সাময়িকী.কম
কর্মক্ষেত্রে কমবেশি সবাই একই অভিযোগ করেন। আর তা হলো বসের সাথে বনিবনা হয় না। বস আমাকে দেখতে পারেনা, বস আমার উপর অত্যাচার করে, বসের সাথে আমার শত্রুতা আছে এমন কথা হরহামেশাই বলতে শোনা যায়। বসকে পটানো কি এতোটাই অসাধ্য কাজ? নাহ, মোটেই না। খুব সহজেই আপনি আপনার বসকে পটাতে পারবেন। জেনে নিন বসকে পটানোর ৫টি সহজ উপায় সম্পর্কে।

প্রতিষ্ঠানের সুনাম করা

বসের কাছে তার প্রতিষ্ঠানের সুনাম করলে আপনি সহজেই জিতে নিতে পারবেন তার মন। আর তিনি যদি হয়ে থাকেন প্রতিষ্ঠানের মালিক তাহলে তো কথাই নেই। নিজের হাতে গড়া প্রতিষ্ঠানের সুনাম শুনে কে খুশি না হয়ে পারে বলুন? প্রতিষ্ঠানটি যদি তার নাও হয় তাহলেও আপনার বস নিজের কর্মস্থলের প্রশংসা শুনে খুশি না হয়ে পারবেন না।

সারাক্ষণ অসন্তোষ প্রকাশ না করা

নিজের কাজ নিয়ে কিংবা বেতন নিয়ে বসের কাছে সারাক্ষণ অসন্তোষ প্রকাশ করবেন না। আপনি যদি অসন্তুষ্ট হয়ে থাকেন তাহলে তাকে মাঝে মাঝে সে কথা জানাতে পারেন। কিন্তু প্রতিদিন অকারণে অসন্তোষ প্রকাশ ও ঘ্যান ঘ্যান করা থেকে বিরত থাকুন। আপনার বস আপনাকে অবশ্যই পছন্দ করবেন।

অন্যের অপেক্ষায় না থেকে নিজেকে উপস্থাপন করা

আপনার মাথায় কোনো নতুন আইডিয়া এসেছে কিংবা কোনো কাজ সবার আগে সেরে ফেলেছেন? তাহলে অন্যের অপেক্ষা না করে চেষ্টা করুন সবার আগে নিজেকে উপস্থাপন করার। এতে বস অন্যদের মাঝে আপনার মেধার বিষয়টি বিশেষভাবে লক্ষ্য করবেন এবং আপনাকে পছন্দ করবেন।

অফিসের সব জটিল পরিস্থিতিতে অবদান রাখা

অফিসে যদি জটিল কোনো পরিস্থিতি চলে কিংবা অফিসের সবার কোনো বিষয়ে সাহায্য প্রয়োজন হয় তাহলে কখনই নিজেকে সেখানে কাজে লাগাতে কার্পন্য করবেন না। কখনোই এটা ভাববেন না যে অফিসের বিপদে আপনার সাহায্যের বিনিময়ে অফিস আপনাকে কি দিচ্ছে। আপনার বস যদি দেখেন যে অফিসের ভালো সময়ের পাশাপাশি খারাপ সময়েও আপনি আছেন তাহলে আপনার বস অবশ্যই আপনাকে ভালোবাসবেন।

সবসময়ে ইতিবাচক ও মিষ্টি ব্যবহার

হতে পারে আপনার বস অনেক অত্যাচারী, ক্রমাগত মিথ্যা কথা বলেন কিংবা অহেতুক কাজ চাপিয়ে দেয়ার মনোভাব পোষণ করেন। এমন পরিস্থিতিতে যতই মেজাজ খারাপ হোক, কখনই সেটা বসের সামনে প্রকাশ করবেন না। বসের সাথে চেষ্টা করুন সব পরিস্থিতিতে ইতিবাচক ও মিষ্টি ব্যবহার করার। এতে আপনার বস আপনাকে অবশ্যই পছন্দ করবেন l
বিভাগ: ,

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.