প্রতিটি মানুষেরই সুস্থ থাকার জন্য ব্যায়াম করা প্রয়োজন। শুধু মুটিয়ে গেলে কিংবা প্রেসার ডায়াবেটিসের সমস্যা হলেই ব্যায়াম করতে হবে এই ধারণা ভুল। শরীরকে সুস্থ ও সুঠাম রাখার জন্য প্রতিটি মানুষেরই উচিত নিয়মিত ব্যায়াম করা। আর ব্যায়াম হিসেবে দৌড়ানোর বিকল্প নেই। বাইরে গিয়ে খোলা বাতাসে কিংবা বদ্ধ ঘরে ট্রেডমিলে যেখানেই দৌড়ানো হোকনা কেন শরীর থেকে ক্ষয় হয় প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি। ফলে শরীরে নানান রকম অসুখ বাসা বাঁধতে পারে না।
দৌড়ানোর জন্য কোন পদ্ধতিটি বেশি ভালো তা নিয়ে আছে নানান তর্ক বিতর্ক। কেউ বলেন বাইরে দৌড়ানো ভালো আবার কেউ বলেন ট্রেডমিল বেশি কার্যকরী। বাস্তবে দুটি পদ্ধতিরই আছে নানা সুবিধা অসুবিধা। জেনে নিন দুটি পদ্ধতিরই কিছু তুলনামূলক সুবিধা-অসুবিধা সম্পর্কে।

জগিং এর সুবিধা-অসুবিধা

  • খোলা আবহাওয়ায় দৌড়ানোর সুযোগ পাওয়া যায়।
  • সারাক্ষণ আশেপাশের দৃশ্য দেখা যায় তাই সহজে বিরক্তি কাজ করে না।
  • একঘেয়ে লাগে না বলে দীর্ঘসময় দৌড়ানো যায়।
  • কোনো ব্যায়ামের মেশিন লাগে না তাই কোনো বাড়তি খরচ নেই।
  • সব আবহাওয়াতে বাইরে দৌড়ানো যায় না। তাই ইচ্ছে থাকলেও সবসময় ব্যায়ামের সুযোগ পাওয়া যায় না।
  • দৌড়ের গতি কম বেশি হয় বলে প্রতিদিন নির্দিষ্ট ক্যালরি ক্ষয় করা যায় না।
  • সব সময় দৌড়ানোর জন্য উপযুক্ত স্থান পাওয়া যায় না।
  • কিছুক্ষন দৌড়িয়ে বিশ্রাম নিতে ইচ্ছে করে এবং নিজেকে নানা অজুহাত দিয়ে দৌড়ানো বন্ধ করা হয় অনেক সময়।

ট্রেডমিলে দৌড়ানোর সুবিধা-অসুবিধা

  • ট্রেডমিলে দৌড়ালে বাইরে জগিং এর তুলনায় অপেক্ষাকৃত বেশি ক্যালরি খরচ হয় কারণ দৌড়ানোর জন্য পায়ে কিছুটা বেশি চাপ প্রয়োগ করতে হয়।
  • আবহাওয়া নিয়ে কোনো সমস্যা হয় না। রোদ, বৃষ্টি, ঝড়েও ব্যায়ামে কোনো ব্যাঘাত ঘটে না।
  • ট্রেডমিলে দৌড়ালে প্রতিদিন দৌড়ানোর জন্য উপযুক্ত সমতল খুঁজতে হয় না।
  • ট্রেডমিলে প্রতিদিন নির্দিষ্ট গতিতে নির্ধারিত সময় দৌড়ালে প্রতিদিন একই পরিমাণ ক্যালরি ক্ষয় করা সম্ভব।
  • ট্রেডমিলে দৌড়ানোর সময় আপনি পছন্দ মত গতি নির্বাচন করতে পারবেন এবং দেখতে পারবেন কত ক্যালরি ক্ষয় হচ্ছে।
  • ট্রেডমিলে দৌড়াতে হলে আপনাকে গুনতে হবে জীমের বেতন অথবা ট্রেডমিল কেনার টাকা।

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.