সাময়িকী.কম

ছবি : সংগৃহীত 
সাময়িকী ডেস্ক : ভারতের সঙ্গে বাস চলাচলে একটি চুক্তি ও দুটি প্রটোকলের খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এ প্রটোকলের আওতায় কলকাতা-ঢাকা-আগরতলা রুটে ও ঢাকা-সিলেট-সিলং-গৌহাটি রুটে বাস চলাচল করবে।

সোমবার (১ মে) সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ দুটি প্রটোকল অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রি পরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা প্রেস ব্রিফিংয়ে এ অনুমোদনের কথা জানান।

ঢাকা-কলকাতা-ঢাকা ও ঢাকা-আগরতলা-ঢাকা রুটের জন্য আগে চুক্তি হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আগে যে কাঠামো অনুসরণ করা হয়েছিল কলকাতা-ঢাকা-আগরতলা ও ঢাকা-সিলেট-সিলং-গৌহাটি রুটের ক্ষেত্রে সেই কাঠামো অনুসরণ করা হচ্ছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশ সফরে এলে চুক্তি ও প্রটোকল দুটি স্বাক্ষরিত হবে বলেও জানান তিনি।

নরেন্দ্র মোদি আগামী ৬ জুন দু'দিনের সফরে ঢাকা আসছেন। ‘এগ্রিমেন্ট বিটুইন দ্য গভর্নমেন্ট অব দ্য পিপলস রিপাবলিক অব বাংলাদেশ এ্যান্ড দ্য গভর্নমেন্ট অব দ্য রিপাবলিক অব ইন্ডিয়া ফর দ্য রেগুলেশন অব মটর ভেহিকেল প্যাসেঞ্জার ট্রাফিক বিটুইন টু কান্ট্রিজ’ এর আওতায় প্রটোকল দুটি প্রণয়ন করা হয়েছে।

বাস চালাচলের ক্ষেত্রে দু’দেশকে কোনো ফি দিতে হবে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রটোকলের মধ্যে এ বিষয়ে কিছু বলা নেই। এতে দু’দেশের মধ্যে কানেকটিভিটি বাড়বে জানিয়ে মোশাররাফ হোসাইন বলেন, এ চুক্তিতে দু’দেশ সমান সুযোগ-সুবিধা পাবে। সবই পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে প্রণীত ও গৃহীত।

এ চুক্তির আওয়ায় দু’দেশে যাতায়াতকারী যানবাহনের রুট পারমিট, রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট, ফিটনেস সনদ, ইন্সুরেন্স পলিসি লাগবে। বাস পরিচালনাকারী ও বাসের যাত্রীদের পাসপোর্ট ও মাল্টিপল এন্ট্রি ভিসা থাকতে হবে বলেও জানান তিনি।

গত ২২ মে ঢাকা থেকে সিলেটের তামাবিল ও ভারতের মেঘালয়ের রাজধানী শিলং হয়ে আসামের গৌহাটি পর্যন্ত বিআরটিসির পরীক্ষামূলক বাস সার্ভিস চালু হয়।

সোমবার (১ জুন) কলকাতা থেকে ঢাকা হয়ে ত্রিপুরার আগরতলা পর্যন্ত সরাসরি বাস পরীক্ষামূলকভাবে যাত্রা শুরু হয়েছে। কলকাতার সল্টলেকের করুণাময়ী আন্তর্জাতিক বাস টার্মিনাল থেকে সকালে একটি ভলভো বাস পরীক্ষামূলক যাত্রা শুরু করে।  
বিভাগ:

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.