মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২

বাংলাদেশ: মন্ত্রণালয়-দপ্তরের কাছে বিদ্যুৎ বিভাগের পাওনা ১,৮৯৩ কোটি টাকা

প্রকাশিত:

২০২২ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তর থেকে বিদ্যুৎ বিল বাবদ ১,৮৯৩ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিভাগ পাবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। তিনি বলেন, “দৈনিক গড়ে ২,৩০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উৎপাদনের কথা বিবেচনা করলে বাকি গ্যাস প্রায় ১১ বছর (১০ বছর ৮ মাস) ব্যবহার করা সম্ভব হবে।”

মঙ্গলবার (১ নভেম্বর) জাতীয় সংসদে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মো. মোজাফফর হোসেনের এক প্রশ্নের জবাবে এসব তথ্য জানান বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী।

হামিদ জানান, বিদ্যুৎ বিভাগ স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে সর্বোচ্চ ৯০৫.২১ কোটি টাকা এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় থেকে ৩৯৫.৬৮ কোটি টাকা পাবে।

তিনি বলেন, “তদারকি জোরদার ও মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়নের মাধ্যমে বিগত কয়েক বছরে বকেয়া বিদ্যুৎ বিলের পরিমাণ কমানো সম্ভব হয়েছে।”

তিনি আরও বলেন, “বিদ্যুৎ বিলের বকেয়া কমাতে সকল গ্রাহককে প্রিপেইড/স্মার্ট মিটারের আওতায় আনা হচ্ছে।”

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য শহীদুজ্জামান সরকারের এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “সর্বশেষ (১ জুলাই, ২০২২) হিসাব অনুযায়ী দেশে প্রমাণিত ও সম্ভাব্য পুনরুদ্ধারযোগ্য গ্যাস মজুদের পরিমাণ ২৮.৫৯ ট্রিলিয়ন ঘনফুট।”

গ্যাস উৎপাদনের শুরু থেকে ২০২২ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত দেশে গ্যাসের ক্রমবর্ধমান পরিমাণ ১৯.৫৩ ট্রিলিয়ন ঘনফুট। বর্তমানে অবশিষ্ট পুনরুদ্ধারযোগ্য মজুদ ৯.০৬ ট্রিলিয়ন ঘনফুট। গ্যাসক্ষেত্র থেকে বর্তমান গড় দৈনিক ২৩০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের উৎপাদন বিবেচনা করলে অবশিষ্ট গ্যাস ১০ বছর ৮ মাস (প্রায় ১১ বছর) ব্যবহার করা সম্ভব হবে।

তিনি আরও বলেন, “দৈনিক হারে গ্যাস উৎপাদন হ্রাস পেলে এবং নতুন গ্যাসক্ষেত্র উদ্ভাবনের পর গ্যাস উৎপাদন বাড়ানো হলে উল্লিখিত সময় বাড়ানো বা কমানো যেতে পারে।”

অপর এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “যেহেতু বাংলাদেশে এলপিজি আমদানি করতে হয়, সেহেতু আন্তর্জাতিক বাজারে দাম না কমলে সরকারি ভর্তুকি ছাড়া অভ্যন্তরীণ বাজারে এলপিজির দাম কমানোর কোনো সুযোগ নেই।”

নিজাম উদ্দিন হাজারীর প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “২০০৯-১০ থেকে ২০২১-২২ অর্থবছর পর্যন্ত বিদ্যুৎ খাতে ২৮.৩ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করা হয়েছে। এর মধ্যে বিদ্যুতের জন্য বেসরকারি খাতে ৯.৭৩ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করা হয়েছে।”

জাতীয় পার্টির রুস্তম আলী ফরাজীর প্রশ্নের জবাবে হামিদ বলেন, “ডিজেল বিক্রি করে বিপিসি প্রতি লিটারে ২১ টাকা লোকসান করছে।”

দেশব্যাপী চলমান লোডশেডিং নিয়ে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে হামিদ বলেন, “রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের পর বিশ্বব্যাপী জ্বালানি সংকটের কারণে বাংলাদেশ বিদ্যুতের সাশ্রয়ী ব্যবহার এবং পরিকল্পিত লোডশেডিংয়ের মাধ্যমে জ্বালানি সংকট কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করছে।”

তিনি বলেন, “পরিকল্পনা অনুযায়ী নতুন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোকে গ্রিডে যুক্ত করা হবে এবং বিদ্যুতের সাশ্রয়ী ব্যবহার নিশ্চিত করে দ্রুত সংকট কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে।”

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে ব্যাপক লুটপাট, দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার কথা বলে সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র সমালোচনা করেন বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ।

হারুন প্রস্তাব করেন, “স্পিকার এ বিষয়ে সংসদে আলোচনার ব্যবস্থা করবেন।”

জবাবে হামিদ বিগত বিএনপি-জামায়াত সরকারের বিদ্যুৎ খাতে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে হারুনের সমালোচনা করেন।

Subscribe

সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

সংবাদ
সম্পর্কিত

ফুটবল বিশ্বকাপ: এমবাপ্পের জোড়া গোলে শেষ আটে ফ্রান্স

পোল্যান্ডকে ৩-১ গোলে হারিয়ে কাতার বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে...

রুশ তেলের মূল্য নিয়ে মুখোমুখি পশ্চিমা-রাশিয়া

ইউক্রেনে ৯ মাস ধরে চলমান যুদ্ধের রুশ তেল নিয়ে...

ইরানে ৩ দিনের ধর্মঘটের ডাক বিক্ষোভকারীদের

ইরানে সোমবার থেকে তিন দিনের ধর্মঘট কর্মসূচি পালনে ঘোষণা...

ফুটবল বিশ্বকাপ: টাইব্রেকে জয় ক্রোয়েশিয়ার, কান্নার বিদায় জাপানের

বিশ্বকাপের রাউন্ড অফ সিক্সটিনে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের প্রথমার্ধেই সামুরাই...
লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।