সাময়িকী.কম
বেশ শখ করেই প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন আপনি। প্রেমের প্রথম দিকে মেয়েটিকে একেবারেই নিরীহ মনে হতো আপনার। কিন্তু যতই দিন যাচ্ছে ততই আপনার কাছে আপনার প্রেমিকাকে ‘অভিভাবক’ মনে হচ্ছে আপনার। যেন সে আপনার প্রেমিকা নয় বরং ‘ভীষণ কড়া মা’। এমন পরিস্থিতিতে আপনার জীবন যখন অতিষ্ট, তখন হয়তো প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তটাকেই ভুল মনে হতে শুরু করবে আপনার। জেনে নিন কোন পরিস্থিতিতে বুঝতে পারবেন যে আপনি প্রেমিকার কড়া শাসনের শিকার এবং কি করবেন আপনি এমন পরিস্থিতিতে সেই ব্যাপারে।

স্বাধীনতায় ব্যাঘাত

আপনি সম্পূর্ণ স্বাধীন একটি মানুষ। আপনি যদি কোনো অন্যায় না করে থাকেন তাহলে আপনার ইচ্ছা মতো আপনাকে স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে দেয়া উচিত আপনার প্রেমিকার। অন্তত প্রেমিকার জন্য পর্যাপ্ত সময় দেয়ার পড়ের সময়টুকু একেবারেই আপনার নিজের। এই সময়ে আপনি কি করবেন সেটা পুরোপুরিই আপনার ইচ্ছা। আপনি যদি একান্ত নিজের এই সময়টুকুও না পান তাহলে বুঝতে হবে যে আপনি আপনার প্রেমিকার অভিভাবকসুলভ কড়া শাসনের স্বীকার।

প্রতি মূহূর্তের হিসাব চাওয়া

আপনি কি করছেন, কোথায় গিয়েছেন, ৫ মিনিট দেরি হয়েছে কেন, ফোন ধরতে দেরী হয়েছে কেন, ফোন ফেলে কোথায় গিয়েছিলেন, অফিসে ৩০ মিনিট বেশি লেগেছে কেন ইত্যাদি প্রতিটি ব্যাপারেই যদি আপনার সময়ের হিসাব দিতে হয় এবং সেটা নিয়ে আপনাদের দুজনের মধ্যে প্রতিনিয়তই ঝগড়া হয় তাহলে বুঝে নিন আপনি আপনার প্রেমিকার কড়া শাসনের স্বীকার। এমন পরিস্থিতিতে আপনার জন্য সম্পর্ক ভালো রাখাটা রীতিমতো মানসিক অত্যাচার হয়ে যাবে।

বন্ধুদের আড্ডা বন্ধ

বন্ধুরা মিলে আগে প্রায়ই তো আড্ডা দিতেন। মাঝে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে কিছুদিন সময় দিতে পারেন নাই বন্ধুদেরকে। এখন আবারও আগের মতো আড্ডা দিতে ইচ্ছে করছে আপনার। এমন পরিস্থিতিতে কি আপনার প্রেমিকা আপনাকে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে বাঁধা দিচ্ছে? নাকি বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে গেলেই রাগ করে কথা বলা বন্ধ করে দিচ্ছে আপনার সাথে? যদি আপনি এমন পরিস্থিতির স্বীকার হয়ে থাকেন তাহলে বুঝে নিন আপনার প্রেমিকা আপনাকে অতিরিক্ত শাসন করছে।

পুরো জীবনটা কঠিন রুটিনে বেঁধে যাওয়া

আপনার জীবনটা একেবারেই কঠিন রুটিনে চলছে। সকালে নির্দিষ্ট সময়ে ঘুম থেকে উঠা, ইচ্ছে করলেও বেশি ঘুমাতে না পারা, একেবারে সময় ধরে বাড়ি ফেরা ইত্যাদি প্রতিটি ব্যাপারেই আপনার নিজের চাইতে প্রেমিকার ইচ্ছেকে বেশি গুরুত্ব দিতে হলে বুঝে নিন আপনি প্রেমিকার অতিরিক্ত কড়া শাসনে আছেন।

মনে অনেক ক্ষোভ থাকলেও মুখ ফুটে বলতে ভয় পাওয়া

দীর্ঘ দিন ধরে কড়া শাসনে অতিষ্ট হয়ে গিয়েছেন আপনি। প্রতিনিয়তই এটা সেটা নিয়ে বকুনি খেতে হচ্ছে আপনার। এমন পরিস্থিতিতে সম্পর্কের উপর রীতিমতো বিরক্ত হয়ে গিয়েছেন আপনি। কিন্তু মুখ ফুটে কিছু বলার কথা যতবারই ভাবছেন ততবারই প্রেমিকার ভয়ে মুখ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে আপনার। আপনার অবস্থা যদি এরকম হয়ে থাকে তাহলে সত্যিই আপনি প্রেমিকার কঠিন শাসনের ভুক্তভোগী।

যা করবেন এমন পরিস্থিতিতেঃ

  • প্রেমিকাকে বুঝিয়ে বলুন যে আপনার অভিভাবক আছেন। তারা আপনার ভালোমন্দ দেখছেন। আপনার প্রেমিকা যেন এতোটা কড়া শাসনে আপনাকে না রাখে সেজন্য অনুরোধ করুন।
  • তাকে বলুন যে আপনি প্রেমময়ী স্ত্রী চাইছেন, ভালোবাসার সম্পর্কে অতিরিক্ত শাসন আপনি পছন্দ করেন না।
  • তাকে সরাসরি বলুন তার এই ধরণের আচরণ আপনার মনে বিরক্তি সৃষ্টি করছে এবং আপনাদের মধ্যে দূরত্ব কমাতে হলে আপনার প্রেমিকাকে এই ব্যাপারে কিছুটা হলেই শিথিল হতে হবে।
  • পরিস্থিতি যদি একেবারেই ঠিক না হয় তাহলে সম্পর্কটা থেকে দূরে সরে আসুন। কারণ এধরণের সম্পর্কের সুদূরপ্রসারী ফলাফল খুব একটা ভালো হয়না।
মডেলঃ সামি, ম্যারিন

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.