সাময়িকী.কম
গ্ল্যামারাস মডেল-অভিনেত্রী জয়া আহসান। মিষ্টি চেহারা দিয়ে জয় করে নিয়েছেন লাখো ভক্তের হৃদয়। একসময়ের ছোট পর্দার প্রিয় মুখ জয়া বর্তমানে কাজ করছেন চলচ্চিত্রে। সংবাদ মাধ্যমের সামনে কম আসার কারণে জনপ্রিয় এই তারকা সম্পর্কে জানার আগ্রহ রয়েছে অনেকেরই। এবার পাঠকদের জন্য "হাওয়া থেকে পাওয়া" খবরে জয়া সম্পর্কে থাকছে কিছু অজানা তথ্য।

ফয়সল-জয়ার বিয়ের সেই বিতর্কিত কাহিনী

জয়া ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে ভালবেসে বিয়ে করেছিলেন আলোচিত মডেল ফয়সালকে। যদিও মিডিয়া পাড়ায় খবর রটেছিল যে ফয়সালকে বিয়ের আগেও জয়া আরো একবার বিয়ে করেছিলেন। তবে সে খবর টেকেনি বেশিদিন। সুখেই কাটছিলো আলোচিত জুটি জয়া-ফয়সাল এর প্রেমকাহিনী। কিন্তু শুরু থেকেই সংসারের প্রতি অনীহা ছিল তার। স্বামী-সংসারের প্রতি উদাসীন জয়া মেতেছিলেন তার মডেলিং-অভিনয় নিয়ে।
বাতাসে আরো একটি খবর ভাসছিল যে একজন আনকোরা নাটক নির্মাতার সাথে চুটিয়ে প্রেম করছেন তিনি। একপর্যায়ে ভেঙে যায় ফয়সাল-জয়ার সংসার। জয়া নিজেই ডিভোর্স লেটার পাঠান স্বামী ফয়সালকে। এমনকি সেসময় প্রশাসনিক ক্ষমতার অপব্যবহার করে তিনি ফয়সালকে ফাঁসানোর চেষ্টা চালান বলে জানা যায় । ২০১১ সালের দিকে ফয়সালের সাথে ছাড়াছাড়ি হবার পর অনেকের সাথেই তার সম্পর্কের কথা শোনা যায়।

কাজের পৃথিবীতে

চলচ্চিত্রে জয়া প্রথম পা রাখেন ২০০৪ সালে ফারুকী পরিচালিত 'ব্যাচেলর' ছবিটির মাধ্যমে। এরপর ধারাবাহিক ভাবে কাজ করেছেন 'ডুবসাঁতার', 'গেরিলা', ও 'চোরাবালি' ছবিতে। 'গেরিলা' ছবিটির মাধ্যমে তিনি ২০১১ সালে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতে নেন। এরপরে জয়া অভিনয় করেন নাটক নির্মাতা রেদওয়ান রনির 'চোরাবালি' ছবিতে। পরিচালকের এটি প্রথম ছবি হওয়ায় বেশ যত্ন নিয়ে সিনেমাটি নির্মান করেন। এমনকি কলকাতা থেকে নায়ক ইন্দ্রনীলকে উড়িয়ে এনেছিলেন জয়ার বিপরীতে অভিনয়ের জন্য। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি তাতে, ছবিতে জয়ার একাধিক এনজি শটের কারণে এডিটিং এর সময় অনেক ফুটেজ ফেলে দিতে হয় নির্মাতাকে। ফলাফল, ছবিটি পুরোপুরি ভাবেই ফ্লপ। কারণ চলা চল্লিশ ঊর্ধ জয়ার বয়স বেড়েছেই চলেছে। চেহারায় ভেসে উঠেছে বয়সের ছাপ। কিন্তু এই বিষয়টি তিনি কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না।
আর তাই বুঝি বয়সের কথা ভুলতে গিয়ে নাম লেখালেন বাণিজ্যিক ছবিতে। এ সময় তিনি জানান, আর নাটক নয় চলচ্চিত্রে নিয়মিত অভিনয় করবেন তিনি। আর তাইতো সাফি উদ্দিন সাফি পরিচালিত 'পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী' সিনেমাতে চুক্তি বদ্ধ হলেন জয়া। ছবিটিতে তার বিপরীতে হিরো হিসেবে পেলেন ঢালিউডের কিং খান বলে খ্যাত শাকিব খান'কে। আর সেই ছবির আরো একটি চমক হলো আরিফিন শুভ। প্রথমবারের মতো খল-নায়কের ভূমিকায় শুভর আগমন ঘটে এই ছবিতে। শাকিব-জয়া-শুভ এই তিন জনের প্রেম রসায়নে ছবিটি হিট। বিশেষ করে ছবিতে শুভ-জয়াকে নিয়ে মালয়শিয়া নির্মিত চন্দন সিনহা'র আমি নিঃস্ব হয়ে যাব জাননা, যখন তোমায় পাবনা' গানটি বেশ সাড়া ফেলে। ছবিটি মুক্তি পায় ২০১৩ সালে।

অবশেষে এখন

ব্যক্তি জীবনের হতাশা কখনোই জয়ার অভিনয়ে কোন প্রভাব ফেলতে পারেনি। আর তাইতো তিনি ভক্তদের জন্য নিয়মিত ভাবে ভালো কাজ উপহার দিয়ে যাচ্ছেন। 'পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী' ছবিটির সাফল্য লাভের পর পরিচালক সাফি উদ্দিন সাফি এবার নির্মাণ করছেন 'পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী টু' । সিনেমাতে ফের জয়া-শাকিব জুটিকে দর্শক পর্দায় দেখতে পাবে । আসছে ঈদের পরে ছবিটির শুটিং শুরু হবে । গ্ল্যামারাস অভিনেত্রী জয়া তার অভিনয় দিয়ে দেশের মিডিয়া জগৎকে আরো সম্মৃদ্ধ করবেন। উপহার দেবেন 'ডুব-সাঁতার' ও 'পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী'র মতো আরো অনেক চলচ্চিত্র সকলের এটাই প্রত্যাশা ।

বিভাগ:

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.