তানভীর আশিক
অনেক অনেক দিন আগে ব্যাবিলন শহরে বাস করতো পাইরামস নামে এক তরুণ। সে ছিলো প্রাচ্যের সবচেয়ে সুদর্শন যুবক। আর তার পাশের বাড়িতেই থাকতো থিসবি নামে অনন্য সুন্দরী তরুণী। যার রূপ-গুণে পাগল ছিলো শহরের পুরুষেরা। কিন্তু থিসবি ভালোবাসতো পাইরামসকে। পাইরামসও জীবন দিয়ে ভালোবাসতো থিসবিকে। পাশাপাশি বাড়িতে থেকে বেড়ে ওঠা দুইজনই নিজেদের অজান্তে পরস্পরকে ভালোবেসে ফেলে। তারপর চুপচাপ তাদের প্রেম চলতে থাকে। পাইরামস থিসবিকে এনে দিলো মিহিসুতার ওড়না। থিসবি এঁকে দিলো পাইরামসের রুমালে প্রজাপতি আর ফুল।
প্রেমতো আর লুকিয়ে রাখা যায় না। তাই একদিন প্রকাশ পেয়ে গেলো তাদের প্রেম আর তখন বাধা হয়ে দাঁড়ালো অভিভাবকেরা। না, কেউ মেনে নিবে না এই ভালোবাসা। পাইরামস ও থিসবি একে অন্যের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষিত হলো। দুই জনের দেখা সাক্ষাৎ বন্ধ করার জন্য দুই বাড়ির মাঝেখানে তুলে দেয়া হলো বিশাল দেয়াল। দেয়াল এতো কঠিন যে এক পাশ থেকে কথাও আর পাশে যেতো না। পাইরামস ভাবতো দেয়ালের ওপাশেই তার ভালোবাসার থিসবি আর থিসবি ভাবতো দেয়ালের ও পাশেই তার প্রাণপ্রিয় পাইরামস। তারা তাদের প্রেমের কথাগুলো দেয়ালকেই বলতো। বলে বলে হালকা করতো বুকের পাথর। তাদের এই প্রেমের আকুতি সহ্য করতে পারলো না পাথরের দেয়ালও। দেয়ালের বুক থেকে সে নিজেই খসিয়ে দিলো একটা পাথর আর তৈরি হলো একটা ফোকর। এই ফোকরেই ঠোঁট রেখে ভোর হতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত দুইজন কথা বলতো। কিন্তু পরস্পরকে ছুঁতে পারতো না। দেয়ালে চুমু রেখে দুইজনই বিদায় নিতো। এইভাবে তাদের মন ভরতো না। তারা তাদেরকে আরো কাছে পেতে চাইতো। একজন আর জনকে একটু ছুঁয়ে দেখার জন্য অস্থির হয়ে উঠলো। তারা ঠিক করলো এই শহর ছেড়ে দূরে কোথাও পালিয়ে যাবে। কথামত ঠিক করে নিলো নাইনসের সমাধি মন্দিরের পাশে মালবেরি গাছটির নিচে পরস্পর দেখা করবে। থিসবি কথা মতো আগেই চলে এলো সেই মালবেরি গাছের নিচে। মালবেরি গাছ তার বরফশুভ্র ফল নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে, জোছনার আলো পড়ে সেগুলো চিক চিক করছে। পাশেই ঝর্ণাধারা। হঠাৎ শব্দ শুনে থিসবি তাকিয়ে দেখে এক সিংহ রক্তমাখা চোয়াল নিয়ে তার দিকেই আসছে। ভয় পেয়ে সে দৌড়ে পালাল। দৌড়ে পালানোর সময় ঝোঁপের কাটায় আটকে গেলো তার ওড়না। সে খেয়ালই করলো না। সিংহ এসে ওড়নায় গন্ধ শুঁকলো, মুখ মুছলো, মানুষের গন্ধ লাগা ওড়নাটা নখে টেনে ছিঁড়ে ফেলে গেলো। ও দিকে পাইরামস এসে গর্জন করতে করতে একটা সিংহকে চলে যেতে দেখে তার আত্মা কেঁপে উঠলো। চারপাশে খুঁজতে থাকলো থিসবিকে। অল্পদূরেই রক্তমাখা ছেঁড়া ওড়নাটা দেখে চেনার বাকি থাকলো না পাইরামসের। এ যে তারই দেয়া থিসবির ওড়না। তবে বুঝি সিংহ থিসবিকে মেরে খেয়ে নিয়েছে! আহা! কেন সে থিসবিকে এই বিপদসংকুল স্থানে আসতে বলেছিলো! তার দোষেই হারাতে হলো থিসবির প্রাণ! প্রিয়তমাকে ছাড়া আর বেঁচে থাকার ইচ্ছা নেই তার। থিসবির ওড়না জড়িয়ে হু হু করে কেঁদে উঠলো সে। নিজের তলোয়ার বিঁধে দিলো বুকে। আর বেছে নিলো স্বেচ্ছা মৃত্যু। কিছুক্ষণ পর থিসবি এলো ফের- সিংহ নিশ্চয়ই চলে গেছে আর পাইরামসও চলে এসেছে ভেবে। কিন্তু মালবেরি গাছের নিচে এসে আবিষ্কার করে পাইরামস নিজের বুকে তলোয়ার বিঁধিয়ে নিয়ে রক্তাক্ত পড়ে আছে তার ওড়নাটা জড়িয়ে। তখন সে বুঝতে পারে সব। চিৎকার দিয়ে পাইরামসকে জড়িয়ে ধরে। কিন্তু ততোক্ষণে পাইরামস পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছে।
এই নিষ্ঠুর পৃথিবীতে আর বেঁচে থাকার কোন অর্থ খুঁজে পেলো না থিসবি। পাইরামসের শীতল ঠোঁটে ঠোঁট রেখে তার বুক থেকে বিঁধে থাকা তলোয়ারটি গেঁথে নিলো নিজের বুকে। আর থিসবির বুকের রক্ত লেগে লাল হয়ে উঠলো শুভ্র মালবেরি ফল। এই যুগলের প্রেমের করুণ পরিনতি দেখলো দেবতারাও। সেই অনবদ্য প্রেমের নিদর্শন হিসেবে দেবতারা শুভ্র মালবেরি ফলকে করে দিলো টকটকে লাল।

বিভাগ:

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.