সাময়িকী.কম
শিক্ষা সচিব এনআই খান বলেছেন, ভবিষ্যতে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিউটি পার্লার থাকবে। শিক্ষার পাশাপাশি সৌন্দর্যবোধও থাকতে হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, আমরা মাল্টিমিডিয়া বই বানাচ্ছি। যাতে করে শিক্ষার্থীরা প্রয়োজনে বিছানায় শুয়ে পড়তে পারে। এ জন্য প্রতি শিক্ষার্থীর হাতে ট্যাবলেট পৌঁছে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছি। প্রতি বছর ২৫ লাখ ট্যাবলেট শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতরণ করা হবে।


তিনি আরও বলেন, প্রতিটি হাই স্কুলে ফাইবার অপটিক সার্ভার ও হাই স্পিড কানেকশন দেয়া হবে। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ওয়েব সাইট ও শিক্ষকদের মেইল এ্যাড্রেস থাকা বাধ্যতামূলক। যাতে করে শিক্ষকরা ট্যাবলেট ও মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পড়া শোনা মনিটরিং করতে পারেন।
আজ দুপুরে ফরিদগঞ্জে ‘মান সম্মত শিক্ষা নিশ্চিতকরণে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা সচিব এসব কথা বলেন।


ফরিদগঞ্জ এআর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে মাঠে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ড. শামছুল হক ভূইয়া এমপি। সভায় প্রাথমিক, মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক, স্নাতক ও কারিগরী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (সমমানের মাদরাসাসহ) দুই হাজারের অধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন। সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মো. খান জালাল, বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক প্রফেসর ড. এবিএম শাহজালাল, চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক ইসমাইল হোসেন, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবু সাহেদ সরকার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার জয়নাল আবদীন,চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম দুলাল পাটওয়ারী,সভা পরিচালনা করেন,ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নুরুন্নবী নোমান। দৈনিক কালের কন্ঠের সৌজন্যে 
বিভাগ:

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.