-5.6 C
Drøbak
সোমবার, নভেম্বর ২৯, ২০২১
প্রথম পাতামুক্ত সাহিত্যকৌতূকপ্রিয় বিদ্যাসাগর (শেষ পর্ব)

কৌতূকপ্রিয় বিদ্যাসাগর (শেষ পর্ব)

ঈশ্বরচন্দ্র তখন সংস্কৃত কলেজের ছাত্র, কৈশোর পার হননি। তাঁর বিয়ে হল শ্রী শত্রুঘ্ন ভট্টাচার্যের বালিকা কন্যা দীনময়ী-র সঙ্গে। ছাতনাতলায় মালাবদলের পর বাসর ঘরে ঢুকে বরকে নিজের কনে-কে খুঁজে নিতে হত। অপরিচিতা সদ্য একবার দেখা বালিকাটিকে নতুন বরের পক্ষে একদল বালিকার মধ্যে থেকে খুঁজে পাওয়া সম্ভব ছিল না। এটি তৎকালীন একটি স্ত্রী-আচার যা বরকে ঠকানোর কাজে লাগানো হত। সদ্য সম্পর্কের আত্মীয়রা বর-কে ধাঁধায় ফেলে মজা উপভোগ করত। ঈশ্বর সে-সুযোগ দি্লেন না। তিনি টুকটুকে ফর্সা একটি মেয়ের হাত ধরে বললেন, ” এই আমার কনে।” অমনি গণ্ডগোল শুরু হল, সব মেয়েরা ভয়ে পালাতে লাগল। ঈশ্বরচন্দ্র যার হাত ধরেছিলেন সে তো ভয়ে চিৎকার শুরু করে দিল। একজন বয়স্কা মহিলা এসে বললেন, ‘এই মেয়ে তোমার কনে নয়।’ ঈশ্বরচন্দ্র বলে উঠলেন, “যা-কে খুঁজে পেয়েছি তাকেই আমার সঙ্গে ঘর করতে হবে!”                  সেই মেয়েটি তখন ঈশ্বরের হাতে-পায়ে ধরে আসল কনে-কে খুঁজে দেবার প্রতিশ্রুতি দিল। তারপর ছাড়া পেয়েই  দীনময়ী-কে খুঁজে এনে দিল। পরিহাসের বদলে পরিহাস দিয়েই সেই কিশোর বয়সেই সমস্যা সমাধানের পথ নিজেই খুঁজে নিয়েছিলেন কৌতুকপ্রিয় বিদ্যাসাগর।

এবার আসি দ্বিতীয় ঘটনায় —

একজন সাবজজ- এর সঙ্গে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের দেখা হল অনেকদিন পর। কথায় কথায় তিনি জানতে পারলেন ওই সাবজজ- এর স্ত্রী মারা যাওয়ার কারণে বুড়োবয়সে তিনি দ্বিতীয়বার বিয়ে করেছেন। বিদ্যাসাগর তাঁকে বলে উঠলেন, “তবে তো তোমার স্বর্গের দোর একেবারেই খোলা হে!” সাবজজ সাহেব বিদ্যাসাগরকে কৌতূহলভরে জিজ্ঞেস করলেন- “সে কী রকম মশায়?” বিদ্যাসাগর বুঝিয়ে বললেন যে স্বর্গের দরজায় মরণের পর লোকের ভিড় বাড়তে থাকে। গেটের দরোয়ান পূণ্য অর্জনকারীদের স্বর্গে ঢুকতে দেয় আর পাপীদের নরকে পাঠায়। একবার একজন দরোয়ানের প্রশ্নের উত্তর ঠিকমতো দিতে না পারায় দরোয়ান তার পাপপূণ্যের পরিমাপ করতে পারছিল না। ঠিক সেই সময় স্বর্গের দরোয়ান তাঁকে প্রশ্ন করে জানতে পারল তিনি বুড়োবয়সে দ্বিতীয়বার বিয়ে করেছিলেন। দরোয়ান বলে উঠল- তুমি এখনই স্বর্গে ঢুকতে পারো। পৃথিবীতেই তোমার নরকভোগ হয়ে গেছে।”

এমনই কৌতুকপ্রিয় ছিলেন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর।

তথ্যসূত্র: 
১) বিদ্যাসাগরের জীবনীকার চণ্ডীচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা অবলম্বনে।
২) বিহারীলাল সরকারের বিদ্যাসাগর গ্রন্থ।

পীযূষ কান্তি সরকার
পীযূষ কান্তি সরকার
পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া শহরের ব্যাঁটরা থানা এলাকায় পীযূষ কান্তি সরকারের জন্ম ১৩৬৮ সালের ১৩ই বৈশাখ ( ২৭ এপ্রিল ১৯৬১ )। হাওড়ার কদমতলায় সাতপুরুষের ভিটে। বাবা রতন সরকার, মা বেবি সরকার-- উভয়েই প্রয়াত। মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং -এ ডিপ্লোমা প্রাপ্ত সাহিত্যিক নরেন্দ্রপুর রামকৃষ্ঞ মিশনের আইটিআই-এর শিক্ষক। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন পত্রিকায় তার লেখা কবিতা,গল্প, নিবন্ধ নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে। এ পর্যন্ত ২টি কবিতার বই -- 'জীবনের জানলায়' ও 'আলোর কলম' প্রকাশিত হয়েছে।
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।