সাময়িকী.কম

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যারা মুসলমান হয়ে মুসলমানদের হত্যা করে, কিংবা মানুষ হত্যা করে, ইসলাম ধর্মকে কলুষিত করে, তারা মুসলমান হতে পারে না। এরা কোন ধর্মে বিশ্বাস করে? এদের কোনো ধর্ম নেই। ধর্মকে ব্যবহার করে যারা অপকর্ম করছে, তাদের রেহাই দেয়া হবে না।

শনিবার (৮ আগস্ট) ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ব্লগার হত্যাকাণ্ড ও জঙ্গি তৎপরতা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গোটা পৃথিবীতে জঙ্গিবাদী তৎপরতা চলছে। এখানেও মাঝেমধ্যে সেই ধাক্কাটা লাগে। বাংলাদেশে ধর্মের নামে রক্তপাত চলতে দেয়া যাবে না। সৌদি আরবের মসজিদে জুমার নামাজ পড়ার সময় বোমা হামলা করে মুসলমানদের হত্যা করা হয়েছে। এখানে আবার ধর্মের নামে ব্লগার হত্যা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, শিশু নির্যাতনকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা হবে। ইতোমধ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অপরাধী ধরতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, দেশের মানুষের অদ্ভুত চরিত্র। একজন মা-বাবা একটি শিশুকে কিভাবে নির্যাতন করে হত্যা করে? আমার বুঝে আসে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে মায়ের পেটে শিশু গুলিবিদ্ধ হচ্ছে। ১৫ আগস্টও মায়ের পেটের শিশুকে গুলি করে হত্যা করেছে ঘাতকরা। সেই বিচার আমরা দেরিতে হলেও করেছি। কিন্তু একটি পক্ষ বিচারে বাধা দিয়েছিল। একারণেই বলা হয়- একটি অপরাধ আরেকটি অপরাধকে উৎসাহিত করে।


বঙ্গবন্ধু ও ফজিলাতুন্নেসার কন্যা শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাহস ও অনুপ্রেরণার জায়গা। তিনি সব সময় বঙ্গবন্ধুকে সাহস ও অনুপ্রেরণা দিতেন।

তিনি বলেন, আমার বাবা রাজনৈতিক অঙ্গণে সর্বক্ষণ মায়ের সাহস ও অনুপ্রেরণা পেয়েছেন। বঙ্গবন্ধুকে কারাগারে বন্দি করা হলে আমার মা পরিবার সামলাতেন, খোঁজখবর নিতেন দলের নেতা-কর্মীদেরও। তার কাছ থেকে আমরাও জীবনে চলার অনুপ্রেরণা পেয়েছি।
বিভাগ: ,

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.