রূপালি জগৎ মানেই সাধারণ মানুষের আকর্ষণের অন্যতম একটি শীর্ষ বিন্দু। তারকারা কী করেন, কী পরেন, তাদের প্রেম-বিয়ে-সম্পর্ক সব কিছুর দিকেই থাকে ভক্তদের নজর। আর স্টাইল থেকে শুরু করে অন্যান্য অনেক কিছুতেই প্রিয় তারকাদের অনুসরণ করে থাকেন তারা। হ্যাঁ, এমনকি প্রেমেও! একটা কথা ভুলে গেলে চলবে না যে তারকারাও মানুষ আর ভুল তারাও করেন। আসুন, আজ জানি বর্তমান সময়ের আলোচিত কয়েকটি বলিউড ব্রেক-আপ আর তাদের "শিক্ষণীয়" দিকগুলো সম্পর্কে!
দীপিকা-রণবীর ব্রেক-আপ
বেশির ভাগ বলিউড তারকারাই ব্রেক-আপ করে থাকেন একটু শান্তিতে থাকার জন্য। কিন্তু সেই শান্তিকে অশান্তিতে পরিণত করার সংকল্পেই যেন নেমে যায় স্বয়ং করণ জোহর। বলিউড অঙ্গনের ধামাকা ব্রেক-আপ গুলোর মধ্যে অন্যতম দীপিকা-রণবীরের ব্রেক-আপটি।
আর সেই সুযোগটিকে হাত ছাড়া করেননি পরিচালক করণ জোহর। এক পর্বের অতিথি করে নিয়ে আসেন রণবীর কাপুরের সাবেক দুই প্রেমিকা সোনম এবং দীপিকাকে। পর্বটিতে রণবীরকে নিয়ে হাসি ঠাট্টায় মেতে ওঠেন এই দুই তারকা। একপর্যায়ে দীপিকা রণবীর কাপুরকে ‘প্রতারক’ এবং ‘কনডমের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর’ বলে আখ্যায়িত করেন। এখানেই শেষ নয় ছেলের বিরুদ্ধে এমন মন্তব্য হজম করতে পারেননি ঋষি কাপুর। পরবর্তীতে এমন মন্তব্য করার জন্য ক্ষমাও চাইতেও ঋষি কাপুর বাধ্য করেন দীপিকাকে।
সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: পুরনো প্রেমিক/প্রেমিকার মা-বাবার সামনে মোটেও তার বদনাম করতে যাবেন না। দোষটা সাবেক প্রেমিক/প্রেমিকার হলেও ভুগতে হতে পারে আপনাকে!
ক্যাটরিনা-রণবীর ব্রেক-আপ
দিনের পর দিন ডুবে ডুবে জল খাচ্ছেন এই দুই তারকা, আবার সেই জলকে ঘোলাও করে যাচ্ছেন। প্রথম লাইনটি পরেই নিশ্চয়ই ধরে ফেলেছেন দুই তারকার নাম?
হ্যাঁ, এরা ক্যাটরিনা-রণবীর। যেখানে ‘ভ্যালেন্টাইন্স ডে’টি ক্যাট ব্যতিত একাই কাটান রণবীর, সেখানে ম্যাডাম ক্যাটরিনা যেন সান্ত্বনা খুঁজে পান ঋত্বিক রোশনের কাছ থেকে। গত বছরের সবচেয়ে আলোচিত বিষয় ছিল ক্যাটরিনা-রণবীরের সমুদ্র সৈকতে অবকাশযাপনের ছবি। তবে সবচাইতে বেশি আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল ক্যাটরিনার ম্যাচিং সেন্স। কেননা লাল-সাদার বিকিনিতে বড়ই বেমানান লাগছিল গ্ল্যামারাস ক্যাটরিনা কাইফকে।
সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: যতই প্রেমে মজে থাকুন না কেন, গ্ল্যামার সেন্স হারালে কিন্তু চলবে না!
প্রতীক বাব্বার-এমি ব্রেক-আপ
ভালবাসা প্রদর্শনে ট্যাটু বর্তমান প্রজন্মের কাছে এক জনপ্রিয় ট্রেন্ডে পরিণত হয়েছে। এবং এর আকর্ষণ থেকে বাদ পরেননি বলিউড জুটিরাও। ঋত্বিক-সুজানের পরে সাইফ আলি খান, দীপিকা পাডুকোন, প্রতীক বাব্বারও তাদের প্রিয় মানুষের নামটি অঙ্কন করেছেন নিজের শরীরে।
এদিকে সিনেমা জগতে সর্ব কনিষ্ঠ অভিনেতা প্রীতম তখন ‘এক দিওয়ানা থা’ ছবির নায়িকার সাথে গভীর প্রেমে মগ্ন। যথারীতি একে অপরের নামটি অংকন করে বসেন। প্রতীকের ট্যাটুটি ছিল এরকম, “মেরা পেয়ার মেরা এমি” এবং এমির ট্যাটুটি ছিল, "মেরা পেয়ার মেরি প্রতীক।" সম্পর্ক ভেঙ্গে গেলে এমি এতটুকুও সময় নষ্ট করেনি ট্যাটুটি মুছে ফেলতে। কিন্তু প্রতীক এখনও এমির স্মৃতি বয়ে বেড়াচ্ছেন।
সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: ভালবাসা প্রদর্শনের প্রয়োজনে কখনো নিজের সঙ্গীর নামটি গায়ে লিখবেন না। সম্পর্ক টিকবে কি টিকবে না তার নিশ্চয়তা কই? অযথাই যত যন্ত্রণা।

Author Name

যোগাযোগের ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *

Blogger দ্বারা পরিচালিত.