সাময়িকী.কম 
১৭ বছর পরে কোনো ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী পা রাখতে যাচ্ছেন কাঠমান্ডুতে। বহুপ্রতীক্ষিত এই নেপালযাত্রাকে নিছকই সৌজন্য সফরের মধ্যে সীমাবদ্ধ করে রাখতে চাইছেন না নরেন্দ্র মোদি। কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, এই সফরকে কাজে লাগিয়ে নেপালের সঙ্গে বাণিজ্য বাড়াতে চান মোদি। আবার বেইজিং-এর সঙ্গেও কূটনীতির কৌশল নিচ্ছেন তিনি। নেপালের সঙ্গে রেল যোগাযোগ তৈরি করে ধীরে ধীরে নেপাল-চীন সীমান্ত পর্যন্ত পৌঁছে যেতে চায় নয়া দিল্লি। আসন্ন সফরে এই বিষয়ে কিছু ঘোষণা হতে পারে বলে কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে।
কূটনীতিকদের মতে, মনমোহন সরকারের দীর্ঘ ১০ বছরের যুগে নেপাল নিয়ে যথেষ্ট উদাসীন থেকেছে নয়া দিল্লি। সেই সুযোগে নেপালের সঙ্গে কৌশলগত ঘনিষ্ঠতা বাড়িয়েছে চীন। সম্প্রতি বেইজিং ঘোষণা করেছে, ২০২০ সালের মধ্যে অরুণাচলের সীমান্ত পর্যন্ত রেলপথ তৈরি করবে তারা। চীন তার নিজের সীমানার মধ্যে রেল যোগাযোগ তৈরি করলে সরকারিভাবে কিছু বলার নেই ভারতের। কিন্তু অরুণাচলের সীমান্ত পর্যন্ত চীনের রেলপথ নিঃসন্দেহে সাউথ ব্লকের অস্বস্তির কারণ। তাই পাল্টা চাপের কৌশল নিতে চাইছে মোদি সরকার।
আজ কাঠমান্ডু পৌঁছে গেছেন পররাষ্ট্রশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। আগামী ৩ তারিখ দুই দিনের সফরে যাবেন প্রধানমন্ত্রী। তাঁর সফরে দুই দেশের মধ্যে রেল যোগাযোগের বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে। ভারত এবং নেপালের মধ্যে যোগবানি-বিরাটনগর রেললাইন পাতার কাজ অর্ধেক হয়ে পড়ে রয়েছে। ওই প্রকল্পে নেপালের দিকের কাজ মাত্র ২০ শতাংশ শেষ হয়েছে। তাতে ভারতীয় সহায়তার প্রয়োজন। পাশাপাশি আরও একটি প্রকল্পের কাজও (জয়নগর-বিজালপুরা-বর্দিবাস) অর্ধেক হয়ে পড়ে রয়েছে।
এই প্রকল্পগুলি যাতে অগ্রাধিকার দিয়ে দ্রুত শেষ করা হয়, সে জন্য মোদির সফরে কিছু নির্দিষ্ট ঘোষণা হবে বলেই কূটনৈতিক সূত্রে জানা যায়। নেপালে রেলপথ পাতার মাধ্যমে এক ঢিলে দুই পাখি মারতে চাইছে ভারত। প্রথমত, এর ফলে নিঃসন্দেহে ভারত-নেপাল বাণিজ্য বাড়বে। চাঙ্গা হবে পর্যটনও। আবার ধাপে ধাপে চীন সীমান্ত পর্যন্ত রেলপথ তৈরি করলে চাপ দেওয়া যাবে বেইজিংকেও। ওই প্রকল্পে ভারতীয় কর্মীদের মধ্যে থাকবে নিরাপত্তা বাহিনীও। তৈরি হবে উড়ালপুল, রাস্তা, স্টেশন-সহ নানা পরিকাঠামো। এই পরিকাঠামোর পুরোটাই থাকবে ভারতের নিয়ন্ত্রণে।
রাজনৈতিক শিবিরে একটি প্রশ্ন গত এক মাস ধরেই ঘুরপাক খাচ্ছে। সেটি হলো, বিজেপি-র সঙ্গে নেপালের হিন্দু রাজতন্ত্রের সম্পর্ক খুবই ঘনিষ্ঠ ছিল। সে দেশের নতুন সাংবিধানিক প্রজাতন্ত্র এবং ধর্মনিরপেক্ষতা নিয়ে মোদি সরকার কী অবস্থান নেয় তা নিয়ে সংশয়ে ছিল নেপাল। কিন্তু কূটনৈতিক সূত্রে খবর, নয়া দিল্লির তরফ থেকে নেপালের সাংবিধানিক শর্ত এবং অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক প্রক্রিয়া নিয়ে কোনোরকম চাপই থাকবে না। ভারত অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় নাক গলাতে যাবে না।
বিজেপি-র এক শীর্ষ নেতা জানান, মোদি ভারত-নেপাল সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য উন্নয়নকেই হাতিয়ার করতে চান। অতীতে আটকে থাকা তাঁর উদ্দেশ্য নয়। তাঁর অগ্রাধিকার দুই দেশের মধ্যে যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়ন এবং জলবিদ্যুতের ক্ষেত্রে সহযোগিতা বাড়ানো।
গত দুই দশক ধরে জলবিদ্যুৎ প্রকল্প নিয়ে দুই দেশের মধ্যে কোনো আস্থাবাচক চুক্তি হয়নি। ১৯৯৬ সালে ভারত এবং নেপাল ‘পঞ্চেশ্বর মাল্টিপারপাস প্রজেক্ট’-এ সই করে। এখনও পর্যন্ত এই প্রকল্পের বিস্তারিত রিপোর্ট তৈরি করা হয়নি। আসন্ন মোদি সফরে এই বিষয়টিতেও জোর দেওয়া হবে বলেই জানা গেছে।

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.