8.8 C
Drøbak
বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ২১, ২০২১

কৌতূকপ্রিয় বিদ্যাসাগর

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর বাঙালি তথা সমগ্র ভারতবাসীর কাছে অন্যতম প্রাতঃস্মরণীয় ব্যক্তিত্ব। আজ ২৬ সেপ্টেম্বর তাঁর জন্মদিন। আমি এই পূণ্যলগ্নে শুধু তাঁর কৌতূকপ্রিয় মনের কথাই উল্লেখ করছি। 

বিদ্যাসাগরের সঙ্গে দেখা করতে এসেছেন এক ব্রাহ্মণ, কিছু সাহায্য চাই তাঁর। তিনি বিদ্যাসাগরকে বলেই ফেললেন, “মশায়, বড়ো দূরবস্থা!” বিদ্যাসাগর বললেন, “আ -কার বদলে এসো!”

ব্রাহ্মণ আসল কথা বুঝতে না-পেরে পরদিন পোশাক বদলে এসে সেই একই কথা বললেন আর বিদ্যাসাগরও একইভাবে আ-কার বদলে আসার কথা বললেন। সেই ব্রাহ্মণ প্রতিবারই পোশাক বদলান অথচ কাজের কাজ আর হয় না। শেষপর্যন্ত ব্রাহ্মণ গেলেন রামসর্বস্ব পণ্ডিতের কাছে, জানালেন তাঁর সমস্যার কথা। তিনি ব্রাহ্মণকে বুঝিয়ে দিলেন যে আ-কার বদলে আসা মানে দূরাবস্থা না-বলে ‘দূরবস্থা’ বলতে হবে। পরদিন যখন ব্রাহ্মণ এসে বিদ্যাসাগরকে বললেন, “মশায় আমার বড়ো দূরবস্থা”, বিদ্যাসাগর অমনি বললেন, “তুমি আ-কার বদলেছ, এবার তোমার কথা শুনব।”

এইবার আসি দ্বিতীয় ঘটনায়–

বিধবাবিবাহ প্রবর্তনের পর একদল তাঁর বিপক্ষে যা — রাস্তায় বের হলেই তাঁকে গালাগাল দেয়, ঠাট্টা-তামাশা করে আবার প্রাণে মেরে ফেলার ভয় দেখায় অথচ বিদ্যাসাগর কোনো কিছুতেই বিচলিত হন নি। একবার একজন ধনী ও বেশ নামী ব্যক্তি বিদ্যাসাগরকে রাস্তায় মারধোর করার জন্য গুণ্ডা প্রকৃতির লোক লাগাল।বিদ্যাসাগর সেকথা জানতে পেরে সটান তার বাড়িতে হাজির হলেন। সে-সময় গুণ্ডাদের হাতে বিদ্যাসাগরের কী হাল হয় সেই নিয়েই আলোচনা চলছিল। বিদ্যাসাগরকে নিজের বাড়িতে হাজির হতে দেখে তিনি প্রশ্ন করলেন, ” এখানে কেন?” বিদ্যাসাগর অম্লানবদনে বলে দিলেন– “শুনলাম আমাকে মারার জন্য আপনার ভাড়াটে গুণ্ডাদের আহার-নিদ্রা ত্যাগ করে খুঁজে বেড়াতে হচ্ছে। তাই ওদের কষ্ট লাঘব করার জন্য নিজেই চলে এলাম।”

কৌতূকপ্রিয়তার সঙ্গে সাহস ও চারিত্রিক দৃঢ়তাও বিদ্যাসাগর চরিত্রের অন্যতম দিক।

তথ্যসূত্র :

১) মনমোহন গঙ্গোপাধ্যায়ের — ‘শ্রুতি – স্মৃতি’ গ্রন্থ।

২) বিহারীলাল সরকারের ‘বিদ্যাসাগর’ গ্রন্থ।

পীযূষ কান্তি সরকার
পীযূষ কান্তি সরকার
পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া শহরের ব্যাঁটরা থানা এলাকায় পীযূষ কান্তি সরকারের জন্ম ১৩৬৮ সালের ১৩ই বৈশাখ ( ২৭ এপ্রিল ১৯৬১ )। হাওড়ার কদমতলায় সাতপুরুষের ভিটে। বাবা রতন সরকার, মা বেবি সরকার-- উভয়েই প্রয়াত। মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং -এ ডিপ্লোমা প্রাপ্ত সাহিত্যিক নরেন্দ্রপুর রামকৃষ্ঞ মিশনের আইটিআই-এর শিক্ষক। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন পত্রিকায় তার লেখা কবিতা,গল্প, নিবন্ধ নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে। এ পর্যন্ত ২টি কবিতার বই -- 'জীবনের জানলায়' ও 'আলোর কলম' প্রকাশিত হয়েছে।
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।