23.8 C
Drøbak
রবিবার, জুলাই ২৫, ২০২১
প্রথম পাতাএক্সক্লুসিভএভাবেও ভাল থাকা যায় (১৫তম পর্ব)

এভাবেও ভাল থাকা যায় (১৫তম পর্ব)

প্রেম ভালোবাসা দাম্পত্য

একটা গোটা উপন্যাস না পড়লে যেমন চরিত্রগুলো বা ঘটনার বিষয় সম্পর্কে সম্যক ধারণা অর্জন করা যায় না, অজানা থেকে যায় অনেক কিছু; তেমন-ই একটা মানুষ মানেও একটা গোটা উপন্যাস। কাউকে ভালোবাসলে তাঁর গোটাটা মানে তাঁর সবটাকেই ভালোবাসতে হবে; তাঁকে ভালোভাবে বুঝতে হবে, জানতে হবে, পড়তে হবে। নইলে সেটা ভালোবাসা নয়, সেই সম্পর্ক বন্ধুত্ব বা প্রেম যাই হোক।

ফোন বা মেসেজ বা দেখাটাই বন্ধুত্ব বা প্রেমের চাবিকাঠি হতে পারে না। একটা কথা ভাবলে অবাক লাগে ! পৃথিবীতে কতো মানুষ। তাঁরা প্রত্যেকে দেখতে আলাদা আলাদা। ভাবলে অবাক লাগে এই আলাদা আলাদা মুখগুলোকে নিয়ে। পাশাপাশি তখন একটা ভাবনা মনের মধ্যে এসেই যায়, এই মুখগুলোকে কখনোই একরকম করা যাবে না । বাইরের রূপকে যদি একরকম করা না যায়, তাহলে প্রত্যেকের ভেতরের চেহারাটা এক হতে যাবে কেন? প্রত্যেকের বাইরের চেহারার মতো ভেতরের চেহারাও ঠিক আলাদা। আর এটাই স্বাভাবিক। আসলে কাউকে ভালোবাসলে অনেকক্ষেত্রেই মনে হয় সে আমার মতোই হোক; আমার ভাবনার সাথে তাঁর ভাবনার জায়গাটা মিশেমিশে একাকার হয়ে যাক। আর না হলেই সংঘাত। মনে হয় এই বুঝি সে আমার থেকে দূরে চলে গেল। এই বুঝি সে পালটে গেল।

একটা মন অন্য একটা মনের দাসত্বকে মেনে নেবে কেন? প্রতিটি মানুষের ভাবনা আলাদা। জীবন বোধ আলাদা। হ্যাঁ অনেক কিছু আবার নিজের থেকেই মিলে যায়। দুজন মানুষের মনের ভাবনা আলাদা থেকেও কিন্তু পরস্পরের ভাবনার জায়গাটাকে সম্মান করা উচিত। আমি আস্তিক, সে নাস্তিক হলে আমার অসুবিধে কোথায়; হ্যাঁ অসুবিধে সেখানেই যদি সে আমার ভাবনার জায়গাটাকে বা আমার বিশ্বাসকে আঘাত করে।

কেউ গান শুনতে ভালোবাসে। কেউ কবিতা শুনতে ভালোবাসে। কেউ ফুটবল খেলা দেখতে ভালোবাসে; কেউ আবার বাগান করতে ভালোবাসে।
এক্ষেত্রে একজন কবিতা ভালোবাসে বলেই তার প্রিয় মানুষটিকে কবিতা ভালোবাসতে হবে এমন কোনো কথা নেই কিন্তু। কেউ গল্প লেখে বা উপন্যাস লেখে কিম্বা কেউ প্রচন্ড বই পড়তে ভালোবাসে, এবারে যদি সে ভাবে তার কাছের মানুষটিকেও তার মতো হতে হবে, তাহলে কিন্তু একদম ভুল করবে সে। নিজের মনকে অন্য একটা মন চালনা করতে পারেনা কিছুতেই। প্রতিটি মানুষ অন্তত তার মনের দিক থেকে রাজা। তবে একসাথে থাকতে থাকতে অনেক সময়ই কিছু না ভালোলাগা জিনিসও ভালো লেগে যায়।
প্রেম শব্দটি অনেক গভীর। মুহূর্তগুলোকে এক জায়গায় জড়ো করে তবেই ভালোলাগা। শুধু ভালোলাগা নয়; তাঁকে ভালোবাসা-যত্ন করা-শ্রদ্ধা করা-সেবা করা পরিশেষে বিশ্বাস। তার চেয়েও নিজেকে বিশ্বাস; হ্যাঁ আত্মবিশ্বাস। যেখানেই থাকো, যে পরিস্থিতিতেই থাকো; আমি আছি। আমি তোমাকে ভালোবাসি; তোমার কাজকে সম্মান করি; তোমাকে শ্রদ্ধা করি। তোমার ভাল চাই। তোমার সব কিছুতেই আমি তোমার পাশে আছি।
হিংসা-প্রতিযোগিতা-অহংকার প্রেমকে নিয়ে যায় অন্ধকারে; মুছে যায় তখন বন্ধুত্ব, ভালোবাসা বা দাম্পত্য জীবন বরং একটা শক্ত মুঠো হাতের মুঠো অনেক কিছুই বুঝিয়ে দেয়; সেই স্পর্শ যেন বলে, “আমি আছি, আমি আছি তো।” ব্যাস তখন আর কিচ্ছু চায় না এই মন। তখন কি মনে হয় না ” আমি তোমার ” এই কথাটি বলার আর কোনো প্রয়োজন আছে ?

ভালোবাসা এমন একটি অনুভূতি যার অনুভূতি পৃথিবীর যে কোনো অনুভূতির চেয়ে আলাদা। ভালোবাসা দিয়েই একজনকে নিজের করা যায়। সম্পর্কের মধ্যে যদি প্রেম না থাকে তবে সে সম্পর্কের কোনও অর্থই হয় না। প্রেম প্রতিটি সম্পর্কের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যেখানে প্রেম থাকবে না, সেখানে সুখ নেই, সেখানে থাকে না শান্তির বাতাবরণ। মনের এই সুখ বা শান্তি আমাদের মানসিক চাপকে অনেকটাই নির্মূল করে দেয়। একাকীত্বের অনুভব অনেকের জীবনকে কষ্টে ভরে তোলে। তাই একাকীত্ব থেকে মুক্ত ব্যক্তি সহজেই জীবনে সাফল্য অর্জন করে।
প্রেমের ভিত্তিতে যে সম্পর্ক তৈরি হয় তার অনুভূতিই আলাদা, সেই আনন্দ কাউকেই বোঝানো যায় না, সেই অনুভূতির কোনো ব্যাখ্যা হয় না। এই সম্পর্ক অত্যন্ত মূল্যবান। এমন পরিস্থিতিতে যখন লোভ-লালসা সম্পর্কের মধ্যে একটু একটু করে জায়গা করে নেয়, তখনই সম্পর্কের সৌন্দর্য, সম্পর্কের অনুভূতি কোথায় যেন হারিয়ে যায়। নষ্ট হয় যায় তার আবেগ। অতএব, যেখানে প্রেম আছে সেখানে লোভ থাকবে না। যদি লোভ থাকে তাহলে সেটি প্রেম নয় ।
প্রেমে বিশ্বাস হলো আসল সম্পদ। এই সম্পদ যেন সারাজীবন ঠিক থাকে, কোনো অবস্থাতেই যেন ভেঙে না যায়। ভালবাসার পবিত্র সম্পর্ক বিশ্বাসের উপর নির্ভর করে। বিশ্বাসের অভাব দেখা দিলে প্রেম অদৃশ্য হতে শুরু করে। এই পরিস্থিতি কখনও সম্পর্কের মধ্যে আসা উচিত নয়। একে অপরের প্রতি পূর্ণ বিশ্বাস হ’ল ভালবাসার প্রথম শর্ত। আর এই বিশ্বাস আনুগত্যের দ্বারা জন্মগ্রহণ করে। সুতরাং, এই জিনিসটি কখনই সম্পর্কে কম পড়তে দেওয়া উচিত নয়।
পাশাপাশি একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই শ্রদ্ধা যখন কমতে শুরু করে তখন ভালবাসাও কোথায় যেন ম্লান হয়ে যায়। প্রতিটি সম্পর্ককে সঠিক মর্যাদা দেওয়া উচিত। প্রেম যত গভীর হয়, সম্পর্কের মর্যাদাও তখন বাড়তে থাকে। একে সবসময়ই যত্ন নেওয়া উচিত। দাম্পত্যে বা প্রতিদিনের যাপনে এই প্রেমের অবদান অপরিসীম।

প্রেম হল ঢেউ এর ওপর ঢেউ; নীল ঢেউ। মোলায়েম, তুলতুলে এক ভালোলাগা; যাকে ওর মতো করে ভাসতে দেওয়া উচিত; কোনো কিছুই চাপিয়ে দিতে নেই।

(চলবে)

মণিজিঞ্জির সান্যাল
মণিজিঞ্জির সান্যাল
কবি, লেখক ও নৃত্যশিল্পী। শিলিগুড়ি, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত।
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।