মানুষের জিন কি আসলে পরিবর্তন করা অসম্ভব? সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন অ্যালার্জির জিন। এ থেকে দেখা যায়, অ্যালার্জি আসলে জিনের অস্বাভাবিকতার কারণে তৈরি হয়ে থাকে এবং মানুষের জিন আসলে "অপরিবর্তনশীল" নয় মোটেও। এমনকি আমাদের দৈনন্দিন জীবনেই এমন সব উপাদান লুকিয়ে আছে যারা আমাদের জিন এবং ডিএনএকে প্রভাবিত করছে, এমনকি পরিবর্তিত করে ফেলছে! প্রতিদিনের জীবনে ঘটা সেই ঘটনাগুলো আপনার অজান্তেই পরিবর্তিত করে দিতে পারে আপনার ডিএনএ-কে!

সেল ফোন রেডিয়েশন

বিজ্ঞানীরা অনেক আগে থেকেই আমাদের হুশিয়ার করে দিয়ে আসছেন যে সেল ফোন থেকে বের হওয়া রেডিয়েশন মানুষের জন্য ক্ষতিকর। এ ক্ষতি এড়াতে কি করা যেতে পারে? শুধুমাত্র দরকারের সময়ে ব্যবহার করুন সেল ফোন, অদরকারে মিনিটের পর মিনিট ফোনে কথা না বলাটাই নিরাপদ।

কীটনাশক এবং রাসায়নিক সার

আমাদের ডিএনএর আরেক শত্রু হলো বিভিন্ন কীটনাশক এবং রাসায়নিক সার। এগুলো খাবারের সাথে আমাদের সবার পেটেই কমবেশি চলে যায়। বিভিন্ন ফসল, সবজি এবং ফলের ফলন বাড়ানোর জন্য যেসব রাসায়নিক দেওয়া হয়, আমাদের স্বাস্থ্যের বিভিন্ন ক্ষতি করার পাশাপাশি এগুলো ডিএনএর ওপরেও রাখে ক্ষতিকর প্রভাব।

প্লাস্টিক

আমরা তো আর প্লাস্টিক খাই না। তাহলে প্লাস্টিক আমাদের ক্ষতি করবে কিভাবে? তাহলে ভেবে দেখুন, প্লাস্টিকে মোড়ানো খাবার আপনি কতো ঘন ঘন খাচ্ছেন? এসব খাবার খুব সহজেই প্লাস্টিক শুষে নিতে পারে নিজেদের মাঝে। ফলে আমাদের শরীরে প্লাস্টিক চলেই আসছে। এমনকি এই প্রক্রিয়ায় একজন মানুষের শরীরে এক দিনেই এসে পড়তে পারে ২১০ মাইক্রোগ্রাম প্লাস্টিক, যা মোটেই হেলাফেলা করার মতো কোনো ব্যাপার নয়। এর ফলে ক্যান্সার হচ্ছে অহরহই।

স্ট্রেস

খুব সূক্ষ্মভাবে ডিএনএর ক্ষতি করে স্ট্রেস। বিভিন্ন অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং পলিফেনলযুক্ত রঙিন ফলমূল খাবারের মাঝে রাখলে স্ট্রেস কমিয়ে আনা সম্ভব হয় কারণ তাঁরা শরীরে ফ্রি র‍্যাডিক্যালের উৎপাদনে বাধা দেয়। এভাবে ডিএনএর মাঝে পরিবর্তনকেও থামানো যায়।

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.