রবিবার, ডিসেম্বর ৪, ২০২২

আস্ত একটি দেশের আয়তন মাত্র ৭৫ বর্গ কিমি, বাস করে একটি মাত্র পরিবার

প্রকাশিত:

আয়তন মাত্র ৭৫ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা ২৬। অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের মধ্যেই রয়েছে এই দেশ। পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট ‘দেশ’। নাম ‘প্রিন্সিপ্যালিটি অব হাট রিভার’। এ দেশের নিজস্ব মুদ্রা, নিজস্ব পাসপোর্ট, ভিসা— সবই রয়েছে। তবে প্রিন্সিপ্যালিটি অব হাট রিভার নিজেকে দেশ ঘোষণা করলেও অস্ট্রেলিয়ার বাকি দেশগুলো কিন্তু একে দেশ হিসাবে মানতে নারাজ। মাত্র ২৬ জনসংখ্যা নিয়ে নামমাত্র জায়গা জুড়ে দেশ ঘোষণার পিছনে কী সুবিধা থাকতে পারে প্রিন্সিপ্যালিটি অব হাট রিভারের? ইতিহাসই বা কী বলছে?

৫১ বছর আগে এক বিশেষ কারণে সরকারের একটি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেই ওই ভূখণ্ডকে দেশ হিসাবে ঘোষণা করে দিয়েছিলেন লিওনার্দ ক্যাসলে নামে এক ব্যক্তি। যেখানে তিনি থাকতেন, সেই পুরো ভূখণ্ডই আসলে লিওনার্দের সম্পত্তি ছিল। চাষের জমি ছিল তাঁর। যা থেকে প্রতি বছর ৪ হাজার হেক্টর গম উৎপাদন হত। কিন্তু প্রশাসন গম কেনাবেচার নতুন নিয়ম চালু করে দেয়। যার ফলে ৪ হাজার হেক্টর জমির ফসল নয়, মাত্র ৯৯ একর জমিতে যে ফসল ফলত, তা তিনি বিক্রি করতে পারতেন। প্রশাসনের এই সিদ্ধান্ত বদলের জন্য অনেক দরবার করেও কোনও লাভ হয়নি। তার পরেই তিনি নিজের ভূখণ্ডকে আলাদা দেশ হিসাবে ঘোষণা করে দেন। নাম রাখেন— প্রিন্সিপ্যালিটি অব হাট রিভার। নিজেকে রাজা ঘোষণা করেন। দেশের জন্য আলাদা মুদ্রা চালু করেন। নাম দেন হাট রিভার ডলার। এক হাট রিভার ডলারের মূল্য এক অস্ট্রেলিয়ান ডলারের সমান রাখেন। দেশের জন্য আলাদা পতাকা তৈরি করেন। সরকারি কাজকর্মের জন্য আলাদা সিলমোহর। এ ছাড়া পাসপোর্ট, ভিসা সবই আলাদা করে ফেলেন।

কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার বাকি দেশ এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশও প্রিন্সিপ্যালিটি অব হাট রিভারকে স্বতন্ত্র দেশ হিসেবে মানতে চায় না। স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য তাই ১৯৭০ সালে ২১ এপ্রিল দেশটির প্রতিষ্ঠা দিবসে ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথকে আমন্ত্রণ জানান তিনি। কারণ ব্রিটেনের রানি তখন অস্ট্রেলিয়ারও রানি ছিলেন। রানি যাননি। কিন্তু তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়ে একটি চিঠি পাঠিয়েছিলেন। ওই চিঠিই হাতিয়ার হয়ে যায় লিওনার্দের।

বিষয়টি শুনতে যতটা সহজ, বাস্তবে অতটা সহজ ছিল না। প্রচুর আইনি জটিলতার মধ্যে দিয়ে তাঁকে যেতে হয়েছিল। এ দিকে তাঁর নামে বকেয়া সরকারি করের বোঝাও বাড়ছিল। কারণ প্রিন্সিপ্যালিটি অব হাট রিভারকে আলাদা দেশ হিসাবে কোনও দিনই মানেনি পশ্চিম অস্ট্রেলিয়া। ফলে পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার সমস্ত আইন তার উপর প্রযোজ্য ছিল। নিয়ম অনুযায়ী প্রতি বছর নাগরিকদের কর দিতে হয় সরকারকে। লিওনার্দের নামেও সেই কর বরাদ্দ করা হত। ফলে বারবারই বিচার চেয়ে পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু প্রতিবারই ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসতে হয়েছিল। তবুও তিনি হাল ছাড়েননি।

২০১৭ সাল পর্যন্ত তিনি নিজে রাজা ছিলেন। তার পর তাঁর ছেলে গ্রেমির মাথায় রাজ মুকুট পরিয়ে দেন তিনি। ওই বছরই সুপ্রিম কোর্ট তাঁকে নোটিস পাঠিয়ে বকেয়া ২৭ লাখ অস্ট্রেলিয়ান ডলার কর হিসেবে দ্রুত জমা দেওয়ার নির্দেশ দেয়। যত দিন যাচ্ছিল, আরও আইনি জটিলতায় ফেঁসে যাচ্ছিলেন লিওনার্দ।

২০১৯ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি তাঁর মৃত্যু হয়। কিন্তু এ সবের মধ্যে একটাই লাভ হয়েছিল প্রিন্সিপ্যালিটি অব হাট রিভারের। পর্যটকদের ভিড় জমতে শুরু করেছিল স্বঘোষিত বিশ্বের ছোট দেশটি দেখার জন্য। প্রতি বছর এর থেকেই মোটা অর্থ উপার্জন করতে শুরু করে লিওনার্দ এবং তাঁর পরিবারের। এ দেশে ঢুকতে গেলে আলাদা ভিসা নিতে হত পর্যটকদের।

কিন্তু লিওনার্দের মৃত্যুর পর থেকে দেশের অর্থনীতি ক্রমে ক্ষতির মুখ দেখতে শুরু করে। পর্যটকদের আনাগোনাও কমতে শুরু করেছিল। তার উপর অতিমারির ধাক্কা দোসরের মতো কাজ করেছিল। ২০২০ সালের ৩১ জানুয়ারি লিওনার্দের বংশধরেরা দেশের সীমান্ত বন্ধের ঘোষণা করেন। পরিস্থিতি এমনই যে, দীর্ঘ ৫১ বছর ধরে করের যে বোঝা প্রিন্সিপ্যালিটি অব হাট রিভারের উপর চাপানো হয়েছে, তা পরিশোধ করতে গেলে পুরো দেশটাকেই বেচে দিতে হতে পারে।

এই দেশে সে ভাবে ঘুরে দেখার কিছু নেই। একটি অফিস, চার-পাঁচটি বাড়ি এবং বিস্তৃত চাষের জমি। তবে দেশটি নিজেই একটি স্বতন্ত্র ইতিহাসের সাক্ষী। সে কারণেই বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পর্যটকেরা আসতেন।
তবে বিশ্বের আর কোনও দেশ একে দেশ হিসাবে মনেই করে না। ২০০৮ সালে ইউরোপীয় ইউনিয়ন কাউন্সিল হাট রিভারের জনতার পাসপোর্টকে ‘ফ্যান্টাসি পাসপোর্ট’ উল্লেখ করেছিল। অস্ট্রেলিয়ার শহর পারথের ৫১৭ কিলোমিটার উত্তরে হাট নদীর তীরে অবস্থিত প্রিন্সিপ্যালিটি অব হাট রিভারের অস্তিত্ব রক্ষার লড়াইয়ে আজও ভরসা রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের ওই চিঠিটুকুই।

সিদ্ধার্থ সিংহ
সিদ্ধার্থ সিংহ
২০২০ সালে 'সাহিত্য সম্রাট' উপাধিতে সম্মানিত এবং ২০১২ সালে 'বঙ্গ শিরোমণি' সম্মানে ভূষিত সিদ্ধার্থ সিংহের জন্ম কলকাতায়। আনন্দবাজার পত্রিকার পশ্চিমবঙ্গ শিশু সাহিত্য সংসদ পুরস্কার, স্বর্ণকলম পুরস্কার, সময়ের শব্দ আন্তরিক কলম, শান্তিরত্ন পুরস্কার, কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত পুরস্কার, কাঞ্চন সাহিত্য পুরস্কার, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা লোক সাহিত্য পুরস্কার, প্রসাদ পুরস্কার, সামসুল হক পুরস্কার, সুচিত্রা ভট্টাচার্য স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার, অণু সাহিত্য পুরস্কার, কাস্তেকবি দিনেশ দাস স্মৃতি পুরস্কার, শিলালিপি সাহিত্য পুরস্কার, চেখ সাহিত্য পুরস্কার, মায়া সেন স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার ছাড়াও ছোট-বড় অজস্র পুরস্কার ও সম্মাননা। পেয়েছেন ১৪০৬ সালের 'শ্রেষ্ঠ কবি' এবং ১৪১৮ সালের 'শ্রেষ্ঠ গল্পকার'-এর শিরোপা সহ অসংখ্য পুরস্কার। এছাড়াও আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত তাঁর 'পঞ্চাশটি গল্প' গ্রন্থটির জন্য তাঁর নাম সম্প্রতি 'সৃজনী ভারত সাহিত্য পুরস্কার' প্রাপক হিসেবে ঘোষিত হয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত

আরো পড়ুন
সম্পর্কিত

একটি মহিষের দাম সাড়ে ১২ কোটি টাকা, নিরাপত্তায় রয়েছেন ১২ বন্দুকধারী!

অবিশ্বাস্য মনে হলেও, এটাই সত্যি। একটি মহিষের দাম সাড়ে...

উদার আকাশ ঈদ-শারদ উৎসব সংখ্যা প্রকাশ

উদার আকাশ ঈদ-শারদ উৎসব সংখ্যা ১৪২৯ প্রকাশনা উৎসব উদ্বোধন...

পশ্চিমবঙ্গ: পুবের কলম ও বুদ্ধিজীবী মঞ্চের নবী দিবস উদযাপন

একদিকে বিদ্বেষ, অন্যদিকে সম্প্রীতি৷ তারই নাম বাংলা৷ এখানে নবী...

বাংলাদেশ: যমুনায় তীব্র ভাঙন; অর্ধশত বাড়িঘর জমিজমা যমুনায় বিলীন

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলা যমুনা নদী অধ্যুষিত দুর্গম জালালপুর ইউনিয়নের...
লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।