-6.1 C
Drøbak
শনিবার, ডিসেম্বর ৪, ২০২১
প্রথম পাতামুক্ত সাহিত্যএভাবেও ভাল থাকা যায় (১২তম পর্ব)

এভাবেও ভাল থাকা যায় (১২তম পর্ব)

সত্যিকারের বন্ধু কি আছে আপনার জীবনে?

আপনার জীবনে সত্যিই কি ভাল বন্ধু আছে? কিম্বা যদি বলা যায় একজন সত্যিকারের বন্ধু? কখনো মনকে প্রশ্ন করেছেন কি সত্যিকারের বন্ধু বলতে কি বোঝায় বা কাকে বলে বন্ধু। আমরা ভাবি আমাদের চারপাশে কতো বন্ধু, কতো আপনজন। সত্যিই কি তারা বন্ধু? বন্ধু আর পরিচিত কিন্তু এক নয়। বন্ধুই মানেই পরিচিত কেউ, কিন্তু পরিচিত মানেই কিন্তু বন্ধু নয়। বন্ধু শব্দের ব্যাপ্তি অনেক। বন্ধু মানেই ঐ একটা হাত, যেই হাতটাকে ইচ্ছে করলেই পাওয়া যাবে যখন তখন। বন্ধু মানেই হঠাৎ সামনে এসে বলবে ভীষণ ক্ষিদে পেয়েছে রে, কিছু খাওয়া তো। বন্ধু মানেই যাকে সব কথা প্রাণ খুলে বলা যায়। জীবনে এমন বন্ধু থাকলে তার মতো সুখী আর কেউ নেই। প্রতিটি সম্পর্কের মধ্যেই বন্ধুত্ব খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বন্ধুহীন মানুষ খুবই কম রয়েছে। প্রত্যেকের জীবনেই বন্ধু থাকে। কিন্তু তারা কি সত্যিই বন্ধু?

কথায় আছে সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস। আর অসৎ সঙ্গে নরকবাস। ভালো বন্ধু জীবনে থাকলে, জীবনটা অনেক মসৃণ হয়। অসময়ে তার হাতটা অনেক অনেক মূল্যবান। ‘একজন ভাল বন্ধু অনেকগুলো বইয়ের সমান।’ বিখ্যাত মানুষদের এই উক্তি নিজের জীবন দিয়ে প্রমাণ করা যায়।
সত্যিকারের বন্ধু অসময়ে অনেক উপকার করে। আর যে বন্ধু হয়েও বন্ধু নয়, সে শুধু জীবনে সমস্যা তৈরি করে। এধরনের বন্ধুর জন্য অনেক সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। এই খারাপ বন্ধুকে চিনে রাখুন আর তাদের থেকে এড়িয়ে চলুন।
একজন বন্ধু যখন বন্ধুর ভাণ করে কিন্তু আসলে সে বন্ধুই নয়। এমন ধরনের বন্ধু থেকে দূরে থাকাই ভাল। কারণ –

১) এরকম বন্ধুত্ব মানসিক চাপের কারণ হতে পারে।
২) মনে হতে পারে আপনার উপর জোর করে চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে।
৩) এরকম বন্ধুর কারণে আপনার সময় নষ্ট হতে পারে।
৪) আপনি হয়তো এরকম বন্ধুর কারণে অনেকবার আশাহত হয়েছেন বা আবারও হবেন।
৫) আপনি হয়তো তাকে বন্ধু মনে করছেন, তাকে নিয়ে অনেক কিছু ভাবছেন কিন্তু সবটাই একতরফা বন্ধুত্ব নয়তো?
৬) এরকম বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে বেশিরভাগই থাকে হিংসা।
৭) এরকম বন্ধুত্বে থাকে ভালোবাসার নাটক।

বন্ধু মানেই সুখে-দুঃখে সমান্তরালে পথচলা। বন্ধু মানেই নিঃস্বার্থ বন্ধন। কিন্তু আসলেই কি তাই? আসলেই কি সবাই প্রকৃত বন্ধু? সুসময়ে অনেকেই বন্ধু হয় কিন্তু অসময়ে কারও নয়, এমনটা হলে সে কি করে আপনার বন্ধু হয় বলুন তো? সুসময়ে যারা সাময়িক বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে দুঃসময়ে তারাই সবার আগে দূরে সরে যায়। কিন্তু জীবনে সঠিক পথে উন্নতির পথে এগোতে হলে প্রকৃত মানুষ চিনতে হবে। চিনতে হবে সত্যিকারের বন্ধুটিকেও। যেন শুধু সুসময়েই নয়, অসময়ে সবচেয়ে বেশি কাছে বা পাশে পাওয়া যায়। তেমন বন্ধুকে আজীবন যত্নে লালন করা উচিত। আসলে মানুষের মন বোঝা সত্যিই খুব কঠিন কাজ। কারো মনকে তো আর দেখতে পাওয়া যায় না। মনের ভেতরে কি আছে তা বোঝা সত্যিই অসাধ্য। তবে কিছু বিষয় দিয়ে একজন ব্যক্তিকে কিছুটা মূল্যায়ন করা যায়। যেমন –

১. বন্ধুদের মধ্যে গল্প, আড্ডা, মজা থাকেই। কিন্তু প্রকৃত বন্ধু কখনও অন্যের সামনে আপনাকে ছোট করবে না, এমন কোনও কথা বলবে না যা আপনার আত্মসম্মানে লাগে, সত্যিই সে এমন কিছু কখনও করবে না।
২. ধরুন রেস্তোরাঁয় খেতে যাচ্ছেন কিংবা সিনেমা দেখতে যাচ্ছেন, এসময় প্রচুর বন্ধুরা কিন্তু পাশে বেশি বেশি ভিড় করে। কিন্তু প্রকৃত বন্ধুর এসবের প্রতি কৃত্রিম কোনও মোহই থাকে না।
৩. কোনও একটি বিষয়ে আপনি দারুণভাবে সফল হয়েছেন। কিন্তু যদি দেখেন আপনার বন্ধুর মধ্যে উল্লাস উচ্ছ্বাস নেই, উল্টো প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে বা একদম চুপ হয়ে গেছে তখন বুঝতে হবে সে আপনার আসল বন্ধুই নয়।
৪. প্রকৃত বন্ধু কখনও কারণে-অকারণে বন্ধুর ভুল ধরে না। কিন্তু সুসময়ের বন্ধুরা বন্ধুর ভাবনা-চিন্তা, মতামত সব কিছুর মধ্যেই কোনও না কোনও ভুল ধরতে ব্যস্ত থাকে।
৫. সত্যিকারের বন্ধু বিপদের সময় সামনে থেকে বন্ধুর হয়ে কথা বলেন। তাকে বিপদমুক্ত করতে সবরকম ভাবে চেষ্টা করে যান। কিন্তু যেদিন আপনার বিপদ সেদিন যদি সে অজুহাত দিয়ে দূরে সরে থাকে কিংবা গা-ছাড়া ভাব ধরে তবে মনে রাখতে হবে সে আপনার প্রকৃত বন্ধু নয়।

এবারে আপনি বুঝে নিন কে আপনার জীবনের সত্যিকারের বন্ধু, আর কে নয়? এবারে আপনি নিজেই সিদ্ধান্তে আসুন তাকে জীবনে ঠিক কিভাবে গ্রহণ করবেন বা কতটুকু জায়গা দেবেন।

(চলবে)

মণিজিঞ্জির সান্যাল
মণিজিঞ্জির সান্যাল
মণিজিঞ্জির সান্যাল, বাংলা সাহিত্যে এম.এ., ক্ল্যাসিক্যাল নৃত্য প্রভাকর; জন্মদিন: ২৯শে বৈশাখ, ইং ১৩ই মে; জন্মস্থান: ভারতবর্ষ, পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং জেলার শিলিগুড়ি। যে সব পত্র পত্রিকায় লিখেছেন: আনন্দবাজার, দেশ, সানন্দা, শুকতারা, কিশোর ভারতী, শিলাদিত্য, যুগ শঙ্খ, নন্দন, তথ্যকেন্দ্র, উত্তরবঙ্গ সংবাদ পত্রিকা, উত্তরের সারাদিন, স্টেটসম্যান, অন্যদিন পত্রিকা (বাংলাদেশ), এছাড়া অসংখ্য লিটিল ম্যাগাজিনে গল্প, উপন্যাস, কবিতা, ভ্রমণ কাহিনী প্রকাশিত হয়েছে। দেশের বাইরে কুয়েত, বাংলাদেশ, কানাডা, লন্ডন এমন অনেক বিদেশের পত্র পত্রিকায় নিয়মিত লেখা প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত বই: (১) একটুকু ছোঁয়া লাগে (কলকাতা থেকে প্রকাশিত) (২) স্বপ্নের পৃথিবী (কলকাতা থেকে প্রকাশিত) (৩) অতৃপ্ত আত্মার সঙ্গে (৪) সমুদ্র তোমার সঙ্গে (বাংলাদেশ থেকে প্রকাশিত) (৫) সম্পর্কের পরিচর্যা (বাংলাদেশ থেকে প্রকাশিত) (৬) কমলালেবুর রস নোনতা (কলকাতা থেকে প্রকাশিত) (৭) ভালোবাসার গোপন দরজা (৮) মাটির কাছাকাছি
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।