সাময়িকী.কম

* গোল্ডের থেকে বাজে সিদ্ধান্ত এল ভিভিএস লক্ষণ * শেন ওয়ার্নের বিস্ময় প্রকাশ * সিদ্ধান্ত তৃতীয় আম্পায়ারকে দেয়া উচিত ছিল সৌরভ

আম্পায়ারদের সহায়তায় টাইগারদের থাবা থেকে রক্ষা পেল ভারত। তবে বাংলাদেশ-ভারতের ম্যাচ নিয়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তীব্র সমালোচনা করেছে বিশ্ব ক্রিকেটপ্রেমীরা। আর আম্পায়ারদের এ রকম বিতর্কিত সিদ্ধান্তের জন্য কড়া সমালোচনা করছে সাবেক ক্রিকেটারসহ ক্রীড়া বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, বিশ্বাস করতে পারছি না, কোয়ার্টার ফাইনালে এমন বাজে আম্পায়ারিং! ও প্রশ্নবিদ্ধ আম্পায়ারিং দেখতে হবে। এদিকে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে বিতর্কিত আম্পায়ারিংয়ের প্রতিবাদ জানিয়ে আইসিসি'র কাছে অভিযোগ করবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নাজমুল হাসান পাপন। অন্যদিকে বিষয়টি বিবেচনার আশ্বাস দিয়েছেন আইসিসি'র সভাপতি আ ফ হ ম মোস্তফা কামাল।

গতকাল অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টস জিতে ব্যাট করতে নামা ভারতের ইনিংসের ৪০তম ওভারে বিতর্কিত সিদ্ধান্তটি দেন আম্পায়ার আলিমদার (পাকিস্তান) ও ইয়ান গোল্ড (ইংল্যান্ড)। চতুর্থ বলটি ফুলটস দিয়েছিলেন রুবেল। বলটিতে বাউন্ডারি মারতে গিয়ে ডিপ মিড উইকেটে ক্যাচ দেন ভারতের ব্যাটসম্যান রোহিত শর্মা। কিন্তু বলটি কোমরের উপরে ছিল উল্লেখ করে ইয়ান গোল্ডকে ্তুনো্থ বলের সংকেত দেন। ইংল্যান্ডের আম্পায়ার গোল্ডের এমন সিদ্ধান্তে বিস্ময়ে হতবাক হয়ে যান বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। তখন সঙ্গে সঙ্গে টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মতুর্জা আম্পায়ার আলিমদারকে তা পুনর্বিবেচনার কথা বলে অনুরোধ করলেও তিনি তা নাকচ করে দেন। 

ভারতের সাবেক ব্যাটসম্যান ভিভিএস লক্ষণ টুইটারে প্রতিক্রিয়া জানান এভাবে, গোল্ডের থেকে বাজে সিদ্ধান্ত এল। এটা অবশ্যই কোমরের উপরে ছিল না। ভাগ্যের সহায়তা পেল রোহিত।চ্

প্রখ্যাত সাংবাদিক সম্বিত বল তো ক্রিকেটের নিয়ম পরিবর্তন প্রয়োজন মন্তব্য করে বলেন, ক্রিকেটের এই নিয়ম পরিবর্তন প্রয়োজন। মাঠে থাকা আম্পায়ারদের নিশ্চিত ভুল থার্ড আম্পায়ার কর্তৃক ঠিক হওয়া উচিত। এটি সাধারণ জ্ঞানের বিষয়।

ক্রিকেটের ওয়েবসাইট ইএসপিএনক্রিকইনফোও বিষয়টি নিয়ে টুইট করে, ুডিপ মিড উইকেটে ক্যাচ তোলেন রোহিত শর্মা। উচ্চতার জন্য নো-বল দেয়া হলো, কিন্তু তাই ছিল কি? ম্যাচের ফল নির্ধারণী সিদ্ধান্ত হতে পারে এটি।চ্

ধারাভাষ্য দিতে থাকা শেন ওয়ার্নও বিষয়টি নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন। বলটি খেলার সময় রোহিত ঝুঁকে ছিলেন উল্লেখ করে তিনি মন্তব্য করেন, ুনো বল দেয়ার মতো যথেষ্ট উঁচুতে ছিল না বলটি। বিষয়টি বাংলাদেশের জন্য বেশ হতাশার উল্লেখ করে ওয়ার্ন বলেন, আলিমদারের মতো একজন আম্পায়ারের কাছ থেকে এটা হতাশাজনক একটি সিদ্ধান্ত।

ভারতের সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলিও বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা করেন। বলের উচ্চতা নিয়ে সন্দেহ থাকলে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য এটি তৃতীয় আম্পায়ারকে দেয়া উচিত ছিল বলে মনে করেন তিনি।

বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় তোলেন বাংলাদেশের সমর্থকরাও। তাদের মতে, আম্পায়ারদের সহায়তায় টাইগারদের থাবা থেকে রক্ষা পেল ভারত। তাই ২২ গজের খলনায়ক, আজকের খেলায় ?ম্যান অফ দ্য ম্যাচ হওয়ার যোগ্য দাবিদার দুই আম্পায়ার!

এদিকে ঠিক উল্টোটা হয়েছে বাংলাদেশের ক্ষেত্রে। না হওয়া একটি আউট বাংলাদেশকে মেনে নিতে হয়েছে বলে অভিযোগ আছে বাংলাদেশের দর্শকদের মধ্যে। মোহাম্মদ শামির বলে লং লেগে সীমানা দড়ির কাছে শিখর ধাওয়ানের দারুণ এক 'ক্যাচে' পরিণত হয়ে সাজঘরে ফেরেন এই মুহূর্তে দলের সেরা ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহ। প্রশ্ন উঠেছে, ক্যাচটা লুফে নেয়ার সময় ধাওয়ান কি সীমানা ছুঁয়েছিলেন? টিভি-রিপ্লে দেখার পরও খচখচানি থেকে গিয়েছে। ক্রিকইনফোতে এক পাঠক মন্তব্য করেছেন, 'আমি একজন ভারতীয় সমর্থক। তবে আমার মনে হয়, মাহমুদউল্লাহর আউটটা কিছুটা দুর্ভাগ্যজনক। আম্পায়ার আরেকটু সময় নিতেই পারতেন। মনে হচ্ছিল ধাওয়ান হয়তো সীমানা দড়ি ছুঁয়েছেন।' সাধারণত সন্দেহপূর্ণ সিদ্ধান্ত (বেনিফিট অফ ডাউট) ব্যাটসম্যানদের পক্ষেই যায়। কিন্তু মাহমুদউল্লাহর ক্ষেত্রে তা হয়নি!

বাংলাদেশ দলের সাবেক তারকা ও বর্তমানে ধারাভাষ্যকার আতহার আলী খান বলেছেন, ঘরোয়া ক্রিকেট, কখনো কখনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও বাজে আম্পায়ারিং দেখেছেন। তাই বলে বিশ্বকাপে এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে! তিনি বলেন, কোয়ার্টার ফাইনালে এমন বাজে আম্পায়ারিং! বিশ্বাসই করতে পারছি না এমন প্রশ্নবিদ্ধ আম্পায়ারিং দেখতে হবে। আই অ্যাম শকড!' সূত্র : দৈনিক সংবাদ 
বিভাগ:

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.