13.1 C
Drøbak
বুধবার, অক্টোবর ২০, ২০২১
প্রথম পাতামুক্ত সাহিত্যকবিতাকবি সিদ্ধার্থ সিংহের ছ'টি কবিতা

কবি সিদ্ধার্থ সিংহের ছ’টি কবিতা

রাবণ জানতেন

যতই গণ্ডি কেটে দিয়ে যাক লক্ষ্মণেরা
আমি ঠিক তার বাইরে বের করে আনব তোমাকে
দু’বাহুতে বন্দি করে রাখব।

সূর্পণখার নাক কেটে দিয়েছে দেখে
রাবণ সীতাকে হরণ করেননি
তিনি ভাল করেই জানতেন
ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোনও নারীকে ছুঁলেই
তাঁর ন’টা মুণ্ডুই তৎক্ষণাৎ খসে যাবে।
ফলে আপনারা যা ভাবছেন, সে মতলবেও নয়,
রাবণ জানতেন
সীতা আসলে লক্ষ্মী
লক্ষ্মীকে নিজের রাজ্যে রাখতে পারলে
ধন-সম্পদ-শস্যে উপচে পড়বে দেশ
তাই শুধুমাত্র প্রজাদের মঙ্গলের জন্যই
তিনি সীতাকে হরণ করেছিলেন।

যতই গণ্ডি কেটে দিয়ে যাক লক্ষ্মণেরা
আমি তার বাইরে ঠিক বের করে আনব তোমাকে
দু’বাহুতে বন্দি করে রাখব।
আমার ঘর নিষ্প্রদীপ, মলিন
তুমি থাকলে ঝলমল করে উঠবে ঘর
এবং দুয়ার।

টোকা

দরজা না হয় না-ই খুললে জানালাটা তো খুলবে
পৃথিবী তোমাকে এত ভালবেসে নিয়ে এসেছে
তুমি তাকে একটুও আদর করবে না!
যে ভালবাসতে জানে না
সে কখনও কচুরিপানায় রঙের বাহার দেখতে পারে না
যে ভালবাসতে জানে না
তার কোলে কখনও কোনও শিশু খিলখিল করে হাসে না
আকাশের বুকে মেঘের লুকোচুরি তার নজরে পড়ে না
পাখিদের সঙ্গে সে কথা বলতে পারে না
ঝর্নার তান তার শরীরে কোনও দোলা জাগায় না
কচি কচি ঘাস তাকে ইশারায় ডাকে না
যে ভালবাসতে জানে না
তার সঙ্গে তার ছায়াও হাঁটে না।

পৃথিবী এত ভালবেসে তোমাকে নিয়ে এসেছে
দরজা না হয় না-ই খুললে জানালাটা তো খুলবে।
সব সময় কি আর ডাকাত টোকা মারে?
মাঝে মাঝে মুশাফিরও আসে
কখন কোন বালক তোমার বইয়ের ব্যাগে একটা চিরকুট রেখে গেছে
তুমি তা না দেখেই ফেলে দিচ্ছ!

বর্ষাদিন

আমাকে দেখলে ও ভাবে মুখ ফিরিয়ে নাও কেন?

আকাশে রামধনু উঠলে সবাই হাঁ করে তাকিয়ে থাকে
রামধনু কাউকে বলে না—
তাকিয়ে আছ কেন গো?
পুকুরে থোকা-থোকা কচুরিপানা ফুটলে
তার ছটা সকলের নজর কাড়ে
কেউ করে পা ডুবিয়ে জল থেকে তুলে আনে একটা-দুটো,র
কাউকে অপছন্দ হলেও
একটু তফাতে সরে গিয়ে কখনও কচুরিপানা বলে না—
আমাকে একদম ছোঁবে না।
ঝলসে যাওয়া পৃথিবীতে যখন ঝিরঝির করে বর্ষা নামে
সবাই ঘর থেকে বেরিয়ে পড়ে
বর্ষা কাউকে বিমুখ করে না।

তুমি স্কুলবাসে যাও, আসো
মাঝে মাঝেই দাঁড়াও ঝুল-বারান্দায়
আমাকে দেখলে ও ভাবে মুখ ফিরিয়ে নাও কেন?

অভিমন্যু

অভিমন্যু, তুমি অনায়াসে ওদের কব্জা করতে পারতে
জন্মানোর আগেই তো যুদ্ধে জেতার সব কৌশল
তোমার জানা হয়ে গিয়েছিল
শুধু চক্রব্যূহ থেকে বেরোনোর পথ ছাড়া
তাই সাত-সাতজন অশ্বারোহী…

তুমি তখন একা ছিলে
এখন এখানে আমরা প্রত্যেকেই এক-একজন অভিমন্যু
মাকে বউকে ছেলেকে ছক কষে দিচ্ছে
উঠোনে আলাদা আলাদা খুপরি তুলে থাকার
চোখ বেঁধে দিয়ে যে যেমন পারছে খোবলাচ্ছে
ঘোর অমাবস্যায় করছে যাগযজ্ঞ, তুকতাক।

এই চক্রব্যূহ থেকে বেরোনোর মন্ত্র আমরাও জানি না অভিমন্যু
সাত নয়, সাতশো অশ্বারোহীর সঙ্গে আমরা লড়াই করছি সারাক্ষণ
আমাদের কথা কি কেউ একটা পোস্টকার্ডেও লিখবে না।

সাক্ষী আছে

আপনার সঙ্গে আমার কত নিবিড় মাখামাখি
সে সবের সাক্ষী আছে আপনাদের খসে খসে পড়া বাড়ির
পুরনো ইট, কড়িবরগা, দেওয়াল ফুঁড়ে বেরিয়ে আসা বট-অশ্বত্থ
সাক্ষী আছে— জানালা দিয়ে উঁকি মারা ঝিকিমিকি তারা
ভোরের নরম আলো
সাক্ষী আছে— শান্তিনিকেতনের সেই হোটেলের বিছানা।
দু’জন দু’জনকে রাঙিয়ে দেওয়া আবির
সুন্দরবনের সেই দু’রাত তিন দিনের ট্যুর
সাক্ষী আছে— কলেজ স্ট্রিটের আদি মোহিনীমোহন কাঞ্জিলাল
নন্দন চত্বর, চার চাকার লুকিং গ্লাস
সাক্ষী আছে— দক্ষিণেশ্বর
ম্যান্ডেভিলা গার্ডেন্সের সুনীলদার বাড়ির লিফট
দিঘার আছড়ে পড়া এক-একটা ঢেউ
সাক্ষী আছে, সাক্ষী আছে, সাক্ষী আছে।

ওরা দেখেছে, এগুলো আপনার সঙ্গে বারবার ঘটেছে, বারবার
শুধু আমার জায়গায় ও
ও-র জায়গায় সে
আর সে-র জায়গায় অন্য কেউ
অন্য কেউ
অন্য কেউ…

শিক্ষা

ক্লাস টু-এ উঠেই ছেলে বলল, পৃথিবীর তিন ভাগ জল
বাবা, তুমি আমাকে সাঁতারে ভর্তি করে দাও।
দিলাম।

চোদ্দো পেরোতে না-পেরোতেই মেয়ে বলল,
বাবা, রাস্তাঘাটের ছেলেরা যা হয়েছে
আমি কুংফু-ক্যারাটে শিখব।
বললাম, শেখো।

বাজারে সেরে এসে বউ বলল, জিনিসপত্রের যা দাম
ভাবছি, উঠোনের ও দিকটায় সবজি লাগাব।
আমি বললাম, লাগাও।

ছেলে সাঁতার শেখে
মেয়ে কুংফু-ক্যারাটে
আর বউ সবজি ফলায়।

সন্ধেবেলায় মায়ের মহাভারত পাঠ শুনতে শুনতে
হঠাৎ মনে হল, গোটা দেশটাই কুরুক্ষেত্র, গোটা পৃথিবীটাই…

কিন্তু এই বয়সে আমি কি আর যুদ্ধের তালিম নিতে পারব!

সিদ্ধার্থ সিংহ
সিদ্ধার্থ সিংহ
২০২০ সালে 'সাহিত্য সম্রাট' উপাধিতে সম্মানিত এবং ২০১২ সালে 'বঙ্গ শিরোমণি' সম্মানে ভূষিত সিদ্ধার্থ সিংহের জন্ম কলকাতায়। আনন্দবাজার পত্রিকার পশ্চিমবঙ্গ শিশু সাহিত্য সংসদ পুরস্কার, স্বর্ণকলম পুরস্কার, সময়ের শব্দ আন্তরিক কলম, শান্তিরত্ন পুরস্কার, কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত পুরস্কার, কাঞ্চন সাহিত্য পুরস্কার, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা লোক সাহিত্য পুরস্কার, প্রসাদ পুরস্কার, সামসুল হক পুরস্কার, সুচিত্রা ভট্টাচার্য স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার, অণু সাহিত্য পুরস্কার, কাস্তেকবি দিনেশ দাস স্মৃতি পুরস্কার, শিলালিপি সাহিত্য পুরস্কার, চেখ সাহিত্য পুরস্কার, মায়া সেন স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার ছাড়াও ছোট-বড় অজস্র পুরস্কার ও সম্মাননা। পেয়েছেন ১৪০৬ সালের 'শ্রেষ্ঠ কবি' এবং ১৪১৮ সালের 'শ্রেষ্ঠ গল্পকার'-এর শিরোপা সহ অসংখ্য পুরস্কার। এছাড়াও আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত তাঁর 'পঞ্চাশটি গল্প' গ্রন্থটির জন্য তাঁর নাম সম্প্রতি 'সৃজনী ভারত সাহিত্য পুরস্কার' প্রাপক হিসেবে ঘোষিত হয়েছে।
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।