প্রতিদিনই তো পান করছে কোক-পেপসি সহ আরও না জানি কত রকমের কোমল পানীয়। কিন্ত একবার কি ভেবে দেখছেন যে আপনার এই প্রিয় পানীয় গুলোতে আসলে কী আছে? কী দিয়ে তৈরি হচ্ছে এইসব পানীয়?
আপনি চাইলে নিজেই বাড়িতে এ পরীক্ষাটি করতে পারেন। এজন্য যে কোনো কার্বনেটেড কোমল পানীয় নিয়ে তা চুলায় সিদ্ধ করতে থাকুন। এক সময় তা ঘন হয়ে আসলেই বিষয়টি ধরা পড়বে। পানি বাষ্পিভূত হওয়ার পর দেখা যাবে চিনি আর রাসায়নিক পদার্থ রয়েছে এতে। আর অতিরিক্ত চিনি ও রাসায়নিক যে স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর, তা বলাই বাহুল্য।
কোকা কোলার প্রতি ৫৯০ মিলি বোতলে রয়েছে ৬৫ গ্রাম চিনি। আর এক লিটার বোতলে রয়েছে ১০৮ গ্রাম চিনি।
তবে পেপসি এ তুলনায় আরও এক ধাপ এগিয়ে। প্রতি ৫৯০ মিলি বোতলে রয়েছে ৬৫ গ্রামের বেশি চিনি। আর এক লিটার বোতলে রয়েছে ১১২ গ্রাম চিনি।
অ্যামেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের তথ্যমতে প্রতি বছর যুক্তরাষ্ট্রে ১ লাখ ৮০ হাজার মৃত্যুর পেছনে রয়েছে সফট ড্রিংক্স গলাধঃরণ।
সফট ড্রিংক্স প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রভাব-প্রতিপত্তির কারণে বাংলাদেশে এসব ক্ষতিকর ড্রিংক্স পানে মৃত্যুর বিষয়ে সঠিক কোনো পরিসংখ্যান পাওয়া না গেলেও তা যে জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ, তা বলাই বাহুল্য। এ বিষয়ে পশ্চিমা দেশগুলোতে জনসচেতনতা বাড়লেও বাংলাদেশে তা বাড়ছে না।
সূত্র- কালের কণ্ঠ

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.