স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
সাময়িকী.কম
সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে কেক কেটে কর্মসূচির সূচনা করা হয়

দিনব্যাপী নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৫তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদ্যাপিত হয়েছে। মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৬টায় জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন দল ও সংগঠনের কর্মসূচি শুরু হয়। সকালে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকাল সাত ৭টায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে দলীয় প্রধান হিসেবে তিনি দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে বঙ্গবন্ধু প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা ছাড়াও অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে ছিল- দোয়া ও মিলাদ মাহফিল, মোনাজাত, প্রার্থনা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বইমেলা, স্বেচ্ছায় রক্তদান, বিনামূল্যে চিকিৎসা, পুরস্কার বিতরণ, প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগীতা, বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ প্রচার প্রভৃতি।

দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতারসহ বিভিন্ন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার এবং সংবাদপত্রগুলোতে বিশেষ ক্রোড়পত্র ও নিবন্ধ প্রকাশ করে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। মঙ্গলবার সকাল ১০টার পর তারা বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পৃথকভাবে পুস্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ প্রথমে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। এর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে দু`জনেই বঙ্গবন্ধুর প্রতি গভীর শ্রদ্ধার নিদর্শন হিসেবে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন। এ সময় বিউগলে করুণ সুর বাজানো হয়।

পরে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ফাতেহা পাঠ করেন এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ১৫ আগস্টের সকল শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনায় আয়োজিত এক বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন।

এর আগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার রাত ১২টা ১ মিনিটে বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে কেক কেটে জন্মদিন উদ্যাপন করা হয়। এ সময় মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. দিলীপ রায়, দফতর সম্পাদক সহিদুল ইসলাম মিলনসহ দলের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে মঙ্গলবার বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে ‘শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদ’ আয়োজিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটির গোলটেবিল মিলনায়তনে ‘বাংলাদেশের জন্মদিন’ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করে বঙ্গবন্ধু পরিষদ। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ডা. এস এ মালেকের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য রাখেন- সাংবাদিক শফিকুর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড ভিডিও কমিউনিকেশন বিভাগের অধ্যাপক ড. শফিউল আলম প্রমুখ।

দিবসটি উপলক্ষে সকাল সাড়ে ১০টায় শিল্পকলা একাডেমি মিলনাতয়নে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট একাংশ-এর উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে লালবাগ থানা আওয়ামী লীগ, বঙ্গমাতা পরিষদ বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদ পৃথক আলোচনা সভার আয়োজন করে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যার ষড়যন্ত্র ও পরিকল্পনাকারীদের চিহ্নিত করতে অবিলম্বে একটি জাতীয় কমিশন গঠন করার দাবি জানিয়েছে ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান’ কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ। এদিকে বেলা ১২ টায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট একাংশ।

চিত্রনায়িকা দিলারা ইয়াসমিনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ওবায়দুল কাদের, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য সুজিত রায় নন্দি, অভিনেত্রী ফাল্গুনী হামিদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

বাকৃবি: বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) উদযাপিত হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ৯৬তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস।

মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) সকাল ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় জাতীয় দিবস উদযাপন কমিটি আনন্দ র‌্যালির আয়োজন করে। ‍

র‌্যালির উদ্বোধন করেন বাকৃবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. রফিকুল হক। র‌্যালিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ থেকে শুরু হয়ে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে বঙ্গবন্ধু চত্বরে গিয়ে শেষ হয়।

পরে সেখানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন উপাচার্য। পরে প্রশাসন ভবন সংলগ্ন বকুলতলায় আয়োজন করা হয় ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক গান, কবিতা আবৃত্তি, ছড়া, বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও বক্তৃতা অনুষ্ঠানের।

এ অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিন্ডার গার্টেনের শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। 

সবশেষে দুপুরে বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব মসজিদ, মন্দির ও উপাসনালয়ে দোয়া ও প্রার্থনার আয়োজন করা হয়।

খুলনা : সকালে নগরের নিউমার্কেটের সামনে থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‍্যালি বের হয়। মৎস্য প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এবং জেলা ও বিভাগীয় কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণে র‍্যালিটি খান এ সবুর সড়ক দিয়ে বেতার ভবনে আসে। সেখানে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে তাঁরা পুস্পস্তবক দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান মিজানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এ ছাড়া খুলনা বিভাগে পুলিশের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি), খুলনার পুলিশ কমিশনার, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতারাও ভাস্কর্যে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

লক্ষ্মীপুর :  সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় জেলা কালেক্টরেট ভবন প্রাঙ্গণে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালিতে ছিলেন জেলা প্রশাসক এ কে এম টিপু সুলতান, পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নূরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন, বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনসহ স্কুল-কলেজের বিপুল শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

নাটোর : সকালে নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের অস্থায়ী কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন দলের নেতা-কর্মীরা। ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা কেক কেটে দিবসটি পালন করেন। আর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয় র‍্যালি ও আলোচনা সভা। এ ছাড়া এনএস সরকারি কলেজে রক্তদান কর্মসূচির আয়োজন করে ছাত্রলীগ।

নারায়ণগঞ্জ : সকালে নগরীর ২ নম্বর গেট জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী, জেলা পরিষদের প্রশাসক মো. আব্দুল হাই, জেলা প্রশাসক মো. আনিছুর রহমান মিয়া, পুলিশ সুপার ড. খন্দকার মুহিদ উদ্দিন, এরপর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা।

সিরাজগঞ্জ : বিভিন্ন কর্মসূচি ও যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৯৫তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপিত হয়েছে। এ উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে শহীদ এম মনসুর আলী অডিটরিয়ামে বঙ্গবন্ধুর জীবনের ওপর স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়।
জেলা প্রশাসক বিল্লাল হোসেনের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় বক্তব্য দেন, সিরাজগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য সেলিনা বেগম স্বপ্না, সাবেক মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল লতিফ বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক আবু মোহাম্মদ গোলাম কিবরিয়া, জেলা পুলিশ সুপার এস এম এমরান হোসেন প্রমুখ। এ উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ ছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগ, বিএমএসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। 

শাহজাদপুর : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৫তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কেক কেটে কর্মসূচির সূচনা করা হয়। এ উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শোভাযাত্রা  ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আহমেদের সভাপতিত্বে স্থানীয় রবীন্দ্র মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন উপজেলা চেয়ারম্যান আজাদ রহমান।
এ ছাড়া বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে শাহজাদপুর উপজেলার গাড়াদহ আমিনা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা একসঙ্গে সাতটি কেক কেটে অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
উৎসবমুখর দিনটিতে বিভিন্ন শিক্ষা  প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠন শিশুদের নিয়ে চিত্রাংকন ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।
বিভাগ:

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.