সাময়িকী.কম 
আধুনিক ও উত্তরাধুনিক কবিতার বৈশিষ্ট্যের কিছু তুলনামূলক আলোচনা নিম্নে দেওয়া হল:

Ø বিষয়কেন্দ্রিকতার অভাব। অধুনান্তিক কবিতায় কোন নির্দিষ্ট বিষয়কেন্দ্র, ভাবনাকেন্দ্র, cebtral theme নেই।
Ø পোস্ট মর্ডান কবিতায় যুক্তি কাঠামো অনুপস্থিত থাকবে। কবিতাটি   হবেকবিতা শেষ হলেও মনে হবে শেষ হয় নি।
Ø অধুনান্তিক কবিতা বহুরৈখিক,বহুকৌণিক,বহুত্তবাদী ও বিদিশাময়। যে কোন দিকে ছড়িয়ে পড়ার অভিমুখ খোলা।
Ø সাম্রাজ্যবাদী চিন্তাচেতনা থেকে উত্তরাধকিার সূত্রে  প্রাপ্ত আধুনিক কবিতা ছিল ব্যক্তিকেন্দ্রিক। অধুনান্তিক কবিতায় সেই আমি-র অনুপস্থিতি।
Ø জীবনের যে কোন এলাকা থেকে অধুনান্তিক কবিতায় কবি তার মালমশলা ও উপাদান সংগ্রহ করে নিতে পারেন। এটা কবিতায় চলবে না, ওটা কবিতায় চলবে না এই মান্যতা এই মান্যতা কবি বা পাঠক আর আগ্রাহ্য করবে না।
Ø পোস্টমর্ডান কবি জানেন বাস্তবকে নকল করা যায় না। ফলে পোস্টমর্ডান হাইপাররিয়েলিটি সৃষ্টি করে চলেছে।
Ø অনেকই আজকাল কবিতাকে এমনভাবে শেষ করেন যাতে বোঝা যায় কবিতাটি অসমাপ্ত।
Ø জীবনের যে কোন বাকফসলই ডিসকোর্স। আধুনিক কবিতায় এই ডিসকোর্সের ডিকনস্ট্রাকশন বা অবিনির্মান করা হয়।
Ø অধুনান্তিক কবিতায় প্রতীক এড়িয়ে যাওয়া বা প্রতীক ভেঙ্গে যাওয়ার ঝোঁক।
Ø অধুনান্তিক কবিতায় কোন আদর্শ খাড়া করতে চায় না। সে কোন যাত্রার সংকেত দেয়।
Ø অধুনান্তিক সম্ভাবনার পরিসর খোলা রাখে।হিউরোটোপিয়ার কথা বলে।
Ø অধুনান্তিকতা কোনপূর্ব নির্ধারিত তত্ত্ব নয়। জীবনকে দেখে শুনে তার লক্ষণগুলোর যোগসূত্র ঠাউরে নিয়ে অধুনান্তিকতার যাত্রার ঝুলি। অধুনান্তিকতা কোন আন্দোলন নয়, একটি কালখণ্ডের প্রবণতা।
Ø পোস্টমর্ডান কবিতায় ভাষার নিজস্ব গুরুত্ব মান্য করা হয়।
Ø পোস্টমর্ডান কবিতার একটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ যুক্তিফাটল বা লজিক্যাল ক্র্যাক বা লজিক্যাল ক্লেফটের উপস্থিতি।

Ø আধুনিতা যদি সাজানো বাগান হয় তাহলে পোস্টমর্ডান কবিতা হল রাইজোম্যাটিক অর্থাৎ ঘাসের মত।
Ø পোস্টমর্ডান কবিতায় ইমেজ তৈরি সম্ভব নয়।
Ø পোস্টমর্ডান কবিতা যে কোন সীমাকে ছাপিয়ে যেতে চায়। ফলে কোন নির্দিষ্ট সংজ্ঞায় তাকে ধরে রাখা সম্ভব নয়
Ø কবির রাজনৈতিক মতাদর্শের সঙ্গে কবিতাকে যুক্ত করা আর সম্ভব নয়।
Ø পোস্টমর্ডান কবিতা অভেদ, অখণ্ডতা মহাসাম্যের দ্বারা প্রতিস্থাপিত। বাইনারি অপোজিট বা বৈপরীত্যবোধ দিয়ে তাকে চিহ্নিত করা সম্ভব নয়।
Ø আধুনিক কবিতায় ছিল হিউম্যানিস্ট চেতনার প্রতিফলনযেখানে মানুষের জয়গান গাওয়া হয়েছে। আজ কীটপতঙ্গ, পশুপাখি, গুল্মলতা, কাপ-ডিস-চামচ, ফ্রিজ, ডিনার, টেবিল, অ্যাসট্রে, নাকছবি, ওয়েবসাইট, আলুচাষ, যতিচিহ্ন সবই কবিতার বিষয়। একটি মাত্র দিক তার লক্ষ্য নয়। কবি বিদিশামণ্ডল।


(চলবে)

মুনশি আলিম
জাফলং, গোয়াইনঘাট,  সিলেট

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.