রবিবার, ডিসেম্বর ৪, ২০২২

শেষ হলো শ্রীলঙ্কায় রাজাপাকসে পরিবারের আধিপত্য

প্রকাশিত:

শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্ট দেশটির প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছে। শুক্রবার তার পদত্যাগপত্র গ্রহণের মধ্যে দিয়ে শেষ হলো শ্রীলঙ্কার জাতীয় রাজনীতিতে সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজাপাকসে পরিবারের গত ২০ বছরের আধিপত্য।

তামিল বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দমন করে দেশবাসীর কাছে এক সময়ের তুমুল জনপ্রিয় এই পরিবারের বিদায় সম্পর্কে বিবিসিকে নিশ্চিত করেছেন শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্টের স্পিকার মাহিন্দা ইয়াপা আবেবর্ধনা। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার স্পিকারের দপ্তরে পৌঁছানো গোতাবায়া রাজাপাকসের পদত্যাগপত্র পার্লামেন্ট সদস্যদের উপস্থিতিতে শুক্রবার গ্রহণ করা হয়েছে।

স্পিকার আরও জানান, সংবিধান অনুযায়ী এখন পার্লামেন্ট সদস্যরা নিজেদের মধ্যে ঐকমত্যের ভিত্তিতে একটি সর্বদলীয় সরকার গঠন করবেন। সেই সরকারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হবে আগামী ২০ জুলাই। ততদিন পর্যন্ত ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট থাকবেন দেশটির বর্তমান প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে।

তবে শ্রীলঙ্কার একাধিক রাজনৈতিক সূত্র জানিয়েছে, আসন্ন সর্বদলীয় সরকারেও প্রেসিডেন্ট পদে রনিল বিক্রমাসিংহের থাকা প্রায় নিশ্চিত।

১৯৪৮ সালে ব্রিটিশ শাসন থেকে স্বাধীনতা লাভের স্মরণকালের ভয়াবহ অর্থসংকটে পড়া শ্রীলঙ্কায় বর্তমানে বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ বলতে কিছুই নেই। ফলে খাদ্য, ওষুধ, জ্বালানির মতো অতি জরুরি পণ্যও আমদানি করতে পারছে না দেশটি।

চলতি বছর মার্চ থেকেই প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে এবং তার বড়ভাই ও প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন শ্রীলঙ্কার বিক্ষোভকারীরা। আন্দোলনের চাপে গত মে মাসে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন মাহিন্দা রাজাপাকসে। বর্তমানে দেশটির ত্রিকোনমালি শহরে নৌবাহিনীর ঘাঁটিতে সপরিবারে অবস্থান করছেন তিনি।

বড়ভাইয়ের পদত্যাগ করলেও এতদিন গোতাবায়া তার পদ আঁকড়ে ছিলেন। কিন্তু জনবিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় গত ৯ জুলাই আত্মগোপন করেন তিনি, তারপর ১৩ জুলাই গোপনে সামরিক বাহিনীর বিমানে প্রতিবেশী দেশ মালদ্বীপে পৌঁছান। বর্তমানে তিনি সিঙ্গাপুরে আছেন।

তবে সিঙ্গাপুরে তার রাজনৈতিক আশ্রয় লাভের সম্ভাবনা কম। কারণ প্রথমত, তিনি সিঙ্গাপুরে আশ্রয়ের জন্য আবেদন করেননি এবং দ্বিতীয়ত— সিঙ্গাপুর সাধারণত রাজনৈতিক আশ্রয় বিষয়ক কোনো আবেদন গ্রহণ করে না বলে জানিয়েছে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এদিকে, প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসের বিদায়ে উৎফুল্ল শ্রীলঙ্কার আন্দোলনকারী জনগণ। বৃহস্পতিবার রাত থকেই রাজধানী কলম্বো সহ দেশটির প্রায় সব শহরের সড়কে আনন্দমিছিল বের করেন তারা।

বিক্ষোভকারীদের অন্যতম নেতা ভিরাগা পেরেরা বিবিসিকে বলেন, ‘(গোতাবায়ার বিদায়ে) আমরা যে কত খুশি, তা বলে বোঝানোর ভাষা নেই। এখন থেকে আবার স্বাভাবিক জীবনে ফেরার যাত্রা শুরু হবে।’

তবে বিক্ষোভকারীদের এই উল্লাসে বাধ সেধেছে শ্রীলঙ্কার সরকারের জারি করা কারফিউ। দেশের শৃঙ্খলা ফেরাতে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টা থেকে শুক্রবার কারফিউ জারি করা হয়েছে দেশটিতে।

Subscribe

সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

সংবাদ
সম্পর্কিত

দেউলিয়া হওয়ার ঝুঁকিতে বিশ্বের ৫৪ দেশ

বিশ্বের ৫০টিরও বেশি উন্নয়নশীল দেশ ঋণ খেলাপির ঝুঁকিতে আছে...

ওমিক্রন ছড়িয়েছে ৩৮ টি দেশে, নেই মৃত্যুর খবর

মহামারি করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন ইতিমধ্যে বিশ্বের ৩৮টি দেশে...

নাইজেরিয়ায় কৃষক ও পশুপালকদের মধ্যে সহিংসতায় নিহত ৪৫

নাইজেরিয়ার কেন্দ্রীয় নাসারাওয়া রাজ্যে কৃষক ও পশুপালকদের মধ্যে সহিংসতায়...

যে গ্রামের লোকেদের নুন ছাড়া কিনতে হয় না কিছুই

মধ্যপ্রদেশের ছান্দিওয়াড়া জেলার সতপুড়া পার্বত্য এলাকাতেই রয়েছে আদিবাসীদের গ্রাম---...
লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।