সাময়িকী.কম
বাহুবলে দুর্ঘটনাকবলিত বাস ও মাইক্রোবাস (ছবি : মামুন চৌধুরী)

শুক্রবার হবিগঞ্জে পৃথক দু'টি সড়ক দুর্ঘটনায় অন্তত ৮জন নিহত এবং ১৪জন আহত হয়েছে। এরমধ্যে জেলার বাহুবলে সাতজন ও লাখাইয়ে একজনের মৃত্যু হয়।

বাহুবল : উপজেলার তঘলী এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় সাতজন নিহত হয়েছে। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছে আরো ১০ জন। বিকেল পৌনে ৪টায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানাগেছে।

নিহতদের মধ্যে দুই জনের পরিচয় মিলেছে। এরা হলেন, বাহুবলের জশপাল এলাকার লগুজ মিয়ার ছেলে খোকন মিয়া (৩০) ও তার ভাই রোকন মিয়া (২৩)। এ দু'জন মোটরসাইকেল আরোহী।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, সিলেট থেকে ঢাকাগামী মিতালী পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আগত সিলেটগামী একটি মাইক্রোবাস ও একটি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মাইক্রোবাসের অজ্ঞাত পরিচয় তিন যাত্রী এবং মোটরসাইকেল আরোহী খোকন মিয়া নিহত হন। আহতদের মধ্যে রোকন মিয়াকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মারা যান।

এছাড়া স্থানীয়দের সহযোগিতায় বাহুবল থানা ও শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশ গুরুতর আহত মাইক্রোবাসের চার যাত্রীকে উদ্ধার করে বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও দুই যাত্রীর মৃত্যু হয়।

তবে বাহুবল মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অহিদুর রহমান পিপিএম দুর্ঘটনায় ছয়জন নিহত হওয়ার বিষয় নিশ্চিত করেছেন।

আহত আরো যাত্রীদের মধ্যে বাহুবল উপজেলার চারিগাঁও গ্রামের আব্দুল আহাদকে (২৪) হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল এবং অজ্ঞাতপরিচয় অপর দুইজনকে বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বাকীরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছে।

লাখাই : বাস-অটোরিক্সা মুখোমুখি সংঘর্ষে লাখাইয়ে একজন নিহত ও চার যাত্রী আহত হয়েছে। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টায় হবিগঞ্জ-লাখাই আঞ্চলিক সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
উপজেলার মুড়াকড়ি এলাকা থেকে সিএনজি চালিত একটি অটোরিক্সা পাঁচ যাত্রী নিয়ে হবিগঞ্জে যাচ্ছিল। অটোরিক্সাটি হবিগঞ্জ-লাখাই আঞ্চলিক সড়কের করাব এলাকায় পৌঁছলে হবিগঞ্জ থেকে লাখাইগামী যাত্রীবাহী একটি বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এতে অটোরিকশাটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। চার যাত্রী সহ চালক আহত হন।
স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক একজনকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি উপজেলার মুড়াকড়ি গ্রামের মরম আলীর ছেলে দেওয়ান আলী (৩০)।

এ ঘটনায় বাস ও অটোরিক্সা আটক করা হয়েছে। তবে বাস চালক পালিয়ে গেছে বলে লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী ফরিদ জানান।
বিভাগ: ,

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.