিফোন নিয়ে বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে শেখ ফজলুল হক মনির নাম্বারটি ডায়াল করেন। মনি ফোন তুলে নিলেন।

‘কিছু লোক আমাদের বাড়িতে আক্রমণ করেছে, দয়া করে কিছু করুন’, আমি মনি ভাইকে বলেছিলাম। তিনি আমাকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন যে তারা ইউনিফর্মে আছে কি না। আমি তাকে বলেছিলাম যে বুলেট বৃষ্টি হচ্ছে বলে দেখার কোনও উপায় নেই,’ সাহান আরা বলেছিলেন।

অধৈর্য হয়ে তার শাশুড়ি আবারও তার স্বামীকে, বঙ্গবন্ধুকে আবার ডাকার জন্য জোর দিয়েছিলেন।

সেরনিয়াবাত তার স্ত্রীকে বলেছিলেন, ‘মনে হচ্ছে তোমার ভাইকেও রেহাই দেওয়া হয়নি।’

কয়েক মুহুর্ত পরে, তারা, কাঠের সিঁড়ি বেয়ে ওঠার শব্দ শুনতে পেল।

আবুল হাসনাত অবশ্য ঘরের ভিতরে ছিলেন না।

শাহান আরা বলেছিলেন, ‘আমি তার (হাসনাতের) আওয়াজ বেশ কয়েকবার শুনেছি, সশস্ত্র আক্রমণকারীদের আর যেনো না আসে বলেছিলো। তখন সে কোথায় ছিল জানি না।’

তবে দেখে মনে হয়েছিল হামলাকারীরা বাড়িটি ভালভাবেই জানে।

কাচের দরজা ভেঙে তারা ঘরে ঢুকল এবং চেঁচিয়ে উঠল: ‘হ্যান্ডস আপ!’

টেলিফোনের সেটটি নষ্ট করতে তারা কোনও সময় নেয়নি। তারপরে তারা সবাইকে নীচে তলায় নামিয়ে আনে। তারা আমাদের ড্রয়িংরুমে নিয়ে গেল।

‘কে এখনও উপরে আছে?’ সেনাবাহিনীর একজন জিজ্ঞাসা করলেন।

আবদুর রব সেরনিয়াবাতের উপস্থিতিতে সাহান আরা জবাব দিলেন, ‘তারা কারা, আমি জানি না।’

এই মুহুর্তে, তিনি তার শ্বশুর এর মুখের অভিব্যক্তিটি বুঝতে পারেন: ‘বাড়ির ভিতরে কারা আছেন তা বলো না।’

সেই মুহুর্তে বঙ্গবন্ধুর কথা ভাবনায় আসায় মনে সাহস এলো।

“আমার জানাছিল এদের শায়েস্তা করার জন্য বঙ্গবন্ধু রয়েছেন। তিনি রাষ্ট্রপতি। ততক্ষণ পর্যন্ত আমার ধারণা ছিল না যে বঙ্গবন্ধু আর নেই,” শাহানারা বেগম বলেছিলেন।

সেই অন্ধকার রাতে, ধানমন্ডি ৩২ এ বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে সবচেয়ে বড় রক্তপাত হয়েছিল। কিছু অসন্তুষ্ট সেনা কর্মকর্তা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তার পুরো পরিবারকে হত্যা করেছিলেন, শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা ছাড়া বিদেশে যারা ছিলেন।

২৭ মিন্টো রোডের দৃশ্যপটটি দ্রুত বদলে যাচ্ছিল।

আবদুর রব সেরনিয়াবাত আক্রমণকারীদের জিজ্ঞাসা করলেন তাদের কমান্ডিং অফিসার কে?

‘তোমরা কি চাও? কেন এখানে এসেছ?’ বললেন সেরনিয়াবাত।

‘আমাদের কোনও কমান্ডিং অফিসার নেই,’ জবাব এসেছিল।

সাহান আরা তার দশমাসের ছেলে সাদেক আবদুল্লাহকে (বিসিসি মেয়র) তার কোলে ধরে ছিলেন। তার বড় ছেলে সুকান্ত বাবু সিঁড়ি বেয়ে তার মায়ের কাছে গিয়ে তাঁকে কোলে তুলে নিতে বলল।

‘যেহেতু সাদেক ইতিমধ্যে আমার কোলে ছিল, তাই আমি তাকে (সুকান্ত) নিতে পারিনি।’

অতঃপর শহীদ সেরনিয়াবাত সুকান্তকে তাঁর কোলে তুলে নিয়ে ছিলেন।

হামলাকারীরা ধরে নিয়েছিল যে পরিবারের সকল সদস্য ঘরে উপস্থিত রয়েছে, তখন তারা গুলি শুরু করে দেয়।
গুলিবিদ্ধ হয়ে শহীদ নীচে সুকান্তের মুখের উপর চেপে পড়ে।

বুকে বুলেট বিদ্ধ হলেন শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত আর পিঠে শাহান আরা।

হামলাকারীরা ঘর থেকে বেরিয়ে যায়। তারা যখন গাড়িতে উঠতে যাচ্ছিল, তখন গুলিবিদ্ধরা, আঘাতপ্রাপ্ত কেউ ঘরের ভিতর থেকে আর্ত চিৎকার শুরু করলেন।

আক্রমণকারীরা ফিরে এসে নির্বিচারে আবার গুলি চালায়।

“আমার শ্বশুর আমার ঠিক পাশেই ছিলেন এবং আমি আমার ছেলে (সাদেক আবদুল্লাহ) কে কোলে নিয়ে পরে যাচ্ছিলাম।

আমি শ্বশুরের পিছনে শুয়ে পড়লাম। চার থেকে পাঁচটি গুলি আমার লেগেছিল।

‘আমার শ্বশুর মাটিতে পড়ে গেলেন,’ তিনি বলেছিলেন।

হামলাকারীরা চলে গেল।

কিছুক্ষণ পর রমনা থানা থেকে কয়েকজন পুলিশ এসেছিল। তারা আবদুর রব সেরনিয়াবাতকে সন্ধান শুরু করে।
সাহান আরা পরে জানতে পারে যে তাদের একজন নিরাপত্তারক্ষী পুলিশকে ফোন করেছে।

পুলিশ কর্মকর্তারা শ্বশুরের নাড়িটি পরীক্ষা করে তার হাত ছেড়ে দেয়। তার স্বামী আবুল হাসনাত উপরের তলা থেকে নেমে এলেন।

সে নিজেকে বাথরুমে লুকিয়ে রাখতে পেরেছিল। সেনাবাহিনী সেখানে গিয়েছিল, কিন্তু অন্ধকারের কারণে তারা তাকে পেল না।

লাশগুলো পরীক্ষা করতে হাসনাত বাবার হাত ধরল, তবে শীঘ্রই হাতটা নামিয়ে দিল।

সাহান আরা তার স্বামীকে সুকান্ত বাবুর অবস্থা দেখতে বললেন। তিনি সুকান্তকে আলাদা করার জন্য শহীদকে টানলেন। হঠাৎ একটা কর্কশ শব্দ তার বুক থেকে বেরিয়ে গেল, যেন সে নিঃশ্বাস ছাড়ল।

সুকান্তের নাক থেকে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল এবং আবদুর রব সেরনিয়াবাতের ছেলে আরিফ সেরনিয়াবাতের মরদেহ কাছাকাছি ছিল। একটি গুলি আরিফের মাথায় ছিদ্র হয়েছিল। রব সেরনিয়াবাতের মেয়ে বেবি সেরনিয়াবাতের লাশ পাশে পড়ে ছিল।

আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তাঁর ছেলে আরিফ সেরনিয়াবাত, কন্যা বেবি সেরনিয়াবাত, নাতি সুকান্ত বাবু , শহীদ সেরনিয়াবাত আবদুর নইম খান রিন্টু সকলেই মারা গিয়েছিলেন।

সাহান আরা, তার ছেলে সাদেক, শাশুড়ি এবং দুই বোন জামাই এই গণহত্যায় বেঁচে ছিলেন।

শাহান আরা বলেছিলেন, ‘আমি আজও তাদের মুখটি ভুলতে পারি না। কয়েক মুহুর্ত আগে তারা আড্ডা দিচ্ছিল, এখন তারা সবাই মরে নিশ্চল,’ সাহান আরা বলেছেন।

( বরিশাল কালীবাড়ি রোড এর বাড়িতে ২০১৭ সালে সাক্ষাতকারটি নেয়া যা ১৫ আগস্ট,২০ দ্য ডেইলী স্টারে প্রিন্ট ও ভিডিও প্রকাশিত হয়। সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেছিলেন সাংবাদিক সুশান্ত ঘোষ।)

অতিথি লেখক
অতিথি লেখকhttps://www.samoyiki.com
সাময়িকীর অতিথি লেখক একাউন্ট। ইমেইল মাধ্যমে প্রাপ্ত লেখাসমূহ অতিথি লেখক একাউন্ট থেকে প্রকাশিত হয়।
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।