আজিম আকাশ

বড় হতাশায় মানবজমিন কেঁপে উঠে
সমকালীন কবিতার অদৃশ্য ভূমিকম্পে,
এক আকাশ কালো মেঘের আড়ালে
হারিয়ে যাচ্ছে আজ কবিতার পাঠক।
উৎফুল্ল হৃদয়ে, নূতন কাব্যের ঘ্রাণে-
পৃষ্ঠার ভাঁজে ভাঁজে, আজ আর কেউ
খুঁজে না কোন কাঙ্খিত কবিতা।
ডিজিটাল প্রযুক্তির অনলাইন ফ্রি সংস্করণ
তথা বহুমাত্রিক টাইমপাস বিনোদনের-
যাঁতাকলে, কেবলই পিষ্ট হতে চলেছে
প্রিন্ট মিডিয়ার সাবেক পাঠকবৃন্দ।
তবে কী এভাবেই পিষ্ট হতে হতে
নিঃশেষে বিভাজ্য হবে অবশেষে?
তিল তিল করে হৃদয়ভূমে সঞ্চিত
সাহিত্যের প্রতি নিগূঢ় ভালোবাসায়-
তবে কী আজ শুধু অবমাননাই প্রাপ্য?
মিথ্যে সৃজনশীলতার ক্যানভাসে
জেগে ওঠা অজস্র  প্রকাশনাগুলো,
আজ আর মননে সৃজন করে না-
নজরুল কিংবা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।
ডিজিটাল ফরমূলার রমরমা ধ্যাঁচে
প্রকাশনাগুলো আজ ব্যতিব্যস্ত-
বইমেলা কেন্দ্রিক বাণিজ্যিক মোহে।
বছরজুড়ে আজ আর হয় না তেমন
তরুণ কবির নতুন নতুন কাব্যের-
কোন তেজোদীপ্ত মোড়ক উন্মোচন,
কেবলমাত্র একুশ এলেই প্রকাশনাগুলোর
হাকডাক দিয়ে কসরত চলে বই প্রকাশের,
হরহামেশাই সূক্ষাতিসূক্ষ যাচাই-বাছাইহীন
ভুরিভুরি বই প্রকাশ হয় মানহীন মলাটে।
বাংলা একাডেমী চৌহদ্দীর স্টলগুলোয়
বাঁধ ভাঙা উচ্ছাসের ন্যায় লাখো-
মানব-মানবীর ঢলে হয় জনসমুদ্র,
তবু সংখ্যালঘু কিছু ছাড়া বাকীরা
ঘরে ফিরে রিক্ত হস্তে বইহীন মননে।
পুরোনো পাঠকের বই কেনার
ধ্যান-ধারণাগুলো সহসাই আজ-
সংকোচিত, মাঝে মাঝে দ্বিধান্বিতও বটে।
হয়তো বা কেউ কেউ আজ বই কিনে
দেউলিয়ার কথাও ভেবে থাকেন অনায়াসে;
এতোটা পথ হেঁটে হেঁটে কবিতারা আজ
পাঠকের হৃদয়ে অনেকটাই মৃতপ্রায়-
বিবর্তিত সভ্যতার ডিজিটাল পরিহাসে।

টঙ্গিবাড়ি, মুন্সীগঞ্জ।

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.