0.8 C
Drøbak
সোমবার, জানুয়ারী ২৪, ২০২২
প্রথম পাতামুক্ত সাহিত্যউপন্যাস'চন্দন রোশনি' মোহিত কামালের ধারাবাহিক উপন্যাস

‘চন্দন রোশনি’
মোহিত কামালের ধারাবাহিক উপন্যাস

সাগরের অথই জলে তলিয়ে গেছে অর্ণব। কী ঘটবে অর্ণবের জলজজীবনে? সমুদ্রসৈকতে অপেক্ষারত উর্বশীর জীবনে নেমে এলো কোন ঝড়? একে অপর থেকে কি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল নবদম্পতি? সাগরতলের জীবনে অর্ণব আর বাস্তব জীবনযুদ্ধে অশুভ পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে থাকা উর্বশীর মধ্যে কীভাবে যোগাযোগ ঘটতে থাকে? হারিয়ে যাওয়ার পর কীভাবে অর্ণব বার বার ফিরে আসে উর্বশীর ঘটমান চলার পথে? বাস্তব আর পরাবাস্তবের আলোয় কীভাবে জ্বলে ওঠে ম্যাজিক রিয়ালিজম? সচেতন ও অবচেতন মনের এক সমগ্রতা বা অভিন্নতাকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা সুররিয়ালিজমের কোন পথ মাড়িয়ে এগোবে এই উপন্যাসের কাহিনি? জানতে হলে পড়তে হবে উপন্যাসটি।

।।তেইশ।।

অশ্লীলতার কলংক লেপনে ক্ষত-বিক্ষত মন
গাজীপুর থানার এএসআই জলিলের কল পেয়ে হতাশ মনে জোশ ফিরে এলো। কৃতজ্ঞতা প্রকাশের ভঙ্গিতে উর্বশী বলল, ‘আপনার কল পেয়ে খুশি হয়েছি। বলুন কী করতে হবে?’
‘এখনও খুশি হওয়ার মতো খবর দিতে পারব না। তবে যেটুকু খবর দেব তা অবশ্যই পজিটিভ। হিকমত আবসারির দীর্ঘদিনের অপকর্মের বহু প্রমাণ হাতে পেয়েছি। আর চন্দনার মামলাটিও পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে গাজীপুর থানায়। আপনারা এলে বিস্তারিত বলা হবে। আনুষ্ঠানিক কিছু করণীয় কাজও সারতে হবে চন্দনার মাকে।’
‘কখন আসতে হবে?’
‘আগামীকাল চলে আসুন।’
‘ঠিক আছে। আন্টির সঙ্গে কথা বলছি, কালই রওনা হব।’ কথাটি শেষ করা মাত্রই মনে পড়ল দেশজুড়ে চলছে অবরোধ। চট করে বিষয়টি তুলে ধরল এক এসআই।
কিছুটা চিন্তিত হলেও এসআই বললেন, ‘গত ১২ ঘণ্টায় র‌্যাব, পুলিশ ও বিজিবি দেশের বিভিন্ন স্থানে ৩২ হাজার ৪১৭টি যানবাহনকে পাহারা দিয়ে গন্তব্যে পৌঁছে দিয়েছে। গাজীপুরের দিকেও এসেছে বহু যাত্রীবাহী যান।’
পাহারা নিয়ে গন্তব্যে যাওয়ার ব্যাপারে শঙ্কা জাগায় উর্বশী বলল, ‘পত্রিকার খবর বলছে সড়কে যানবাহন চলাচল ৬২ শতাংশ কমে গেছে, মাত্র ৩৮ শতাংশ চলছে ঝুঁকি নিয়ে। এ অবস্থায় রাস্তায় বেরুনো কি ঝুঁকিপূর্ণ হবে না? গতকালই সংসদ ভবনের কাছাকাছি দেখেছি এক যাত্রীবাহী বাসে পেট্রল বোমার আগুন।’
‘কিন্তু মামলা চাঙ্গা করতে চন্দনার মাকে তো লাগবেই।’
চিন্তায় পড়ে গেল উর্বশী।
মামলার ব্যাপারে ছাড় দেওয়া যাবে না। ছাড় দেওয়া মানে অন্যায়ের কাছে হেরে যাওয়া, অনেক চন্দনার জীবনে বিপর্যয়ের পথ খুলে রাখা। কঠিন প্রতিরোধী শক্তির বহির্মুখী চাপ খেল ভেতরের তেজোদীপ্ত মনোভাবের কারণে। হতাশা আর উদ্বেগ কাটিয়ে উঠে উর্বশী বলল, ‘অবশ্যই রওনা হব কাল, নিশ্চিত থাকুন। অবরোধ পেট্রল বোমা দমাতে পারবে না সঠিক বিচারের বাণী, অবশ্যই হিকমত আবসারিকে ছাড় দেওয়া যাবে না, ছাড় দেব না।’
‘আপনি আসবেন নিশ্চিত আমি। যে-তেজ দেখেছি আপনার মধ্যে, তাতে নিশ্চিত হয়েছি আপনার সাহসের ব্যাপারে। কিন্তু সবসময় সাহস ও আবেগ দিয়ে চললে হবে না। ইতোমধ্যে দুটো ভুল করে ফেলেছেন। সাংবাদিককে চড় মেরেছেন, বান্ধবী হিসেবে পরিচয় না দিয়ে নিজেকে বোন হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন। কথা ও আসল সম্পর্ক দু রকম হওয়ার কারণে, বোন হিসেবে পরিচয় দেওয়ার মধ্যে মমতা-সততা-নিরীহ মনোভাবের ঘাটতি না থাকলেও সবাই দোষ বের করছে। আপনাদের ব্যাপারে বাজে গন্ধ ছড়াচ্ছে। তবে মামলার মেরিট হিকমত আবসারির ঘাড় থেকে নামাতে পারবে না তার অপরাধের দায়ভার। তার লোকজন কৌশলের আশ্রয় নিয়েছে- চন্দনাকে কলগার্ল হিসেবে ফোকাস করতে পেরেছে। তবে তারা বহু অপকর্মের হোতা। এ এলাকা দূষিত করার পেছনে এ ধরনের অনেক হিকমত আবসারি রয়েছে। তাদের ধরতে হবে, মুখোশ খুলে দিতে হবে, অপকর্ম কমানোর জন্য এখন এটাই আমাদের প্রধান কাজ, দায়িত্ব। আশা করি দায়িত্ব পালনে পূর্ণাঙ্গ সহযোগিতা করবেন। এজন্য চন্দনার মায়ের উপস্থিতি জরুরি। চন্দনাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা দরকার। সুস্থ থাকলে তাকেও আনতে পারলে ভালো হয়। গাজীপুরে আপনাদের নিরাপত্তার দায়িত্ব থাকবে আমাদের ওপর।’
উর্বশী খেয়াল করল, ‘আপনারা এলে বিস্তারিত বলা হবে’ বলে কথা শুরু করলেও প্রায় সব কথাই বলে ফেলেছেন এএসআই সাহেব। তাকে এই মামলার ব্যাপারে সিরিয়াসই মনে হলো। এও বুঝল, নিজেকে নয়, বেশি প্রয়োজন আন্টি ও চন্দনাকে। আইনি প্রক্রিয়া জোরালো করতে হলে দুজনকে শক্ত হতে হবে, ভয়-ভীতির ঊর্ধ্বে উঠে ফাইট দেওয়ার মানসিক প্রস্তুতি নিতে হবে। নিজের মধ্যে সাহসের ঘাটতি না থাকলেও আন্টি ও চন্দনার জোরালো অবস্থান নিয়ে সন্দেহ হলো। তবু পুলিশি-কাজে সহযোগিতা করার দৃঢ় অবস্থানে থেকে উর্বশী জবাব দিল, ‘সর্বোচ্চ চেষ্টা করব আমরা। চন্দনাকে সঙ্গে নেওয়া যায় কিনা, সে-বিষয়ে ওর চিকিৎসকের সঙ্গে আলাপ করব।’
‘চন্দনার কি অবস্থার উন্নতি হয়নি?’
‘উন্নতি হয়েছে। তবে অশ্লীলতার কালিমা লেপনে ক্ষত হয়েছে মনে। আমাদের নামে ছড়ানো দুর্নামের বোঝা বইতে কষ্ট হচ্ছে তার। চাকরি স্থায়ী করার জন্য অফিস-ভ্রমণে যাওয়ার প্রস্তাবে রাজি হওয়াটাই তার ভুল ছিল- এই বোধের চাবুক খাচ্ছে নিজেই। রক্তাক্ত হচ্ছে ক্ষণে ক্ষণে। তবে হিকমত আবসারির সাজা হোক সেটা চায় ও।’
‘চাইলেই তো আর সাজার ব্যবস্থা করা যায় না। আইনের চোখে যৌক্তিকভাবে উপস্থাপন করতে হয় আসামিকে, প্রমাণাদি দাখিল করতে হয় সঠিকভাবে। নইলে ফাঁকফোকর তৈরি হয়। সেই ফাঁক গলিয়ে সহজে মুক্তি পেয়ে যায় আসামি। এ কাজে অবশ্যই বাদিপক্ষকে হতোদ্যম হলে চলবে না। ক্লান্ত হলে চলবে না, লাগাতার শক্ত অবস্থানে থাকতে হবে। মনে রাখবেন কথাটা।’
এএসআই জলিল ভালোভাবে কথা বলেছেন, আস্থা-বিশ্বাসের জায়গাটাই খোলাসা করে লাইন কেটে দিয়েছেন। নিজের ওপরও এসে পড়েছে জরুরি দায়িত্ব। এ কর্তব্য পালনে নিজের দৃঢ়তার ঘাটতি নেই। তবে ঘাটতি তৈরি হবে দেশজুড়ে সংঘাতের কারণে। লঞ্চে বোমা, বাসে বোমা, রেলে নাশকতা, সড়ক অবরোধ, হরতাল, গুম-গ্রেফতার আতংক, সব মিলিয়ে এ অস্থির সময়ে চলাচলের ভয়, বেড়ে যাওয়া নিহতের সংখ্যার উদ্বেগজনক হার, অবরোধের ১৬ দিনে ২৮ জনের নিহত হওয়ার খবর- সব মিলিয়ে আন্টি ও চন্দনার দৃঢ় অবস্থানে শিথিলতা আসতে পারে ভেবে শংকিত হলো ও। এই উৎকণ্ঠার সময় সাধারণত অর্ণবের সংকেত আসে। আসছে না এখন। অর্ণবের কোনো বিপদ হলো না তো!
উৎকণ্ঠার সলতেয় জ্বলে উঠল আগুন। ধোঁয়াশা ছড়িয়ে যেতে লাগল। অস্বস্তির তলে চাপা পড়ে যেতে লাগল গাজীপুর যাওয়ার পরিকল্পনা। অর্ণবের সংযোগ পাওয়ার জন্য উদগ্রীব হয়ে রইল উর্বশী।

চলবে…

আরও পড়ুন:
চন্দন রোশনি- বাইশ পর্ব
চন্দন রোশনি- একুশ পর্ব
চন্দন রোশনি- কুড়ি পর্ব
চন্দন রোশনি- উনিশ পর্ব
চন্দন রোশনি- আঠারো পর্ব
চন্দন রোশনি- সতেরো পর্ব
চন্দন রোশনি- ষোল পর্ব
চন্দন রোশনি- পনেরো পর্ব
চন্দন রোশনি- চোদ্দো পর্ব
চন্দন রোশনি- তেরো পর্ব
চন্দন রোশনি- বারো পর্ব
চন্দন রোশনি- এগারো পর্ব
চন্দন রোশনি- দশম পর্ব
চন্দন রোশনি- নবম পর্ব
চন্দন রোশনি- অষ্টম পর্ব
চন্দন রোশনি- সপ্তম পর্ব
চন্দন রোশনি- ষষ্ঠ পর্ব
চন্দন রোশনি- পঞ্চম পর্ব
চন্দন রোশনি- চতুর্থ পর্ব
চন্দন রোশনি- তৃতীয় পর্ব
চন্দন রোশনি- দ্বিতীয় পর্ব
চন্দন রোশনি- প্রথম পর্ব

মোহিত কামাল
মোহিত কামাল
কথাসাহিত্যিক মোহিত কামালের জন্ম ১৯৬০ সালের ০২ জানুয়ারি চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলায়। তাঁর বাবার নাম আসাদুল হক এবং মায়ের নাম মাসুদা খাতুন। তাঁর শৈশব-কৈশোর কেটেছে আগ্রাবাদ, চট্টগ্রাম ও খালিশপুর, খুলনায়। বর্তমান নিবাস ধানমন্ডি, ঢাকা। স্ত্রী মাহফুজা আখতার মিলি, সন্তান মাহবুব ময়ূখ রিশাদ, পুত্রবধূ ইফফাত ইসলাম খান রুম্পা ও জিদনি ময়ূখ স্বচ্ছকে নিয়ে তাঁর সংসার। চার ভাই এক বোনের মধ্যে চতুর্থ সন্তান তিনি। তাঁর অ্যাফিডেভিট করা লেখক-নাম মোহিত কামাল। তিনি সম্পাদনা করছেন শুদ্ধ শব্দের নান্দনিক গৃহ, সাহিত্য-সংস্কৃতির মাসিক পত্রিকা শব্দঘর। তাঁর লেখালেখির মুখ্য বিষয় : উপন্যাস ও গল্প; শিশুসাহিত্য রচনার পাশাপাশি বিজ্ঞান বিষয়ে গবেষণাধর্মী রচনা। লেখকের উড়াল বালক কিশোর উপন্যাসটি স্কলাস্টিকা স্কুলের গ্রেড সেভেনের পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে; ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্যও বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি (ঝঊছঅঊচ) কর্তৃকও নির্বাচিত হয়েছে। এ পর্যন্ত প্রকাশিত কথাসাহিত্য ৩৭ (উপন্যাস ২৪, গল্পগ্রন্থ ১৩)। এ ছাড়া কিশোর উপন্যাস (১১টি) ও অন্যান্য গ্রন্থ মিলে বইয়ের সংখ্যা ৫৫। জাতীয় পুরস্কার: কথাসাহিত্যে অবদান রাখার জন্য তিনি বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার (২০১৮), অগ্রণী ব্যাংক-শিশু একাডেমি শিশুসাহিত্য পুরস্কার ১৪১৮ বঙ্গাব্দ (২০১২) অর্জন করেছেন। তাঁর ঝুলিতে রয়েছে অন্যান্য পুরস্কারও; হ্যাঁ (বিদ্যাপ্রকাশ, ২০২০) উপন্যাসটি পেয়েছে সমরেশ বসু সাহিত্য পুরস্কার (২০২০)। পথভ্রষ্ট ঘূর্ণির কৃষ্ণগহ্বর (বিদ্যাপ্রকাশ, ২০১৪) উপন্যাসটি পেয়েছে সিটি আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার (২০১৪)। সুখপাখি আগুনডানা (বিদ্যাপ্রকাশ, ২০০৮) উপন্যাসটি পেয়েছে এ-ওয়ান টেলিমিডিয়া স্বাধীনতা অ্যাওয়ার্ড ২০০৮ এবং বেগম রোকেয়া সম্মাননা পদক ২০০৮―সাপ্তাহিক দি নর্থ বেঙ্গল এক্সপ্রেস-প্রদত্ত। না (বিদ্যাপ্রকাশ, ২০০৯) উপন্যাসটি পেয়েছে স্বাধীনতা সংসদ নববর্ষ পুরস্কার ১৪১৫। চেনা বন্ধু অচেনা পথ (বিদ্যাপ্রকাশ, ২০১০) উপন্যাসটি পেয়েছে ময়মনসিংহ সংস্কৃতি পুরস্কার ১৪১৬। কিশোর উপন্যাস উড়াল বালক (রোদেলা প্রকাশনী, ২০১২; অনিন্দ্য প্রকাশ, ২০১৬) গ্রন্থটি ২০১২ সালে পেয়েছে এম নুরুল কাদের ফাউন্ডেশন শিশুসাহিত্য পুরস্কার (২০১২)। তিনি মনোচিকিৎসা বিদ্যার একজন অধ্যাপক, সাবেক পরিচালক জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ,ঢাকা
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।