14.6 C
Drøbak
বৃহস্পতিবার, আগস্ট ৫, ২০২১
প্রথম পাতামুক্ত সাহিত্যএভাবেও ভাল থাকা যায় (১০ম পর্ব)

এভাবেও ভাল থাকা যায় (১০ম পর্ব)

অন্যের কাছে নিজের সমস্যার কথা বা দুর্বলতার কথা তুলে ধরার মধ্যে কোনো কৃতিত্ব নেই

জীবনে এমন কিছু বিষয় রয়েছে, যেগুলো নিয়ে কখনোই অন্যের সঙ্গে আলোচনা করা উচিত নয়। এর ফলে নিজের সম্মান শুধু নষ্ট হয় না, নিজের দুর্বলতার দিকটিও প্রকাশ পায় প্রতিনিয়ত। কিছু মানুষ রয়েছেন দুদিনের আলাপেই জীবনের সব ব্যক্তিগত বিষয়কে তুলে ধরেন অন্য একজনের কাছে। নিজের ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তের কথা অপরিচিত একজন মানুষকে কেন বলতে যাবেন? ব্যক্তিগত বা পারিবারিক চিত্রকে কখনোই তুলে ধরা উচিত নয় বাইরের কোনো মানুষের কাছে। এমন কিছু কথা আছে যেগুলো কোনো অবস্থাতেই কারো কাছে প্রকাশ করতে নেই। যেমন, নিজের পরিবারের কথা, নিজের জীবনের কিছু গল্প, বিশেষ করে কিছু হারানোর কথা কারো সঙ্গে আলোচনা না করাই ভাল। এমন কিছু বিষয় আছে যা নিয়ে আলোচনা করা মানেই নিজের কাছে নিজের ক্ষতি করা। বিশেষ করে পারিবারিক ভুল ত্রুটির গল্প কখনোই কারো সাথে আলোচনা করতে নেই। এতে আপনার পরিবারের ঐতিহ্য যেটুকুই আছে, তাকে অন্যের কাছে তুলে ধরা মানেই আপনার পরিবারের চিত্র বাইরের কোনো একজনের কাছে পরিস্কার হয়ে গেল, পক্ষান্তরে এতে নিজের পরিবারকেই কিন্তু ছোট করা হলো।

দ্বিতীয়ত, যদি আপনি প্রবল অর্থ সঙ্কটের মধ্যে দিয়ে যান, সেসব কথা নিজের মধ্যেই রাখুন। এই যে আপনি একজনের কাছে নিজের অভাবের কথা বলছেন, এতে আপনার কি লাভ হচ্ছে একবারও ভেবে দেখেছেন? আপনার আর্থিক সঙ্কটের কথা শোনার পর কেউ কি আপনাকে সাহায্য করবে? নিশ্চয়ই না, আপনার পাশে দাঁড়াবেও না, দাঁড়ালেও তা হবে কপটতা। আপনি তাহলে একজন সাহায্যপ্রার্থী। সমাজ কিন্তু এই ধরনের মানুষকে সম্মান জানায় না, সবসময়ই আপনাকে অপর জনের কাছে দয়ার প্রার্থী বা কৃপাপ্রাথী হয়ে থাকতে হবে। তাই আর্থিক সমস্যা নিয়ে কখনো কারো সঙ্গে আলোচনা করবেন না।

তৃতীয়ত, আমাদের মধ্যে কিছু মানুষ আছেন যারা প্রতিনিয়ত নিজের সমস্যার কথা একনাগাড়ে বলেই যান। হয়তো সত্যিই তার সমস্যা আছে কিন্তু মানুষকে না চিনে বা না জেনে তার কাছে নিজের কথা তুলে ধরার মধ্যে সত্যিই কোনো কৃতিত্ব আছে কি? সমস্যাটা আপনার, তাহলে সেই সমস্যার গল্প আর একজন শুনবে কেন? আর শুনলেই যে আপনার কোনো কাজে সে আসবে তাও নয়। ব্যক্তিগত সমস্যার কথা গোপন রাখাই উচিত। ব্যক্তিগত সমস্যার কথা সবাই জানলে আপনাকে নিয়ে আড়ালে আলোচনা করবে, উপহাস করবে। সবাই তা নিয়ে হাসি-ঠাট্টা করবে।

এরপরের বিষয়টি হলো, নিজের স্ত্রী বা স্বামীর চরিত্র নিয়ে আলোচনা। অত্যন্ত অশোভনীয় অন্যের কাছে নিজের স্ত্রী বা স্বামীর চরিত্র নিয়ে আলোচনা করা। এই বিষয়টি একেবারেই কাম্য নয়। যারা একটু নিজস্ব বুদ্ধি নিয়ে চলেন তারা কখনোই এমনটা করেন না। কিছু মানুষ নিজের স্ত্রীকে নিয়ে সবার সামনে এমন চর্চা করেন এবং এমন কিছু বলে ফেলেন, যা একেবারেই শোভনীয় নয়। যার পরিণতি ভয়ানক হতে পারে। পাশাপাশি নিজের স্বামীকে নিয়ে আলোচনাও খুবই বিসদৃশ।

পরিশেষে, আরো যে একটি বিষয় সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে তা হলো, কেউ যদি কখনো কোনো দুর্বল মানুষ বা অবহেলিতদের থেকে অপমানিত হয়ে থাকেন, তাহলে সে কথা নিজের কাছে গোপন রাখাই ভাল। এই ঘটনার বহিঃপ্রকাশ যেকোনো ব্যক্তিকে হাস্যকর উপদানে পরিণত করতে পারে যা আত্মসম্মানে ধাক্কা বা আঘাত লাগার জন্যে যথেষ্ট।

(চলবে)

মণিজিঞ্জির সান্যাল
মণিজিঞ্জির সান্যাল
মণিজিঞ্জির সান্যাল একজন খ্যাতিমান কবি, লেখক ও নৃত্যশিল্পী, শিলিগুড়ি, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত। তিনি সাময়িকীর নিয়মিত লেখক।
অন্যান্য নিবন্ধসমূহ

সংবাদদাতা এবং লেখা আবশ্যক

নরওয়ে থেকে প্রকাশিত একমাত্র বাংলা পত্রিকা ‘সাময়িকী’ পত্রিকার জন্য বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে সংবাদদাতা আবশ্যক।
ভায়োলেট হালদার
প্রধান সম্পাদক
[email protected]

গল্প-কবিতা সহ বিবিধ সাহিত্য রচনা প্রসঙ্গে ইমেইল করুন।
লিটন রাকিব
সাহিত্য সম্পাদক
[email protected]

- বিজ্ঞাপন -

সর্বাধিক পঠিত

সদ্য প্রকাশিত

লেখা কপি করার অনুমতি নেই, লিংক শেয়ার করুন।