সাময়িকী.কম

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিশ্বের কাছে ‘বিউটিফুল বাংলাদেশ-ল্যান্ড অব স্টোরি’ উপস্থাপন করে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সাতটি পুরস্কার অর্জন করেছে বাংলাদেশ টুরিজম বোর্ড (বিটিবি)।

বুধবার রাজধানীর হোটেল সোরাগাঁওয়ে বাংলাদেশ টুরিজম বোর্ড আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বিটিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আখতারুজ্জামান খান কবীর। এ সময় পুরস্কার প্রাপ্ত `বিউটিফুল-বাংলাদেশ ল্যান্ড অব স্টোরি’ তথ্যচিত্র উপস্থাপন করা হয়।

বিটিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা বিশ্ববাসীর কাছে বাংলাদেশের প্রাকৃতিক, সংস্কৃতিক, ভৌগলিক ও ঐতিহ্যগত তথ্য উপস্থাপন করে আন্তর্জাতিক সাতটি প্রতিষ্ঠান থেকে বিভিন্ন ক্যাটাগরীতে `সাতটি` পুরস্কার জিতেছি। বাংলাদেশ যে অপরূপ সৌন্দর্যের অধিকারী তা এ পুরষ্কারের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি পেয়েছে। একই সঙ্গে দেশের পর্যটনখাতে এক অপার সম্ভাবনার ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে। এখন এ খাতকে এগিয়ে নিতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।`

মার্কেট এজইর মহা-ব্যবস্থাপক আহবাব আহমেদ সোবহান `বিউটিফুল বাংলাদেশ` উপস্থাপন করে যে সাতটি পুরস্কার জিতেছে বাংলাদেশ তার ঘোষণা দেন।

জার্মানের বার্লীনে অনুষ্ঠিত বিশ্বের সবচেয়ে বড় পর্যটন মেলায় ডাস গোল্ডেন স্টাট্টোর-ডায়মন্ড অ্যাওয়ার্ডসহ  পঞ্চম ক্যানেস কর্পোরেট মিডিয়া অ্যান্ড টিভি অ্যাওয়ার্ডস, সেকেন্ড বাকু ইন্টারন্যাশনাল ট্যুরিজম ফিল্ম ফ্যাস্টিভ্যাল ও দ্যা ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস অ্যাওয়ার্ড প্রতিযোগিতায়-সিলভার অ্যাওয়ার্ড, জাগরেব ট্যুরফিল্ম ফ্যাস্টিভ্যাল প্রতিযোগিতায় প্রথম পুরস্কার অর্জন করেছে, আন্তর্জাতিক পর্যটন চলচিত্র উৎসবে (গ্রান্ড প্রিকস-২০১৪) সেরা নির্বাচিত হয়েছে এবং ট্যুর ফ্লিম উৎসবে-কার্লোভি ভ্যারি নামের পুরস্কার জিতেছে।   
                     
সংবাদ সম্মেলনে আখতারুজ্জামান খান বলেন, `দেশের পর্যটন খাতকে নিয়ে নির্দিষ্ট কোনো মাস্টার প্ল্যান নাই। এই খাতের উন্নয়নের জন্য সরকারের সাথে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে একটি নির্দিষ্ট মাস্টার প্লান তৈরি করা হবে।

তিনি বলেন, পর্যটন খাতকে বিশ্বব্যাপী দ্রুত প্রসারের জন্য দেশের কোন কোন স্থানে পর্যটন শিল্প ও আকর্ষণীয় স্থাপনা তৈরি করা যায় সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। সে অনুযায়ী পর্যটন খাতের উন্নয়নের জন্য ২০১৬ সালকে লক্ষ মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্যাসিফিক এশিয়ান ট্রাভেল অ্যাসোসিয়েশনের (পাটা) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মারিও হার্ডি বলেন, `এ ধরনের পর্যটন চলচ্চিত্র তৈরির মাধ্যমে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ও ঐতিহ্য বিশ্ব দরবারে তুলে ধরা সহজ হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের পরিচালক অঞ্জলি রানী চক্রবর্তী ও নীখিল রঞ্জন রায় প্রমুখ।
বিভাগ:

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.